বয়স ১৯০ বছর, গিনেস বুকে নাম তুলল জোনাথন

বয়স ১৯০ বছর, গিনেস বুকে নাম তুলল জোনাথন

ফিচার ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:৩৫ ১৬ জানুয়ারি ২০২২  

জোনাথন (Jonathan)। ছবি : সংগৃহীত

জোনাথন (Jonathan)। ছবি : সংগৃহীত

১৮৮২ সাল, সিচেলিস তখন ব্রিটেনের নতুন উপনিবেশ। পূর্ব আফ্রিকার দেশটি থেকে তখন সেন্ট হেলেনা পাড়ি দিয়েছিল জোনাথন (Jonathan)। তারপর আটল্যান্টিক মহাসাগরে নানা ঝড় উঠেছে। সিচেলিসও ব্রিটিশ শাসন থেকে মুক্ত হয়ে স্বাধীন দেশ হয়ে উঠেছে। কিন্তু জোনাথন থেকে গিয়েছে সেন্ট হেলেনা দ্বীপেই। সম্প্রতি সেখানেই ধুমধাম করে পালন করা হল জোনাথনের ১৯০ বছর পূর্তির উৎসব।

হ্যাঁ, ১৯০ বছর। জোনাথন অবশ্য মানুষ নয়। সে একটি কচ্ছপ। তবে কচ্ছপের আয়ুও এত বেশি হয় না সাধারণত। সবচেয়ে বেশি বছর বেঁচে থাকা কচ্ছপ হিসাবে গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডেও জায়গা করে নিয়েছে সে। শুধু কচ্ছপের (Turtle) মধ্যেই নয়, কেলোনিয়ান গোত্রের কোনো প্রাণীই এর আগে এতদিন বাঁচেনি বলে জানিয়েছে গিনেস বুক (Guinness Book)।

অবশ্য জোনাথনের বয়স নির্ধারণ করাও খুব সহজ ছিল না। চিড়িয়াখানায় জন্ম না হলে তাদের জন্মদিনের হিসেব জানা যায় না। তাই এক্ষেত্রে গিনেস বুককে কিছুটা সন্দেহ নিয়েই আগাতে হয়েছে।

বিভিন্ন তথ্য থেকে জানা যায়, ১৮৮২ সালে জোনাথন যখন সেন্ট হেলেনা দ্বীপে পৌঁছায়, তখন সে প্রাপ্তবয়স্ক। ফলে তখন বয়স অন্তত ৫০ বছর ধরে নিলে ভুল হবে না। সেই হিসেবে এখন তার বয়স ১৯০ বছর। তবে আসলে তার চেয়ে কিছু বেশিই হওয়া উচিত, সে-কথাও স্বীকার করে নিয়েছেন গিনেস বুকের কর্তারা।

এর আগে সবচেয়ে বেশিদিন বেঁচে থাকার রেকর্ড পেয়েছিল টুই মালিয়া। অস্ট্রেলিয়ার কাছে টোংগা রাজ্যের রাজপরিবারের অধীনে ছিল এই কচ্ছপটি। গবেষকদের মতে, ১৯৬৫ সালে যখন তার মৃত্যু হয়, তখন বয়স হয়েছিল ১৮৮ বছর।

আটল্যান্টিক মহাসাগরের দক্ষিণে ব্রিটিশ দ্বীপ সেন্ট হেলেনার প্রধান আকর্ষণই জোনাথন। এখনও তাকে দেখতেই ভিড় জমায় পর্যটকরা। অবশ্য বয়সের সঙ্গে সঙ্গে তার শরীর ভাঙছে। এখন চোখে দেখতে পায় না কিছুই। চলাফেরাও করে ধীরে ধীরে। কিন্তু মানুষের সঙ্গ এখনও তাকে আনন্দ দেয়। মানুষের গলার স্বর শুনে বুঝতে পারে সে মানুষের কাছাকাছি আছে। আর খাওয়া দাওয়ার বিষয়েও জোনাথন বেশ রসিক। তরমুজ, আপেল, ন্যাসপাতি জাতীয় ফল খেতেই সে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসে। তার চেয়েও বেশি ভালোবাসে কলা খেতে। অবশ্য তার শ্বাসনালিতে ইতোমধ্যেই কফ জমে সমস্যা তৈরি করেছে। তাই কলা খাওয়ার বিষয়ে কর্তৃপক্ষের কড়া নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। সব মিলিয়ে এখনও বেশ আদর যত্নের মধ্যেই দিন কাটছে জোনাথনের। ১৯০ বছরের রেকর্ড আরো কতদিন টেনে নিয়ে যেতে পারে সে, আপাতত সেটাই দেখার।

ডেইলি বাংলাদেশ/কেবি