মুখ থুবড়ে পড়েছে যশোর জেলা ছাত্রদলের কার্যক্রম

মুখ থুবড়ে পড়েছে যশোর জেলা ছাত্রদলের কার্যক্রম

যশোর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১০:৩৩ ২৫ মার্চ ২০২২   আপডেট: ১৫:১৮ ২৫ মার্চ ২০২২

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

যশোর জেলা ছাত্রদলের কার্যক্রম মুখ থুবড়ে পড়েছে। জেলা ছাত্রদলের ৩৯৯ সদস্যের কমিটি থাকলেও নেই কোনো কর্মসূচি। গত ৬ মাসে তাদের কোনো কর্মসূচি চোখে পড়েনি।

২০২১ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর আংশিক কমিটি গঠনের তিন বছরেরও বেশি সময় পর যশোর জেলা ছাত্রদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। ৩৯৯ সদস্যের এই পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল।

তবে এই কমিটির সদস্য সংখ্যা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঐ সময় অনেকে উপহাস করেন। অনেকে বলেন, ছাত্রদলের এখন কেউ কর্মী নন, সবাই নেতা।

জানা গেছে, ২০১৮ সালের ১৩ জুন রাজিদুর রহমান সাগরকে সভাপতি ও কামরুজ্জামান বাপ্পিকে সাধারণ সম্পাদক করে যশোর জেলা ছাত্রদলের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। তিন বছরেরও বেশি সময় পর যশোর জেলা ছাত্রদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে সহ-সভাপতি করা হয় ৩২ জনকে।

এছাড়া যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ৫০ জন, সহ-সাধারণ সম্পাদক ৫৪ জন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে ৪৫ জনকে। কমিটিতে স্থান পাওয়া বাকি নেতারা বিভিন্ন সম্পাদক পদে ও সাধারণ সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হন।

জেলা ছাত্রদলের একাধিক সাবেক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, এভাবে কোনো সাংগঠনিক কমিটি হতে পারে না। এই কমিটি দিয়ে আর যাই হোক সংগঠনকে শক্তিশালী করা যায় না। এর ফলে ৩৯৯ সদস্যের কমিটি থাকলেও কোনো কর্মসূচি দেখা যাচ্ছে না।

তারা বলেন, এ কমিটির নেতাদের অনেকে বিয়ে করে সন্তানের বাবা হয়েছেন। কেউ কেউ চাকরি কিংবা ব্যবসায় নেমেছেন। এসব কারণে মুখ থুবড়ে পড়েছে জেলা ছাত্রদলের কার্যক্রম।

বর্তমানে জেলা ছাত্রদলের অধিকাংশ নেতার ছাত্রত্ব নেই। জেলা ছাত্রদলের সভাপতি রাজিদুর রহমান সাগর বিবাহিত। তার দুইটি সন্তান রয়েছে। তিনি এখন মোটর পার্টস ব্যবসায়ী। সিনিয়র সহ-সভাপতি ওমর ফারুক তারেক বিবাহিত। তিনি নিজে ছাত্রদলের পদ থেকে অব্যাহতি নিয়েছেন বলে সূত্র জানিয়েছে। সহ-সভাপতি শামসুজ্জামান রিন্টু ও নাসির উদ্দিনের দলের সঙ্গে সম্পৃক্ততা নেই।

সূত্র আরো জানায়, সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান ব্যবসায়ী। সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সোহানুর রহমান শামিম ও আরিফুজ্জামান বিবাহিত। যুগ্ম সম্পাদক রবিউল ইসলাম টিপু আইনজীবী ফোরামে যোগদান করেছেন। সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদ কায়সার একটি কম্পিউটারের দোকানে কর্মরত। ফলে গত ৬ মাসে যশোরে ছাত্রদলের চোখে পড়ার মতো কোনো কর্মসূচি দেখা যায়নি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে/এইচএন