ম্যান সিটির কাছে হেরেও নক আউট পর্বে পিএসজি

ম্যান সিটির কাছে হেরেও নক আউট পর্বে পিএসজি

স্পোর্টস ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:৫৫ ২৫ নভেম্বর ২০২১  

ম্যানচেস্টার সিটি ও পিএসজি

ম্যানচেস্টার সিটি ও পিএসজি

ম্যানচেস্টার সিটির কাছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গ্রুপ পর্বে ২-১ গোলে পরাজিত হয়েছে তারকা সমৃদ্ধ পিএসজি। কিন্তু এই হারের পরও গ্রুপ -এ’র দ্বিতীয় দল হিসেবে নক আউট পর্ব নিশ্চিত করেছে প্যারিসের জায়ান্টরা। তবে হেরেও নক আউট পর্বে জায়গা করে নিয়েছে পিএসজি।

এই হারে পাঁচ ম্যাচে পিএসজির সংগ্রহে থাকলো ৮ পয়েন্ট। ১২ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে সিটিজেনরা। ৪ পয়েন্ট করে সংগ্রহ করে বিদায় নিয়েছে আরবি লিপজিগ ও ক্লাব ব্রাগা। এই গ্রুপে দিনের আরেক ম্যাচে লিপজিগ ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছে বেলজিয়ান ক্লাব ব্রাগাকে।
ম্যানচেস্টারের ইতিহাদ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে প্রথমে অবশ্য এগিয়ে গিয়েছিল সফরকারী পিএসজি। প্রথমার্ধ গোলশুন্য থাকার পর কিলিয়ান এমবাপ্পে ৫০ মিনিটে গোল করে পিএসজিকে এগিয়ে দেন। ৬৩ মিনিটে রাহিম স্টার্লিং সমতা ফেরান। ৭৬ মিনিটে গাব্রিয়েল জেসুসের গোলে সিটির জয় নিশ্চিত হয়। 

ম্যাচ শেষে জেসুস বলেছেন, আমাদের দলে এমন অনেক খেলোয়াড় রয়েছে যারা দলকে সহযোগিতা করতে পারে। সবাই একে অপরকে গোল করার জন্য ভাল বল বানিয়ে দেবার যোগ্যতা রাখে। এখানে কেউই স্বার্থপর না।

লিওনেল মেসি, নেইমার ও এমবাপ্পেকে নিয়ে সাজানো শক্তিশালী আক্রমনভাগ নিয়েই কাল মাঠে নেমেছিল পিএসজি। কিন্তু পুরো ম্যাচে একটি সম্পূর্ণ দলকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।

সিটি বস পেপ গার্দিওলা বলেছেন, তাদের দলে অনেক মান সম্পন্ন খেলোয়াড় রয়েছে। পুরো ম্যাচে আমরা চেষ্টা করেছি তাদেরকে গোলের থেকে অনেক দুরে রাখতে।

ম্যানচেস্টারে বৈরী আবহাওয়ায় নেইমারের থেকে অনেকটাই এগিয়ে ছিলেন তার জাতীয় দলের সতীর্থ জেসুস। ৬৪ মিনিটে বদলী বেঞ্চ থেকে উঠে এসে বার্নান্ডো সিলভার এসিস্টে তিনি সিটিকে জয়সূচক গোলটি উপহার দেন। 

গার্দিওলা বলেন, আমরা আক্রমনগুলো ভাল করেছি। আজ বার্নান্ডোর যোগ্যতা আরো একবার প্রমানিত হয়েছে। যখন কেউ সঠিক টেকনিকের উদাহরন দেয় বার্নান্ডোর আজকের পারফরমেন্স সেটাই ছিল। সঠিক সময়ে সতীর্থকে দিয়ে গোলের সেরা সুযোগটি কাজে লাগানো।

সিলভা বলেছেন, প্রথমার্ধটা খুব একটা ভাল কাটেনি। কিন্তু তারপরেও যেহেতু ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ আমাদের হাতে ছিল সে কারনেই আমরা তাদের উপর চাপ প্রয়োগ করে খেলতে পেরেছি। বল ছিনিয়ে নিয়ে পজিশনও আমাদের দখলেই ছিল। কিন্তু আমাদের আরো গোল পাওয়া উচিত ছিল।
প্রতিযোগিতার অন্যতম ফেবারিট এই দুই দলের কেউই এখনো পর্যন্ত ইউরোপীয়ান সর্বোচ্চ আসরে শিরোপার স্বাদ পায়নি। ৫০ মিনিটে মেসি ও নেইমারের মধ্যে বল আদান প্রদানের ফসল হিসেবে সফল হন এমবাপ্পে। কিন্তু এরপর থেকে আক্রমনভাগের নিয়ন্ত্রন পুরোটাই চলে যায় সিটির দখলে। কাইল ওয়াকারের ক্রস থেকে রাহিম স্টার্লিংয়ের  বাম পায়ের দুর্দান্ত শটের গোল তারই প্রমান। এরপর ৭৬ মিনিটে জেসুসের কাছ থেকে আসে জয়সূচক গোল।

এই জয়ের মাধ্যমে সবকটি ইংলিশ ক্লাবই (চেলসি, লিভারপুল, ম্যানচেস্টার সিটি, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড) এক ম্যাচ হাতে রেখেই নক আউপট পর্ব নিশ্চিত করেছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএস