পদ্মাসেতু দেখে ষড়যন্ত্রকারীরা এখন লজ্জা পাচ্ছে: তথ্যমন্ত্রী

পদ্মাসেতু দেখে ষড়যন্ত্রকারীরা এখন লজ্জা পাচ্ছে: তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:৫৬ ৩ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ১৯:৪৭ ৩ জানুয়ারি ২০২২

মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের নেতাদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ

মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের নেতাদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, সব ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতু নির্মাণ করা হয়েছে। যারা পদ্মাসেতু নিয়ে ষড়যন্ত্র করেছে, তারাই এখন পদ্মাসেতু দেখে লজ্জা পাচ্ছে।

সোমবার সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের নেতাদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে এসব কথা বলেন তিনি।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, পদ্মাসেতু নিয়ে বহু ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। খালেদা জিয়া ও বিএনপির নেতাকর্মীরা বহু ষড়যন্ত্র করেছেন। বিভিন্ন কথা বলেছেন। বিশ্ব ব্যাংক পদ্মাসেতুর অর্থায়ন বন্ধ করে দিয়েছিল। তারপর শেখ হাসিনা নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতু করেছেন। আজ পদ্মাসেতু দৃশ্যমান।

তিনি বলেন, বিএনপির নেত্রী খালেদা জিয়া বলেছিলেন পদ্মাসেতু জোড়াতালি দিয়ে করা হচ্ছে। যারা পদ্মাসেতুর নিয়ে ষড়যন্ত্র করেছে, মিথ্যা কথা বলেছে, অপপ্রচার করেছে এবং অর্থ বন্ধ করে দিয়েছিল তারা পদ্মাসেতু দেখে এখন লজ্জা পাচ্ছে।

প্রেস কাউন্সিল প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, প্রেস কাউন্সিল মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ায় নতুন করে প্রেস কাউন্সিল গঠন করা হয়েছে। উন্নত দেশে যেমন মত প্রকাশের স্বাধীনতা আছে, তেমনি বিভিন্ন নিয়মনীতি মেনে চলতে হয়। বিশ্বের বড় বড় পত্রিকাগুলোকে ভুল করলে জরিমানা দিতে ও ক্ষমা চাইতে হয়। এসব বিষয়ে প্রেস কাউন্সিল মীমাংসা করে থাকে। আমাদের দেশেও প্রেস কাউন্সিল গঠন করা হয়েছে মূলত গণমাধ্যমকে আরো শক্তিশালী করতে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মোজাফফর হোসেন পল্টু, প্রধানমন্ত্রীর সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, নবনির্বাচিত প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান সাবেক বিচারপতি নিজাম উদ্দীন, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি সাইফুল আলম, বিএফইউজের সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল প্রমুখ।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএইচ/এইচএন