মাইকে ঘোষণা দিয়ে ১১ ঘণ্টা সংঘর্ষ, থামাতে গিয়ে মাদরাসা শিক্ষক নিহত

মাইকে ঘোষণা দিয়ে ১১ ঘণ্টা সংঘর্ষ, থামাতে গিয়ে মাদরাসা শিক্ষক নিহত

সিলেট প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৮:০২ ৪ এপ্রিল ২০২২  

নিহত মাদরাসা শিক্ষক (বামে), ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ (ডানে)। ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

নিহত মাদরাসা শিক্ষক (বামে), ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ (ডানে)। ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

সিলেটের জৈন্তাপুরে জমির দখল নিতে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে প্রায় ১১ ঘণ্টা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে। এতে উভয়পক্ষের অন্তত ২০-২৫ জন আহত হয়েছেন। তাদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে মাওলানা সালেহ আহমদ নামে এক মাদরাসা শিক্ষক নিহত হয়েছেন।

সোমবার সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত ঐ উপজেলার হরিপুর বাজারে থেমে থেমে সংঘর্ষ চলে। এর আগে, রোববার রাত ১০টার দিকে মাইকে ঘোষণা দিয়ে সংঘর্ষ শুরু হয়।

নিহত সালেহ আহমদ উপজেলার হেমু ভাটেপাড়া গ্রামের সিফাত উল্লাহর ছেলে। তিনি সিলেট নগরের মেজরটিলা তাহফিজুল কোরআন মাদরাসায় শিক্ষকতা করতেন। সোমবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু হয়।

এদিকে পরিস্থিততি নিয়ন্ত্রণে আনতে রোববার রাত থেকেই ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়। সারারাত চেষ্টা চালিয়ে সোমবার সকাল ৮টায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নেয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এ ঘটনায় সিলেট-তামাবিল মহাসড়কে রাত থেকে প্রায় ১২ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ ছিল।

সংঘর্ষের খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন সিলেটের জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান, পুলিশ সুপার মো. ফরিদ উদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান। এ সময় তারা দুই পক্ষকে সমঝোতার আহ্বান জানান।

এর আগে, রোববার রাতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান রফিক আহমদ ও শ্যামপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান রশিদ আহমদের পক্ষের লোকজন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) মো. লুৎফর রহমান জানান, সংঘর্ষে এক মাদরাসা শিক্ষক নিহত হয়েছেন। এছাড়া উভয়পক্ষের অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছেন। পুলিশ সংঘর্ষস্থল থেকে বেশ কয়েকজনকে আটক করেছে। দুই চেয়ারম্যানের মধ্যে জমিতে মাটি ভরাট নিয়ে আগে থেকেই দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। এরই জেরে সংঘর্ষ হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর