যুক্তরাষ্ট্রে হাজারো মানুষের বিক্ষোভ

যুক্তরাষ্ট্রে হাজারো মানুষের বিক্ষোভ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৮:০৪ ১২ জুন ২০২২   আপডেট: ১৮:১৫ ১২ জুন ২০২২

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন কঠোর করার দাবিতে আমেরিকার বিভিন্ন শহরে হাজার হাজার মানুষ বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে। বন্দুকধারীর নির্বিচার হত্যাকাণ্ডের দুটো ঘটনার পর দেশটিতে এই দাবি নতুন করে জোরদার হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এই বিক্ষোভের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন। আগ্নেয়াস্ত্র নিরাপত্তা আইন পাসে কংগ্রেসের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। তবে এই আহ্বান সত্ত্বেও অস্ত্র আইনে কোনো ধরনের পরিবর্তন রিপাবলিকানরা আটকে দিতে পারে বলেই মনে করা হচ্ছে।

টেক্সাসের উভালদে শহরের রব এলিমেন্টারি স্কুলে গত ২৪ মে নির্বিচার বন্দুক হামলার ঘটনায় ১৯ শিশুসহ ২১ জন নিহত হন। এর কয়েক দিন আগেই নিউইয়র্কের বাফেলোয় একটি সুপারমার্কেটে অপর এক বন্দুক হামলায় ১০ জন নিহত হন।

এরপরই যুক্তরাষ্ট্রে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইনের দাবি নতুন করে গতি পায়। আগ্নেয়াস্ত্র নিরাপত্তার দাবিতে আন্দোলনরত সংগঠন এমএফওএল প্রতিষ্ঠা করেন ২০১৮ সালে ফ্লোরিডার পার্কল্যান্ড বন্দুক হামলা থেকে বেঁচে যাওয়া লোকজন। পার্কল্যান্ডের একটি হাইস্কুলে ওই হামলায় ১৭ জন নিহত হন। শনিবার তারা জানিয়েছেন, আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইনের দাবিতে ওয়াশিংটন ডিসি, নিউইয়র্ক, লস অ্যাঞ্জেলেস, শিকাগোসহ দেশজুড়ে প্রায় ৪৫০টি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

সংগঠনটি বলছে, জনগণের প্রাণহানি চলতে থাকায় রাজনীতিকদের আর নিষ্ক্রিয় থাকতে দেবে না তারা। রাজনৈতিক নেতাদের নির্বিকার ভূমিকার কারণেই আমেরিকানরা খুন হচ্ছেন বলেও অভিযোগ করেছে এমএফওএল।

আরো পড়ুন>> সোনিয়া গান্ধী হাসপাতালে ভর্তি

এক বিবৃতিতে এমএফওএল পর্ষদের সদস্য ট্রেভন বোসলি বলেন, ‘যখন মানুষ অনবরত প্রাণ দিয়ে যাচ্ছে, এ অবস্থায় আমরা আপনাদের নিষ্ক্রিয় থাকার সুযোগ দেব না।’

ওয়াশিংটন ডিসির বিক্ষোভে বক্তব্য রাখেন পার্কল্যান্ড বন্দুক হামলা থেকে বেঁচে যাওয়া ডেভিড হগ। তিনি বলেন, ‘উভালদেতে শিশুদের হত্যার ঘটনায় আমাদের মধ্যে ক্ষোভ ও পরিবর্তনের দাবি ওঠা উচিত। অন্তহীন বিতর্ক আর নয়, এখনই উচিত পরিবর্তনের দাবি ওঠা।’

গার্নেল হুইটফিল্ডের ৮৬ বছর বয়সী মা ১৪ মে নিউইয়র্কের বাফেলোয় বর্ণবাদী বন্দুক হামলায় নিহত হন। উপস্থিত জনতাকে তিনি বলেন, ‘আমরা এখানে ন্যায়বিচারের দাবিতে এসেছি। যৌক্তিক অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন প্রণয়নের দাবি তুলতে যারা যথেষ্ট সাহসী, তাদের পাশে দাঁড়াতে আমরা এখানে এসেছি।’

এমএফওএলের অন্যান্য দাবির মধ্যে রয়েছে—অ্যাসল্ট আগ্নেয়াস্ত্র নিষিদ্ধ করা, বন্দুক কিনতে আগ্রহী ব্যক্তিদের অতীত বৃত্তান্ত যাচাই এবং অস্ত্রের মালিকদের নিবন্ধনের আওতায় আনতে জাতীয়ভাবে লাইসেন্স দেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ।

সূত্র: বিবিসি

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী