গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য আইন করা হচ্ছে: তথ্যমন্ত্রী

গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য আইন করা হচ্ছে: তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:২২ ২ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ১৫:৫৯ ২ জানুয়ারি ২০২২

জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক মিলনমেলা ও দ্বিবার্ষিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ- ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক মিলনমেলা ও দ্বিবার্ষিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ- ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য আইন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেন, এরই মধ্যে গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য প্রণীত আইনে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক স্বাক্ষর করেছেন। 

রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবে চট্টগ্রাম বিভাগ সাংবাদিক ফোরাম, ঢাকা আয়োজিত মিলনমেলা ও দ্বিবার্ষিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার সাংবাদিকবান্ধব সরকার। সাংবাদিকদের যেসব দাবি ছিল তা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। সাংবাদিকদের সকল সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। 

তিনি আরো বলেন, সাংবাদিকদের সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো যদি হেলথ ইনস্যুরেন্স করতো তবে সাংবাদিকরা ৫ থেকে ১০ লাখ টাকা পেতো। এটি কোনো বড় বিষয় নয়, শুধুমাত্র উদ্যোগের অভাব। সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে তাগিদ দেওয়া প্রয়োজন।

ভুয়া সাংবাদিক বেড়ে গেছে উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, অনেকে সাংবাদিক নাম ও পত্রিকার স্টিকার ব্যবহার করে অপকর্ম করছে। এর ফলে মূলধারার সাংবাদিকদের সমস্যা হচ্ছে। এজন্য গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য আইন করা হচ্ছে। এরই মধ্যে আইনমন্ত্রী সেই আইনে স্বাক্ষর করেছেন। এরপরে সাংবাদিকদের আইনি সুবিধা দেওয়া হবে।

সাংবাদিকদের কল্যাণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনেক পদক্ষেপ নিয়েছেন উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, করোনার মধ্যে প্রধানমন্ত্রী সাংবাদিকদের কল্যাণে আর্থিক সাহায্য প্রদান করেছেন। সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট একটি বড় উদ্যোগ। এর আগে শুধুমাত্র কোনো সাংবাদিককে অসুস্থ অথবা চাকরি না থাকলে ট্রাস্ট থেকে সাহায্য দেওয়া হতো। কিন্তু এখন থেকে সাংবাদিকদের সন্তানরাও ট্রাস্ট থেকে শিক্ষাবৃত্তি পাবেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, জাতীয় প্রেসক্লাবের জায়গা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দিয়ে গেছেন। জাতীয় প্রেসক্লাবে ২১ তলা ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে শেখ হাসিনার সরকার। চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবও ১০ তলা করা হবে। এদেশে শেখ হাসিনাই শুধু সাংবাদিকদের কল্যাণ করে যাচ্ছেন। 

তিনি আরো বলেন, অবশ্যই সরকারের সমালোচনা হবে। কিন্তু সমালোচনার কারণে যাতে দুষ্কৃতকারীদের হাতে দেশ চলে না যায় সে বিষয়ে আমাদের সজাগ থাকতে হবে। ষড়যন্ত্রকারী ও দুষ্কৃতকারীরা সবসময় সুযোগ খোঁজে। সরকারের ভালো কাজ ষড়যন্ত্রকারী ও দুষ্কৃতকারীদের চোখে পড়ে না। ষড়যন্ত্রকারীরা কখনো দেশের ভালো চায় না।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার সম্পাদক ও জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি সাইফুল আলম, বিএফইউজের সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, শাহজাহান সরদার, জাতীয় প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ শাহেদ চৌধুরী, বিএফইউজের নির্বাহী পরিষদের সদস্য উম্মুল ওয়ারা সুইটি, চট্টগ্রাম বিভাগের সাংবাদিক ফোরামের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তফা কামাল ও মহাসচিব শাহিন উল ইসলাম চৌধুরীসহ চট্টগ্রাম বিভাগের সাংবাদিক নেতারা।

ডেইলি বাংলাদেশ/জাআ/এমকেএ/এইচএন