পাঁচ বছরের ‘বকেয়া ট্রফি’ শোধ করল বাফুফে

পাঁচ বছরের ‘বকেয়া ট্রফি’ শোধ করল বাফুফে

ক্রীড়া প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১২:৫৭ ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৩:০০ ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০

সোমবার ক্লাবগুলোকে এসব ট্রফি বুঝিয়ে দেয়া হয়

সোমবার ক্লাবগুলোকে এসব ট্রফি বুঝিয়ে দেয়া হয়

শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র নিজেদের সৌভাগ্যবান ভাবতেই পারে! সোমবার বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) থেকে তারা একটি রানার্স আপ ট্রফি পেয়েছে। প্রশ্ন উঠতেই পারে, এখন আবার কিসের ট্রফি? করোনার কারণে তো দেশে গত কয়েকমাস ধরে খেলাই হয়নি! আসলে ট্রফিটি পাঁচ বছর আগের! প্রিমিয়ার লিগে ২০১৪-১৫ মৌসুমের রানার্স আপ ট্রফিটি গতকাল পেয়েছে দলটি। গতকাল এমনই সব মিলিয়ে ২৩টি ট্রফি বিতরণ করেছে বাফুফে। 

সোমবার সিনিয়র ডিভিশন ফুটবল, বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগ, দ্বিতীয় বিভাগ, তৃতীয় বিভাগ মিলিয়ে ২০১৪-১৫ থেকে ২০১৮-১৯ মৌসুম পর্যন্ত মোট ২৩টি ‘বকেয়া ট্রফি’ প্রাপ্যদের বুঝিয়ে দিয়েছে দেশের ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা। বাফুফে ভবনে বেশ ঘটা করেই ক্লাব কর্মকর্তাদের হাতে ট্রফিগুলো তুলে দেয়া হয়। এসব ট্রফির মধ্যে আছে প্রিমিয়ার লিগের দুটি রানার্সআপ শিরোপা। বাকিগুলো অন্য স্তরের লিগগুলোর চ্যাম্পিয়ন, রানার্সআপ, তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানের।

যেকোনো ক্লাব ও খেলোয়াড়ের জন্য ট্রফি তাদের স্বীকৃতির স্মারক। এমন একটা জিনিস দেরিতে পেলে তার আনন্দ কতটুকু থাকে তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন ২০১৮ সালে তৃতীয় বিভাগে চতুর্থ হওয়ার পুরস্কার নিতে আসা সাইফ স্পোর্টিংয়ের জুনিয়র দলের কামাল বাবু। তিনি বলেন, একটা ট্রফি ক্লাবের পরের বছরের অনুপ্রেরণার প্রতীক। কিন্তু সেটা যদি পাঁচ, ছয় বছর পর কারো হাতে তুলে দেয়া হয় তখন ক্লাবের কাছে এই ট্রফির কি মূল্য থাকে?

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে ঘুরেফিরে অনেক কর্মকর্তার মুখে এসেছে আগামী ৩ অক্টোবরের নির্বাচনের প্রসঙ্গ। এভাবে দেরিতে পুরস্কার দেয়ার কারণও ব্যাখ্যা করেছেন তারা। বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ জানিয়েছেন, অনেক দলই অন্যান্য টুর্নামেন্ট নিয়ে ব্যস্ত থাকে। এসব কারণে দেরিতে ট্রফি নিচ্ছে।

মহানগর লীগ কমিটির চেয়ারম্যান হারুন অর রশীদ বলেন, অনেক ক্লাব চায় তাদের যে পৃষ্ঠপোষক ও যারা মাঠে আসেন না, তাদের নিয়ে অনুষ্ঠান করে ট্রফিগুলো নিতে। এমন কারণেও ট্রফি দিতে দেরি হয়।

ট্রফির মতো পুরস্কারের অর্থও বকেয়া ছিল। এ ব্যাপারে পেশাদার লিগ কমিটির চেয়ারম্যান এবং বাফুফের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদী ‘চেক তৈরি’ থাকার কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, এতদিন পুরস্কারের যে অর্থ বকেয়া ছিল, সেগুলোর চেক তৈরি আছে। প্রতিটি দল আজই হিসাব বিভাগ থেকে তাদের চেক বুঝে নিতে পারবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এএল