ইমরানের বিরুদ্ধে ‘রাষ্ট্রদ্রোহের’ বিচার চেয়ে গুনতে হল জরিমানা

ইমরানের বিরুদ্ধে ‘রাষ্ট্রদ্রোহের’ বিচার চেয়ে গুনতে হল জরিমানা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২২:২৭ ১২ এপ্রিল ২০২২  

ছবি: ইমরান খান

ছবি: ইমরান খান

পাকিস্তানের সদ্যবিদায়ী প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এবং তার দল পাকিস্তান তেহরিক-ই ইনসাফের অন্য শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে দাখিল করা রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন ইসলামাবাদ হাইকোর্ট। একই সঙ্গে এই পিটিশনকে ‘অগ্রহণযোগ্য’ আখ্যা দিয়ে আবেদনকারীকে এক লাখ রুপি জরিমানা করা হয়েছে।

সোমবার (১১ এপ্রিল) মামলার এই আবেদনটি খারিজ করা হয়।

সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১৯৯–এর অধীন পিটিশনটি করেন আইনজীবী ইকবাল হায়দার। হাই ট্রিজন (পানিশমেন্ট) অ্যাক্ট-১৯৭৩–এর অধীন ইমরান খান, পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মাহমুদ কোরেশি, পিটিআই মুখপাত্র ফাওয়াদ চৌধুরী, পিটিআই নেতা কাসিম খান সুরির পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূতের বিরুদ্ধে বিচারকাজ শুরুর আবেদন জানান তিনি। পাশাপাশি তাদের নাম ইসিএলের তালিকায় রাখারও আবেদন জানান এই আইনজীবী।

এ ছাড়া পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত আসাদ মজিদের পাঠানো কূটনৈতিক তারবার্তার বিষয়বস্তু তদন্তের আবেদন জানানো হয়। ইমরান খানের দাবি, ওই তারবার্তায় পাকিস্তানকে ‘হুমকি দিয়েছে’ যুক্তরাষ্ট্র। তাকে উৎখাতে জাতীয় পরিষদে বিরোধী জোটের আনা অনাস্থা প্রস্তাবের যোগসূত্র রয়েছে বলে অভিযোগ করে আসছেন ইমরান ও তাঁর দলের নেতারা।

ওই তারবার্তায় নাকি বলা হয়েছে, আসাদ মজিদের সঙ্গে বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়াবিষয়ক অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি ডোনাল্ড লু সতর্ক করে বলেছিলেন, ইমরান খান প্রধানমন্ত্রীর পদে বহাল থাকলে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

‘স্বাধীন পররাষ্ট্রনীতি’ অনুসরণ এবং ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর দিন মস্কো সফর করায় যুক্তরাষ্ট্র তার ওপর নাখোশ হয়েছে বলে দাবি করে আসছেন ইমরান খান। তবে বিষয়টি বরাবরই অস্বীকার করে গেছে যুক্তরাষ্ট্র।

ইসলামাবাদ হাইকোর্ট পিটিশনটি ‘অগ্রহণযোগ্য’ আখ্যা দিয়ে খারিজ করে দিয়েছেন। আদালত বলেন, কূটনীতিক তারবার্তাকে ‘বিতর্কিত’ করার চেষ্টা করেছেন আবেদনকারী। এ জন্য তাঁকে এক লাখ রুপি জরিমানা করা হয়েছে।

আদালতের আদেশের একটি কপি পেয়েছে ডন। এতে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রদ্রোহের মতো একটি কথাকে অবমূল্যায়ন করা হয়েছে। কোনো নাগরিক নিজেকে আরেকজনের চেয়ে বেশি দেশপ্রেমিক দাবি করতে পারেন না। একইভাবে অন্য কেউ রাষ্ট্রদ্রোহ করেছেন কোনো নাগরিকের তা বলার অধিকার নেই।

আদেশে বলা হয়, পিটিশনে ইমরান খানের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ আমলে নেওয়ার মতো নয়। একজন পাকিস্তান কূটনীতিকের পাঠানো তারবার্তাকে বিতর্কিত করা এবং বিচারের বিষয়ে পরিণত করা জনগণ এবং রাষ্ট্রের স্বার্থবিরোধী।

আদালত বলেন, প্রত্যেক নাগরিকের গুরুদায়িত্ব এটা নিশ্চিত করা যে স্পর্শকাতর জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়গুলো চাঞ্চল্য সৃষ্টিতে ব্যবহার করা যায় না, এগুলোকে রাজনৈতিক স্বার্থেও ব্যবহার করা যায় না। কূটনীতিক ও তাদের গোপনীয় প্রতিবেদন টেনে আনা এবং রাজনৈতিক বিতর্কে ব্যবহার কূটনীতি ও বৈদেশিক সম্পর্কের মতো পাকিস্তানের জাতীয় স্বার্থকে ক্ষুণ্ন করতে পারে।

আদেশে বলা হয়, দেশের পররাষ্ট্র–সম্পর্কিত বিষয়গুলো খুবই স্পর্শকাতর এবং তাই এগুলো আদালতে বিচারযোগ্য নয়, এটা মীমাংসিত আইন। পিটিশনের দাবিগুলো অস্পষ্ট এবং কূটনীতিক তারবার্তা বিচারের আওতায় আসতে পারে তার সমর্থনে বিশ্বাস্যযোগ্য নথি নেই।

পাকিস্তানের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদে অনাস্থা ভোটে হেরে ৯ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রীর পদ হারান ইমরান খান। সরকার পতনের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ষড়যন্ত্র রয়েছে বলে অভিযোগ ইমরান ও তাঁর দলের। শাহবাজ শরিফ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার কয়েক ঘণ্টা পর গতকাল সোমবার হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থের জন্য গণতান্ত্রিক পাকিস্তান গুরুত্বপূর্ণ।

সূত্র: এনডিটিভি

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী