করোনায় মৃত্যুশূন্য দিনে বরিশালে বেড়েছে শনাক্ত

করোনায় মৃত্যুশূন্য দিনে বরিশালে বেড়েছে শনাক্ত

বরিশাল প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১০:০২ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

বরিশাল বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় ১১১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এই সময়ে কেউ মারা না গেলেও সুস্থ হয়েছেন ১০১ জন। বুধবারের তুলনায় শনাক্তের হার ৭ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৭ দশমিক ৫৯ শতাংশে।

শনিবার বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক ও শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালকের কার্যালয় থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক ডা. হুমায়ন শাহীন খান জানান, জেলাভিত্তিক তথ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় বরিশাল জেলায় সর্বোচ্চ শনাক্ত হয়েছে ৫৪ জন। এ পর্যন্ত জেলায় আক্রান্ত হয়েছেন ২০ হাজার ৩২৯ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৮ হাজার ৭১৯ জন। মোট মারা গেছেন ২৩২ জন।

পটুয়াখালীতে নতুন শনাক্ত হয়েছেন পাঁচজন। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৬ হাজার ৭৯৫ জন। ২৪ ঘণ্টায় কারও মৃত্যু না হলেও মোট মারা গেছে ১০৯ জন। সুস্থ হয়েছেন ৬ হাজার ২৩১ জন।

ভোলায় নতুন ২৫ জন শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৭ হাজার ৫৩৯ জন। ২৪ ঘণ্টায় কারও মৃত্যু না হলেও মোট মারা গেছেন ৯২ জন। সুস্থ হয়েছেন ৬ হাজার ৮৫৮ জন।

আরো পড়ুন: ভূঞাপুরে গ্রেফতার আতঙ্কে পুরুষশূন্য ৮ গ্রাম

পিরোজপুরে নতুন একজন শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৬ হাজার ৬৬ জন। ২৪ ঘণ্টায় কারও মৃত্যু না হলেও মোট মারা গেছেন ৮৩ জন। নতুন করে কেউ সুস্থ না হলেও মোট সুস্থ হয়েছেন ৫ হাজার ২৮০ জন।

বরগুনায় নতুন ১০ জন শনাক্ত নিয়ে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৪ হাজার ২৯১ জন। মোট মারা গেছেন ৯৯ জন। সুস্থ হয়েছেন ৩ হাজার ৮৬৫ জন।

ঝালকাঠিতে নতুন ১৬ জন শনাক্ত নিয়ে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৫ হাজার ২৬৮ জন। জেলায় মোট মারা গেছেন ৬৯ জন। সুস্থ হয়েছেন ৪ হাজার ৬৪৬ জন।

শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালকের তথ্য সংরক্ষক জাকারিয়া খান স্বপন জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ১৬৬ জনের নমুনা আরটি পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষা করানো হয়েছে। এরমধ্যে ৭৯ জন পজিটিভ ও ৮০ জন করোনা নেগেটিভ শনাক্ত হয়েছেন। শনাক্তের হার ৪০ দশমিক ৫৯ শতাংশ।

বরিশাল বিভাগের পটুয়াখালী জেলায় ২০২০ সালের ৯ মার্চ প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। সেই থেকে ২০২২ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি (শনিবার) সকাল ৮টা পর্যন্ত বিভাগের ছয় জেলায় মোট শনাক্ত হয়েছে ৫০ হাজার ২৮৮ জন। আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৬৮৪ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৪৫ হাজার ৫৯৯ জন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম