রিফাত হত্যা মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তিখণ্ডন ১৬ সেপ্টেম্বর

রিফাত হত্যা মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তিখণ্ডন ১৬ সেপ্টেম্বর

বরগুনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:৩১ ৬ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৬:২০ ৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

বরগুনায় রিফাত হত্যা মামলায় রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামি পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তি খণ্ডনের জন্য ১৬ সেপ্টেম্বর নির্ধারণ করেছে আদালত। সাক্ষী থেকে আসামি হওয়া নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের মধ্য দিয়ে প্রাপ্ত বয়স্ক আসামিদের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়েছে। 

রোববার সকাল ১০টা আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির উপস্থিতিতে তার পক্ষের আইনজীবীরা বরগুনা জেলা দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামানের আদালতে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন। এ মামলায় ৭৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ ও আসামিদের পক্ষে বিপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়েছে। 

মিন্নির আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম বলেন, বিজ্ঞ অঅদালতের কাছে আমরা মিন্নির পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেছি। আদালতের বিজ্ঞ বিচারক যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তি খণ্ডনের জন্য ১৬ সেপ্টেম্বর তারিখ নির্ধারণ করেছেন। 

তিনি আরো বলেন, এ মামলায় সকল বিচারিক কার্যক্রম শেষ হলে মিন্নির জামিনের বিষয়ে সিদ্বান্ত নেয়া হবে। মামলা বিচারাধীন থাকাকালীন সময় পর্যন্ত তিনি উচ্চ আদালতের নির্দেশে জামিনে থাকবেন। 

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ভুবন চন্দ্র হাওলাদার বলেন, রিফাত হত্যা মামলায় প্রাপ্ত বয়স্ক ১০ আসামির যুক্তিতর্ক শেষ হয়েছে। এর আগে এই মামলায় ৭৬জন সাক্ষী তাদের সাক্ষ্য প্রদান করেছেন। রোববার মিন্নির যুক্তিতর্কের মাধ্যমে যুক্তিতর্ক শেষ হলেও তাদের যুক্তি খণ্ডনের জন্য আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর দিন নির্ধারণ করেছে আদালত। আমরা আমাদের পক্ষ থেকে আসামি পক্ষ যেসব যুক্তিতর্ক ও হাইকোর্টের নির্দেশনা তুলে ধরছেন সেগুলো আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর খণ্ডন করবো।

২০১৯ সালের ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে নয়ন ও তার সহযোগী সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে রিফাত শরীফকে গুরুতর আহত করে। এরপর বীরদর্পে অস্ত্র উঁচিয়ে এলাকা ত্যাগ করে তারা। গুরুতর আহত রিফাত বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ওই দিনই মারা যান।

গত ১ সেপ্টেম্বর রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী মিন্নিসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দুই ভাগে বিভক্ত অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দেয় পুলিশ। একই সঙ্গে রিফাত হত্যা মামলার এক নম্বর আসামি নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ায় তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

গত ১ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালত। অন্যদিকে গত ৮ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন বরগুনার শিশু আদালত।

এ মামলার চার্জশিটভুক্ত প্রাপ্তবয়স্ক আসামি মো. মুসা এখনো পলাতক রয়েছেন। এছাড়া নিহত রিফাতের স্ত্রী মিন্নিসহ অপ্রাপ্তবয়স্ক আট আসামি উচ্চ আদালত এবং বরগুনার শিশু আদালতের আদেশে জামিনে রয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ