বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষাও হবে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে: শিক্ষামন্ত্রী

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষাও হবে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে: শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:০৫ ৩০ ডিসেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৫:০১ ৩০ ডিসেম্বর ২০২১

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি- ফাইল ফটো

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি- ফাইল ফটো

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, আগামী বছরের বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে নেয়া হবে। সেজন্য বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনকে বলা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল বিস্তারিত তুলে ধরতে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে শিক্ষামন্ত্রী এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে ২০২১ সালের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে আয়োজন করা হয়েছে। সে কারণে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষাও সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে আয়োজন করা হবে।

মন্ত্রী বলেন, আগামী বছরের বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা যাতে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে নেয়া হয় সেজন্য বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তারা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের সঙ্গে বৈঠক করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে।

আরো পড়ুন> মতিঝিল আইডিয়ালে শতভাগ পাস, জিপিএ-৫ পেল ১৯৬৫

এ বছর এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় জিপিএ-৫ এবং পাশের হার বৃদ্ধি পাওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এবার বিশেষ পরিস্থিতির কারণে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে তিনটি বিষয়ে পরীক্ষা নেয়া হয়েছে। বাকি বিষয়গুলোর মূল্যায়ন অষ্টম শ্রেণির জেএসসি পরীক্ষার ওপর করা হয়েছে। সে কারণে হয়তো দুই সূচকে পাসের হার বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে করে শিক্ষার মান বেড়ে গেছে তা বলা যাবে না।

তবে আগের চাইতে শিক্ষার মান কিছুটা বেড়েছে। এটি কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যমাত্রায় নিয়ে যেতে আমাদের প্রচেষ্টা চলছে বলেও জানান ডা. দীপু মনি।

চলতি বছরের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৯৩ দশমিক ৫৮ শতাংশ।

আরো পড়ুন> এসএসসির ফলাফলে উচ্ছ্বাসে মাতলো মতিঝিল আইডিয়ালের শিক্ষার্থীরা

গেল ১৪ নভেম্বর শুরু হয় এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। শেষ হয় ২৩ নভেম্বর। করোনাভাইরাসের কারণে এ বছর সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে এ পরীক্ষা নেয়া হয়।

এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় পরীক্ষার্থী ২২ লাখ ২৭ হাজার ১১৩ জন। গতবারের চেয়ে এবার পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১ লাখ ৭৯ হাজার ৩৩৪ জন বেড়েছে। গতবার পরীক্ষার্থী ছিল ২০ লাখ ৪৭ হাজার ৭৭৯ জন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমএস/এইচএন