মাদারীপুরে বিরল প্রজাতির প্রাণী উদ্ধার 

মাদারীপুরে বিরল প্রজাতির প্রাণী উদ্ধার 

মাদারীপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:৪৯ ৯ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ১৬:৫৯ ৯ জানুয়ারি ২০২২

মাদারীপুরে বিরল প্রজাতির প্রাণী উদ্ধার  ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

মাদারীপুরে বিরল প্রজাতির প্রাণী উদ্ধার  ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

মাদারীপুরের ডাসার উপজেলার পশ্চিম বালিগ্রামে বিরল প্রজাতির একটি প্রাণী উদ্ধার করেছে স্থানীয়রা। এর আগে এ অঞ্চলে এমন কোনো প্রাণী দেখতে পাননি স্থানীয়রা। 

লম্বা লেজ, ডোরাকাটা ও চোকামুখ বিশিষ্ট প্রাণীটি দেখতে ভিড় করছেন শত শত মানুষ। বিরল প্রজাতির প্রাণীটির জীবন বাঁচাতে যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানিয়েছেন স্থানীয়রা। এরই মধ্যে বিভাগীয় বন কর্মকর্তাকে বিষয়টি অবহিত করেছে জেলা প্রশাসন। 

তবে ইন্টারনেট ঘেটে জানা গেছে প্রাণীটির নাম গন্ধগোকুল। উইকিপিডিয়ার তথ্য মোতাবেক গন্ধগোকুল বর্তমানে অরক্ষিত প্রাণী হিসেবে বিবেচিত। পুরনো গাছ, বন-জঙ্গল কমে যাওয়ায় দিন দিন এদের সংখ্যা কমে যাচ্ছে। 

লম্বা লেজ, ডোরাকাটা ও চোকামুখ বিশিষ্ট প্রাণী গন্ধগোকুল দেখতে ভিড় করছেন শত শত মানুষ।

আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘের (আইইউসিএন) বিবেচনায় পৃথিবীর বিপন্ন প্রাণীর তালিকায় উঠে এসেছে এই প্রাণীটি। আফ্রিকা, দক্ষিণ- পূর্ব এশিয়াসহ বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন প্রজাতির গন্ধগোকুলের বাস। 

বাংলাদেশের ২০১২ সালের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনের তফসিল-১ অনুযায়ী এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত। এরা মাঝারি আকারের স্থন্যপায়ী প্রাণী। নাকের আগা থেকে লেজের ডগা পর্যন্ত ৯২-১১২ সেন্টিমিটার, এর মধ্যে লেজই ৪৪-৫৩ সেন্টিমিটার। লেজের দৈর্ঘ্য ৪৮ সেন্টিমিটার পর্যন্ত হতে পারে। আকার ৫৩ সেন্টিমিটার। ওজন ২.৪-৫.০ কেজি। 

স্ত্রী-পুরুষ নির্বিশেষে গন্ধগ্রন্থি থাকে। গন্ধগোকুলের গাট্টাগোট্টা দেহটি স্থূল ও রুক্ষ বাদামি-ধূসর বা ধূসর-কালো লোমে আবৃত। মূলত ফলখেকো হলেও কীটপতঙ্গ, শামুক, ডিম-বাচ্চা-পাখি, ছোট প্রাণী, তাল-খেজুরের রসও খায়। অন্য খাদ্যের অভাবে মুরগি-কবুতর ও ফল চুরি করে। এরা ইঁদুর ও ফল-ফসলের ক্ষতিকর পোকামাকড় খেয়ে কৃষকের উপকার করে। 

লম্বা লেজ, ডোরাকাটা ও চোকামুখ বিশিষ্ট প্রাণী গন্ধগোকুল

গন্ধগোকুলের ধূসর রঙের এই প্রাণীটির অন্ধকারে অন্য প্রাণীর গায়ে গন্ধ শুঁকে চিনতে পারার অসাধারণ ক্ষমতা রয়েছে। 

জানা গেছে, গত শুক্রবার সন্ধ্যায় অদ্ভুত একটি প্রাণীকে একটি মুরগিকে খেতে দেখে স্থানীয় কয়েক যুবক। এ সময় মুরগিটিকে রক্ষা করতে তারা প্রাণিটির ওপর হামলা চালিয়ে প্রাণিটিকে আটক করে। পরবর্তীতে তারা বিভিন্ন ব্যক্তির কাছে যোগাযোগের মাধ্যমে প্রাণিটিকে চিহ্নিত করে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়ার দাবি জানান। 

গত দুইদিন যাবৎ অদ্ভুত প্রাণিকে বিভিন্ন খাবার খাওয়ানোর চেষ্টা করছেন স্থানীয় যুবকরা। 

স্থানীয় বাসিন্দা সুজন বলেন, শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে দেখি মুরগি খাওয়ার চেষ্টা করছে। পরে স্থানীয় আটক করে। আমরা বিভিন্ন কিছু খাওয়ানোর চেষ্টা করেছি কিন্তু কিছুই খাচ্ছে না। 

স্থানীয় বাসিন্দা ব্যাংকার নুরুল ইসলাম বলেন, এর আগে এমন বিরল প্রাণী দেখিনি। প্রাণীটিকে সংরক্ষণ করা হোক। 

মাদারীপুরের ডিসি ড. রহিমা খাতুন বলেন, বিরল প্রজাতির প্রাণিটিকে রক্ষার জন্য বিভাগীয় বন কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। তারা প্রাণীটি উদ্ধার করে বনে অবমুক্ত করবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে