ক্রয় সংক্রান্ত কমিটির ১২ প্রস্তাব অনুমোদন

ক্রয় সংক্রান্ত কমিটির ১২ প্রস্তাব অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২২:০৭ ২ ডিসেম্বর ২০২০   আপডেট: ২২:০৮ ২ ডিসেম্বর ২০২০

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

সরকারের ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি (সিসিজিপি) দু’টি পৃথক প্রস্তাবনাসহ মোট ১২টি প্রস্তাব অনুমোদন করেছে। এর মধ্যে ৬ লাখ ২৫ হাজার মেট্রিক টন সার ক্রয়ের একটি আলাদা ক্রয় প্রস্তাব রয়েছে।

বুধবার আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের সভাপতিত্বে অনলাইনে অনুষ্ঠিত চলতি বছরের সিসিজিপি’র ৩৩তম সভায় এ অনুমোদন দেয়া হয়।

সভা শেষে অনলাইনে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিসভা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড. আবু সালেহ মোস্তফা কামাল বলেন, সভায় রাষ্ট্রীয় পর্যায়ের চুক্তির সঙ্গে সঙ্গতি রেখে মা’এডেন, সৌদি আরব এবং বিএডিসির মধ্যে প্রায় ২ হাজার ৯৭ কোটি ৯৮ লাখ টাকা মূল্যের ৬ লাখ মেট্রিক টন ডিএপি সার ক্রয়ের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

সভায় চলতি অর্থবছরের জন্য সরকারী পর্যায়ের চুক্তি অনুযায়ী সপ্তম কিস্তির ৫৪ কোটি ৬৯ লাখ টাকা মূল্যের ২৫ হাজার মেট্রিক টন ইউরিয়া সার কাতার কেমিকেল অ্যান্ড প্যাট্রোকেমিক্যাল মার্কেটিং অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (মুনতাজাত), কিউপিজেএসসি কাতার থেকে ক্রয় করার প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

সালেহ জানান, সভায় আন্তর্জাতিক কোটেশন অনুযায়ী ভারতের পশ্চিম বাংলার বীরভূমের মেসার্স পিকে এগ্রিলিংক প্রাইভেট লিমিটেডের কাছ থেকে প্রায় ১৭৬ কোটি ৩৮ লাখ টাকা মূল্যেও ৫০ হাজার মেট্রিকটন নন বাসমতি চাল ক্রয়ের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। প্রতি কেজি চালের দাম ৩৫ টাকা ২৭ পয়সা এবং প্রতি টন চালের দাম হবে ৪১৬ ডলার।

সভায় ন্যাশনাল ডেভলপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড, তাহের ব্রাদার্স লিমিটেড ও হাসান টেকনো বিল্ডার্স লিমিটেডের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে আনোয়ারা উপজেলার ফোর লেন বিশিষ্ট সংযোগ সড়কসহ কর্ণফুলী ট্যানেল সংযোগ সড়কের উন্নয়ন প্রকল্পে ডব্লিউপি-১ প্যাকেজের আওতায় কাজ করতে ২৬৬ কোটি ১৫ লাখ টাকার একটি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

এছাড়াও সভায় ৬৪ কোটি ১২ লাখ টাকা ব্যয়ে সর্বনিম্ন দরদাতা দেশ উন্নয়ন লিমিটেড এবং মেসার্স হক এন্টারপ্রাইজ লিমিটেডকে বাংলাদেশের পুলিশের জন্য দেশের বিভিন্ন অংশে নয়টি আবাসিক ভবন নির্মাণের জন্য ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদিত হয়েছে।

সভায় টেকনো ড্রাগ লিমিটেড এবং রেনেটা লিমিটেডের কাছ থেকে প্রায় ২৭২ কোটি ৫০ লাখ টাকা মূল্যের ৫ম কিস্তির ৫৪ দশমিক ৫০ মিলিয়ন সাইকেল ওরাল স্যালাইন ক্রয়ের আরো একটি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদিত হয়েছে। এছাড়াও বেলজিয়াম ভিত্তিক কোম্পানি জান ডি নাল পায়রা বন্দরের রবনাবাদ চ্যানেলের খননকাজ ও জরুরি রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ৪০৮ কোটি ৮৭ লাখ টাকার আরো একটি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

একই সঙ্গে সভায় জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ থেকে পাঠানো চারটি প্রস্তাব এবং বিদ্যুৎ বিভাগের একটি প্রস্তাবও অনুমোদিত হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএইচ