আমরা অপমানের প্রতিশোধ নিয়েছি: সেতুমন্ত্রী

আমরা অপমানের প্রতিশোধ নিয়েছি: সেতুমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৩:০২ ২৫ জুন ২০২২   আপডেট: ১৯:০৭ ২৫ জুন ২০২২

পদ্মাসেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের- ছবি: সংগৃহীত

পদ্মাসেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের- ছবি: সংগৃহীত

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, পদ্মাসেতু আমাদের সক্ষমতার প্রতীক, তার চেয়ে বড় সত্য আমরা আমাদের অপমানের প্রতিশোধ নিয়েছি।

সেই সঙ্গে তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর বীর কন্যা শেখ হাসিনা, আপনাকে অভিবাদন। আপনাকে স্যালুট করি। গোটা জাতি আজ আপনাকে স্যালুট করে। সারাবিশ্বে আজ আপনি প্রশংসিত।

শনিবার সকালে পদ্মাসেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আপনি (প্রধানমন্ত্রী) প্রমাণ করেছেন, ইয়েস, উই ক্যান। আমরাও পারি। নিজের টাকায় করব। প্রমাণ করেছেন নিজের টাকায় পদ্মাসেতু নির্মাণ করেছেন। মাথা নত করেননি বঙ্গবন্ধুকন্যা। কী দুঃসময়, কী চ্যালেঞ্জ, চক্রান্ত, দেশে-বিদেশে। সবকিছুকে অতিক্রম করে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা প্রমাণ করেছেন আমরা বীরের জাতি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা, আমি মনে করি (পদ্মাসেতু) সক্ষমতার প্রতীক। আমাদের সক্ষমতার প্রতীক, সেটা সত্য। তার চেয়েও বড় সত্য আমরা আমাদের অপমানের প্রতিশোধ নিয়েছি।

সেতুমন্ত্রী বলেন, আজ বারবার মনে পড়ে, পদ্মা পাড়ে ভাঙন, মাওয়ায় ভাঙন, লৌহজংয়ে ভাঙন, জাজিরায় ভাঙন, শিবচরে ভাঙন - ভাঙনের খেলায়  পদ্মা পাড়ে কাজ করাটাই ছিল অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিং। প্রধানমন্ত্রী না থাকলে আমরা এ সংকট, এত প্রতিবন্ধকতা প্রতিহত করতে পারতাম না।

তিনি আরো বলেন, আমি কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করি (তাদেরকে) যারা এ পদ্মাসেতুর জন্য বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার মুখের দিকে চেয়ে পদ্মার দুই পাড়ে তাদের পৈতৃক ও ফসলি জমি ত্যাগ-উৎসর্গ করে দিয়েছেন। আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে সেতুমন্ত্রী বলেন, আপনার নাম আপনি পদ্মাসেতুর সঙ্গে যুক্ত করলেন না, কিন্তু, এটাও বলি, আমরা জানি, কাগজে লিখা নাম ছিঁড়ে যাবে, ব্যানারে লিখা নাম মুছে যাবে, পাথরে লিখা নাম ক্ষয়ে যাবে, হৃদয়ে লিখা নাম রয়ে যাবে। আপনি হৃদয়ে নাম লিখেছেন। বঙ্গবন্ধু যেমন করে লিখিয়েছেন। যতদিন পদ্মাসেতু থাকবে, ততদিন আপনার নামটি সগৌরবে, অহংকারের সঙ্গে উচ্চারিত হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআরকে