ফেভারিট হিসেবে মাঠে নামবে নাজমুল একাদশ

ফেভারিট হিসেবে মাঠে নামবে নাজমুল একাদশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৮:৩৯ ২৪ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ১৮:৪৯ ২৪ অক্টোবর ২০২০

নাজমুল একাদশ  -ফাইল ফটো

নাজমুল একাদশ -ফাইল ফটো

আগামীকাল বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপের ফাইনালে মুখোমুখি হচ্ছে নাজমুল একাদশ ও মাহমুদউল্লাহ একাদশ। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নেতৃত্বাধীন মাহমুদউল্লাহ একাদশের বিপক্ষে প্রাধান্য বিস্তার করে শিরোপা জয়ে চোখ নাজমুল হোসেন শান্তর নাজমুল একাদশের। শিরোপা জিততে মরিয়া মাহমুদউল্লাহ একাদশও।

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আগামীকাল ফাইনাল ম্যাচটি শুরু হবে বেলা ১টা ৩০ মিনিটে। শিরোপা নির্ধারনী ম্যাচটি বিসিবির ফেসবুক পেইজ ও ইউটিউব চ্যানেলে দেখা যাবে। এছাড়াও বাংলাদেশ টেলিভিশন ম্যাচটি সরাসরি দেখাবে। ফাইনালের জন্য সোমবার রিজার্ভ-ডে রাখা হয়েছে।  

ফাইনালটি গতকাল অনুষ্ঠিত হবার কথা ছিলো। কিন্তু বৈরি আবহাওয়ার কারনে দু’দিন পিছিয়ে আগামীকাল হচ্ছে টুর্নামেন্টের শিরোপা নির্ধারনী ম্যাচটি।

তিন দলের টুর্নামেন্টে লিগ পর্বে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে ফাইনালে ওঠে নাজমুল একাদশ। লিগ পর্বে চার ম্যাচের মধ্যে তিনটিতে জয় ও একটি হারের স্বাদ পেয়েছিলো নাজমুল একাদশ।

অন্যদিকে, মাহমুদউল্লাহ একাদশ দু’টি ম্যাচে জয় পায়। টুর্নামেন্টের আরেক দল তামিম একাদশ হতাশাজনক পারফরম্যান্স করে। চার ম্যাচে মাত্র ১টি জয়ের স্বাদ নেয় তামিম ইকবালের নেতৃত্বাধীন দলটি। ফলে লিগ পর্ব থেকেই মিশন শেষ করতে হয় তাদের।

ফাইনালের আগে ফেভারিট নাজমুল একাদশ। লিগ পর্বে দু’বার মাহমুদউল্লাহ একাদশকে হারিয়েছে দলটি।

প্রথম ম্যাচে ১৯৬ রানে অলআউট হয় মাহমুদউল্লাহ একাদশ। ৪১.১ ওভারে টার্গেট স্পর্শ করে ৪ উইকেটে ম্যাচ জেতে নাজমুল একাদশ। পরের ম্যাচে তামিম একাদশের কাছে ৪২ রানে ম্যাচ হারে নাজমুল একাদশ।

ফিরতি পর্বেও জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে নাজমুল একাদশ। আফিফ হোসেনের ৯৮ রানের সুবাদে মাহমুদউল্লাহ একাদশের বিপক্ষে ৮ উইকেটে ২৬৪ রান করে তারা। এবারের টুর্নামেন্টে এটিই সর্বোচ্চ দলীয় রান। পরে বোলারদের নৈপুন্যে মাহমুদউল্লাহ একাদশকে ১৩৩ রানেই অলআউট করে দেয় নাজমুল একাদশ। এতে ১৩১ রানের বড় জয় পায় নাজমুল একাদশ। 

লিগ পর্বের শেষ ম্যাচে তামিম একাদশকে ৭ রানে হারিয়ে জয় তুলে নেয় নাজমুল একাদশ।

টুর্নামেন্টে মাত্র একবার দলীয়ভাবে ২০০ এর বেশি রান করতে পারে মাহমুদউল্লাহ একাদশ। তারপরও ফাইনালের মঞ্চে তারা। লিগ পর্বে তামিম একদশের বিপক্ষেই দু’টি জয় ফাইনালে তুলেছে মাহমুদউল্লাহ একাদশকে। 

লিগ পর্বের পারফরমেন্সে এগিয়ে নাজমুল একাদশই। কিন্তু ওয়ানডে ক্রিকেটে নির্দিষ্ট দিনের পারফরমেন্সই পার্থক্য গড়ে দেয়। এটি বেশ ভালোই জানেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। 

তাই ফাইনালে জ্বলে ওঠার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি। মাহমুদউল্লাহ বলেন, আমরা ফাইনালে উঠেছি, এটি আনন্দের বিষয়। এই টুর্নামেন্টটি আয়োজনে বিসিবির উদ্যোগটি বেশ ভালো ছিলো। আমরা এখন ফাইনালে এবং ভালো খেলতে মরিয়া হয়ে আছি।

লিগ পর্বের শেষ ম্যাচে জিতলেই ফাইনালে উঠতে পারতো তামিম একাদশ। কারণ তামিম একাদশের চেয়ে রান রেটে পিছিয়ে ছিলো মাহমুদউল্লাহ একাদশ। তিনি বলেন, ‘শেষ ম্যাচটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিলো। যদি তামিম একাদশ জিততে পারতো, তবে আমরা ফাইনালে খেলতে পারতাম না। তবে ভাগ্যক্রমে আমরা ফাইনালে উঠতে পেরেছি।

নাজমুল একাদশের অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত ফাইনালে ভালো খেলার ব্যাপারে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। তিনি বলেন, আমরা এখন পর্যন্ত টুর্নামেন্টে ভালো খেলেছি এবং কাল আরো একবার ভালো খেলতে পারলে, আমরা শিরোপা জিততে পারবো। আমরা সবাই জয়ের জন্য উদগ্রীব।

তবে নাজমুল একাদশের জন্য চিন্তার কারণ দলের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান মুশফিক রহিমের ইনজুরি।  শেষ ম্যাচে তামিম একাদশের বিপক্ষে কাঁধের ইনজুরিতে পড়া মুশফিক আগামীকালের ফাইনালে এখনো অনিশ্চিত।

বিসিবির চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরি জানান, ম্যাচের দিন ফাইনালে মুশফিকের অংশগ্রহনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া যাবে।

টুর্নামেন্টে একটি সেঞ্চুরি ও দু’টি হাফ-সেঞ্চুরি করেছেন মুশফিক। অধিনায়ক শান্ত আগামীকালের ফাইনালে মুশফিককে পাবার ব্যাপারে আশাবাদী।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএস/এএল