মুজিববর্ষে আন্তর্জাতিক দাবা টুর্নামেন্ট আয়োজন করবে বাংলাদেশ

মুজিববর্ষে আন্তর্জাতিক দাবা টুর্নামেন্ট আয়োজন করবে বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৮:০৭ ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০  

প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল

প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল

মুজিববর্ষে বড় পরিসরে একটি আন্তর্জাতিক দাবা টুর্নামেন্ট আয়োজন করবে বাংলাদেশ। রোববার এমন তথ্য জানিয়েছেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। আজ রাজধানীর একটি হোটেলে জয়তু শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক অনলাইন দাবা টুর্নামেন্ট প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী ও সমাপনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে এই দাবা টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, ‘দাবা খেলায় ভারতীয় উপমহাদেশের প্রথম গ্র্যান্ড মাস্টার আমাদের দেশের সন্তান। আমাদের দেশে এরই মধ্যে ১৪০০ জনের মতো স্বীকৃত দাবা খেলোয়াড় রয়েছে। দাবার এই টুর্নামেন্ট আয়োজন করায় আয়োজকদের ধন্যবাদ জানাই। যারা অংশগ্রহণ করেছে প্রত্যেককেই ধন্যবাদ জানাই। আশা করছি, দাবা খেলায় বিশ্ব মঞ্চে বড় কিছু অর্জন করবে বাংলাদেশ। আমাদের পরিকল্পনা আছে, আমরা মুজিববর্ষে বড় পরিসরে একটি আন্তর্জাতিক দাবা টুর্নামেন্ট আয়োজন করব।’

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, ‘ক্রীড়ার উন্নয়নের প্রতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সবসময় নজর রয়েছে। ক্রীড়াঙ্গনকে তিনি কেমন করে আলোকিত করবেন, কীভাবে এগিয়ে নিয়ে যাবেন সে বিষয়ে সর্বদাই চিন্তাভাবনা করেন। আগে আমাদের বিভাগীয় ও জেলা পর্যায়ে স্টেডিয়াম ছিল। এখন কিন্তু আমরা উপজেলা পর্যায়ে মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণ করছি। এরইমধ্যে ১২৫টি মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণ হয়েছে। চলতি অর্থ-বছরে আমাদের আরো ১৮৬টি নির্মাণ করার পরিকল্পনা রয়েছে।’

তিনি যোগ করেন, ‘আমাদের স্বপ্ন ছিল বাংলাদেশ বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হবে। আমরা কিন্তু এরইমধ্যে ক্রিকেটে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছি। আমাদের জন্য এটি অনেক বড় একটি অর্জন। সর্বশেষ এসএ গেমসেও আমরা সর্বোচ্চ সংখ্যক পদক আনতে সক্ষম হয়েছি।’

দাবা খেলার প্রসার ও উন্নয়নের জন্য স্থায়ী জায়গার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন জাহিদ আহসান রাসেল। অচিরেই দাবার জন্য স্থায়ী জায়গার ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানান তিনি।

প্রথম স্থান অধিকারীর হাতে পুরস্কারের চেক তুলে দিচ্ছেন প্রতিমন্ত্রীপ্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা করোনাকালীন সময়ের জন্য প্রস্তুত ছিলাম না। তারপরও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা যেভাবে এখন পর্যন্ত এই পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে সক্ষম হয়েছি তা বিশ্বের ইতিহাসে নজিরবিহীন। বিশ্বের অনেক বড় বড় দেশ এ পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হিমসিম খাচ্ছে। তাদের হাসপাতালগুলোতে জায়গা নেই, সুযোগ সুবিধাও কমে গেছে। হঠাৎ করে আসার কারণে প্রথমদিকে আমাদেরও কিছু কষ্ট হয়েছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘ধাপে ধাপে দেশের প্রতিটি হাসপাতালকে প্রধানমন্ত্রী এমনভাবে স্বয়ং সম্পূর্ণ করেছেন যে, এখন হাসপাতালের বেড খালি রয়েছে। কারণ, আমরা করোনা চিকিৎসার ব্যবস্থা বৃদ্ধি করতে পেরেছি। চিকিৎসা সেবাই নয়, প্রথম দিন থেকেই করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ মানুষকে প্রধানমন্ত্রী সেবা দিয়ে এসেছেন। তিনি এক লাখ কোটি টাকার ওপরে প্রণোদনা দিয়েছেন যা পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন হচ্ছে। বাংলাদেশ তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে এখন উন্নয়নের রোল মডেল হয়েছে। সবই হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪ তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে সাউথ এশিয়ান দাবা কাউন্সিল ও কানাডিয়ান ইইনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের উদ্যোগে তিন দিনব্যাপী এই দাবা চ্যাম্পিয়নশিপের আয়োজন করা হয়। স্বাগতিক বাংলাদেশসহ ১৫টি দেশের ১৭ জন গ্র্যান্ডমাস্টারসহ মোট ৭৪ জন দাবাড়ু এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেন।

সমাপনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে সাউথ এশিয়ান চেস কাউন্সিল ও বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের সভাপতি ড. বেনজীর আহমেদ, কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের চেয়ারম্যান চৌধুরী নাফিজ সারাফাত, বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাক সৈয়দ শাহাব উদ্দিন শামীম উপস্থিত ছিলেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএস/এএল