চাঁদের বালি দিয়েই তৈরি হবে ইট

চাঁদের বালি দিয়েই তৈরি হবে ইট

বিজ্ঞান ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:৩০ ২৮ জুলাই ২০২২  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ভবিষ্যতে চাঁদের বুকে দালান, রাস্তা ও যন্ত্রপাতি বসানোর পরিকল্পনা অনেক আগে থেকেই ছিল বিজ্ঞানীদের মাথায়। এই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে চাঁদের ধুলাবালি দিয়ে তৈরি ইট বানানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

জার্মান এয়ারোস্পেস সেন্টারের মাটিয়াস স্পার্ল ঠিক এই লক্ষ্য নিয়েই কাজ করছেন। এসব ইট একদিন চাঁদের বুকে দালান তৈরি করা হবে। এসব অবকাঠামোর মধ্যে রয়েছে, আবাসিক ভবন, গ্রিনহাউস, গুদাম, কিংবা পাকা পথ। এগুলো দিয়ে বানানো হবে সুরক্ষা দেওয়াল, রেডিও টেলিস্কোপ বা আরো বড় আকারের যন্ত্রের ভিত্তি।

মহাজাগতিক বিকিরণ ও তাপমাত্রার বড় পার্থক্য, যেমন প্লাস ১০০ ডিগ্রি থেকে মাইনাস ১০০ ডিগ্রি, এমন চরম পরিবেশে অবকাঠামো বানাতে হবে। চাঁদে অবকাঠামো উপাদান পরিবহণ একটা বিরাট খরচের ব্যাপারও। তাই সেখানে পাওয়া যায় এমন উপাদান দিয়ে কাজ করা যুক্তিযুক্ত হবে, যেমন চাঁদের বালি।

গবেষকরা এখানে আগ্নেয় ছাই ব্যবহার করছেন। এগুলোর শারীরিক ও রাসায়নিক গঠন চাঁদের বালির মতোই।

গবেষক মাথিয়াস স্পার্ল বলেন, পাথরগুলো দেখতে এখনও নিখুঁত হয়নি। শেষপর্যন্ত একেবারে নিখুঁত হবেও না। কিন্তু বড় ব্যাপার হল যে পদ্ধতি আমরা ব্যবহার করছি তা সহজ, সুলভ ও টেকসই। অল্প উদ্যোগে দ্রুত সময়ে বিদ্যুতের সরবরাহ নেই এমন পরিবেশে করা যায়।

কারণ, সূর্যের আলো ইট পোড়ানোর মতো যথেষ্ট তাপ উৎপাদন করে৷ চাঁদে যেমন করে, তেমনই জার্মান এয়ারোপস্পেস সেন্টারের এই সোলার ফার্নেসেও৷ এই হেলিওস্ট্যাট বা বিরাট আয়নাটি সূর্যরশ্মির প্রতিফলন ঘটায় এবং একীভূত করে। সেই আলো গিয়ে পড়ে ১৫৯টি আয়নার এই মৌচাকের মতো কনসেন্ট্রেটরে৷ সেখানে এটি পাঁচ হাজার গুণ ঘনীভূত হয়ে সোলার ফারনেসের ভেতরে গিয়ে পড়ে।

এক একটি ঘনীভূত রশ্মি থেকে আড়াই হাজার ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত তাপ উৎপন্ন হয়। স্তরে স্তরে চাঁদের বালিকে সেঁকা হয় এই তাপ দিয়ে। অনেকটা থ্রিডি প্রিন্টিং প্রক্রিয়ার মতো ইটটি একটি বিশেষ টেবিলের ওপর তৈরি করা হয়। ঘনীভূত আলো সেখানে প্রিন্ট হেডের কাজ করে।

মাথিয়াস স্পার্ল বলেন, এই পদ্ধতির সবচেয়ে বড় সুবিধা হল, আমি এটি থ্রিডি প্রিন্টিংয়ের মতো স্তরে স্তরে তৈরি করি। আমার হাতে অনেক নিয়ন্ত্রণ থাকে। ঘটনাস্থলে ঠিক যেমনটি চাই, তেমনটি তৈরি করতে পারি অল্প উপাদান ব্যবহার করে।

চাঁদে সহজে দালান তৈরির জন্য গবেষকরা একে অপরকে সাহায্য করে এমন জ্যামিতিক আকারগুলো ব্যবহার করছেন। তবে সব উপাদানকে চাঁদে নিয়ে যেতে হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে