ক্যাশ রিজার্ভ রেশিও কেন গুরুত্বপূর্ণ?

ক্যাশ রিজার্ভ রেশিও কেন গুরুত্বপূর্ণ?

রিয়াজুল হক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:৫৩ ৯ ডিসেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৫:০৩ ৯ ডিসেম্বর ২০২১

অফিস, আদালত পুরোদমে চলছে। মনজুরুল হক একটি ব্যাংকে কর্মরত আছেন। অত্যন্ত দক্ষ এবং পরিশ্রমী ব্যাংকার। পেশাগত কাজের বাইরেও ব্যাংকিং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিস্তর পড়ালেখা করে থাকেন। রাতের খাবার শেষে ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের খেলা দেখছিলেন। হঠাৎ ছোট ভাই জহিরের রুমে প্রবেশ।

জহিরঃ ভাইয়া সিআরআর (CRR) কি জিনিস?
মনজুরুলঃ সাধারণ মানুষজন ব্যাংকে টাকা জমে রাখে, জানিস?

জহিরঃ জানবো না কেন? তুমি কি আমাকে ছোট ভাবো? আসল কথায় আসো।
মনজুরুলঃ কেউ হয়ত অল্প সময়ের জন্য ব্যাংকে টাকা জমা রাখে। যেকোনো সময় টাকা তুলে নিতে পারে। সময়ের ভিত্তিতে ব্যাংকের এই দায়কে চলতি দায় বলে। আবার কোনো গ্রাহক নির্দিষ্ট সময়ের জন্য টাকা জমা রাখে। নির্দিষ্ট সময় পর গ্রাহক ব্যাংক থেকে টাকা তুলে নেয়। ব্যাংকের এই দায়কে মেয়াদী দায় বলে। আবার গ্রাহক ব্যাংকে টাকা জমা রাখার কারণে ব্যাংক থেকে সুদ পেয়ে থাকে। অর্থাৎ ব্যাংককে সুদ প্রদান করতে হয়। এটাও ব্যাংকের দায়।

জহিরঃ দায় বলছো কেন?  
মনজুরুলঃ গ্রাহক চাইলেই তো তার টাকা ব্যাংক থেকে নিতে পারে। এজন্যই ব্যাংকের দায় বলছি। 

জহিরঃ হুম, বুঝলাম। 
মনজুরুলঃ একটি ব্যাংকের যে পরিমাণ মেয়াদি দায় এবং তলবী দায় থাকে, সেই দায়ের নূন্যতম ৪ শতাংশ নগদ টাকা বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা রাখতে হয়, এটাকেই ক্যাশ রিজার্ভ রেশিও (সিআরআর) বলে।

জহিরঃ বাংলাদেশ ব্যাংকে কি নগদ টাকাই জমা রাখতে হয়?
মনজুরুলঃ হুম, নগদ টাকা জমা দিতে হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকে প্রতিটা ব্যাংকের হিসাব খোলা আছে। 

জহিরঃ আচ্ছা এই সিআরআর রেট কি কখনো পরিবর্তন হয়? 
মনজুরুলঃ পরিবর্তন হবে না কেন? আগে সিআরআর (CRR) ৫% ছিল। কিন্তু করোনার সময় দেশের অর্থনীতিতে যেন ক্ষতিকর কোন প্রভাব না পড়ে এবং মুদ্রাবাজারে নগদ টাকার প্রবাহ যেন ঠিক থাকে, সে কারণে গত বছর অর্থাৎ ২০২০ সালের এপ্রিল মাসে সিআরআর ৪% করা হয়েছে।

জহিরঃ ‘মুদ্রাবাজারে নগদ টাকার প্রবাহ’ বিষয়টা একটু বুঝিয়ে বলো?
মনজুরুলঃ মন কর, আমার ব্যাংকের মেয়াদি দায় এবং তলবী দায়ের পরিমাণ ২০০ টাকা। এর ওপর ৫% সিআরআর জমা রাখতে হলে ১০ টাকা বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা রাখতে হবে। এখন যদি সিআরআর ৩% করা হয়, তাহলে আমাকে ৬ টাকা জমা রাখতে হবে। সিআরআর রেট কমার কারণে আমার ব্যাংকের কাছে (১০-৬) বা ৪ টাকা বেশি থাকবে। এই ৪ টাকা আমি বাজারে বেশি বিনিয়োগ করতে পারব। অর্থাৎ মুদ্রা বাজারে নগদ টাকা বেশি থাকবে। আবার সিআরআর যদি বাড়িয়ে দেওয়া হয়, তাহলে মুদ্রা বাজারে নগদ টাকা কমে যাবে।

জহিরঃ অনেক কঠিন কাজ।
মনজুরুলঃ কঠিন তো অবশ্যই। সিআরআর রেট নির্ধারণের ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় ব্যাংক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। অনেক উপাদান বিশ্লেষণ করে যখন বাংলাদেশ ব্যাংক সিআরআর রেট পরিবর্তন আবশ্যক মনে করে, তখনই পরিবর্তন করে থাকে। 

জহিরঃ সিআরআর এর টাকা বাংলাদেশ ব্যাংকে না রাখলে কি কোনো ক্ষতি হতো?
মনজুরুলঃ সিআরআর আমানতকারীদের জন্য রক্ষাকবচও বলতে পারিস। আমানতকারীকে ঝুঁকিমুক্ত রাখার একটা ব্যবস্থা। 

জহিরঃ ব্যাংক যদি বাংলাদেশ ব্যাংকে সিআরআর জমা রাখতে ব্যর্থ হয়, তখন কি হবে?
মনজুরুলঃ বাংলাদেশ ব্যাংক জরিমানা করবে।

জহিরঃ আচ্ছা, সিআরআর এর পূর্ণরূপ আরেকবার একটু বলবা?
মনজুরুলঃ সারারাত রামায়ণ পড়ে সকালে উঠে জিঙ্গেস করিস, সীতা কার বাপ? সিআরআর পূর্ণরূপ হচ্ছে ক্যাশ রিজার্ভ রেশিও। 

জহিরঃ আচ্ছা, গেলাম। তোমার দল তো জিতে যাচ্ছে? 
মনজুরুলঃ যা, তোর রুমে যা।

লেখকঃ অর্থনৈতিক বিশ্লেষক এবং যুগ্ম পরিচালক, বাংলাদেশ ব্যাংক

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডআর