সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল অদ্ভুত এই প্রাণী কি বাস্তবে আছে?

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল অদ্ভুত এই প্রাণী কি বাস্তবে আছে?

সোশ্যাল মিডিয়া ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৯:৫০ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০  

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল অদ্ভুত এই প্রাণী কি বাস্তবে আছে?

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল অদ্ভুত এই প্রাণী কি বাস্তবে আছে?

মুখ মানুষের মতো, গায়ে আরমাডিলোর মতো বর্ম, আঙুলগুলো ব্যাঙের মতোই চার পায়ের একটি অদ্ভুত প্রাণীর ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। এমন ছবির সঙ্গে রক্তাক্ত এক ব্যক্তির ছবিও যুক্ত করা হয়েছে। এতে সোশ্যাল মিডিয়ায় হইচই পড়ে যায়। তবে ছবিটির রহস্য ফাঁস হয়েছে।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম আনন্দবাজার ডিজিটাল’র এক প্রতিবেদনে বলা হয়, অদ্ভুত ধরনের ছবি দিয়ে ফেসবুকসহ নানা সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজব ছড়ানো হচ্ছে। অনেকে ওই প্রাণীকে পুরুলিয়ার অযোধ্যা পাহাড়ে, রাজস্থান ও গুজরাতে দেখেছেন বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবি করছেন। ওই অদ্ভুত প্রাণীকে ‘কুইয়া বাঘ’ হিসেবে পরিচিত করা হচ্ছে।

ছবিটিতে থাকা প্রাণী পুরো বিশ্বের কোথাও নেই। পুরুলিয়ায় স্থানীয়রা জানান, এক ধরনের গিরগিটিকে কুইয়া বাঘ বলে ডাকা হয়। বিশ্বজিৎ দাশগুপ্ত বলেন, একটু মোটা ও সবুজ রঙের এক রকম গিরগিটিকে আমরা কুইয়া বাঘ বলে ডাকি। তবে এমন কোনো প্রাণী কখনো দেখিনি।

বিধাননগর গভর্নমেন্ট কলেজের প্রাণীবিদ্যা বিভাগের সাবেক অধ্যাপক অরূপ দত্তগুপ্ত বলছেন, জীবজগতে এমন প্রাণীর অস্বিত্বই নেই। সরীসৃপদের সামনে-পিছনে চার পায়েই পাঁচটা করে আঙুল থাকে। আর স্যালামান্ডার জাতীয় উভচর প্রাণীদের সামনের পায়ে চারটে ও পিছনের পায়ে পাঁচটা আঙুল থাকে। ছবিতে থাকা প্রাণীটির চেহারার বৈশিষ্ট্যের কোনোটির সঙ্গেই মেলে না।

তিনি আরো বলেন, আবার প্রাণীটির গায়ের উপরের অংশে কিছু স্তন্যপায়ী বা সরীসৃপের মতো বর্ম রয়েছে। কিন্তু শরীরের নীচের দিকে কোনো আঁশ নেই।

চোখ দুটো সরীসৃপ বা স্যালামান্ডারের মতো মুখের দুই পাশে নয়। অধ্যাপক দত্তগুপ্তের মতে, ছবিতে থাকা প্রাণীটি আসলে সুকুমার রায়ের বকচ্ছপ বা হাঁসজারুর মতো কল্পনা-জাত।

ভাইরাল হওয়া কয়েকটি পোস্ট।

এদিকে গুগল ইমেজ সার্চে ওই প্রাণীটির বেশ কিছু পুরনো ছবি সম্বলিত ওয়েবসাইট লিঙ্কের সন্ধান মিলেছে। ২০১৮ সালের অক্টোবরেও অদ্ভুত প্রাণীটির ছবিগুলোই ভাইরাল হয়েছিল। তখন একাধিক জায়গায় এটিকে ‘বুশি বেবি’ বলে দাবি করা হয়।

২০১৮ সালের ৩ অক্টোবর সর্বপ্রথম লাইরা মাগানুকো নামের এক ইটালীয় ভাস্করের ফেসবুক প্রোফাইলে ছবিগুলো প্রথম আপলোড হয়। শিল্পী হাইপার রিয়েলিটি নিয়ে কাজ করেন। সিলিকোনের তৈরি এমনই সব ভাস্কর্যে নিজের কল্পনাকে ফুটিয়ে তোলেন।

অন্যদিকে পৃথিবীতে ভাইরাল ছবির অদ্ভুত প্রাণীর অস্তিত্ব নেই। তাই হামলার ঘটনা তো প্রশ্নই আসে না। সুতরাং হোয়াটস্অ্যাপ, ফেসবুক, টুইটারে যা-ই দেখবেন, তা-ই বিশ্বাস করে শেয়ার দেবেন না। বিশেষত এমন আতঙ্কগ্রস্ত ভুয়া খবর ছড়ানোর আগে যাচাই করুন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ