ঈদের আগেই ওজন কমানোর কিছু অদ্ভুত কৌশল

ঈদের আগেই ওজন কমানোর কিছু অদ্ভুত কৌশল

লাইফস্টাইল ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১১:৪২ ৬ মে ২০২১  

ওজন কমানো। ছবি: সংগৃহীত

ওজন কমানো। ছবি: সংগৃহীত

দেখতে দেখতেই রমজান শেষ হয়ে যাচ্ছে। আর কিছুদিন পরেই পবিত্র ঈদুল আজহা। দিনটিতে সব মুসলিমদের মনেই আনন্দের সীমা থাকে না। ঈদের দিনটিকে ঘিরে আগে থেকেই অনেকেই অনেককিছু পরিকল্পনা করে থাকেন। সেদিন কোন পোশাক পরবেন, ঘরে কি কি খাবারের আয়োজন করবেন, কীভাবে ঘর সাজাবেন, কীভাবে নিজে সাজাবেন ইত্যাদি অনেককিছু।

তবে সবথেকে জরুরি হচ্ছে এই দিনে নিজেকে ফিট দেখানো। রোজায় অনেকেই অনিয়মিত খাবারের কারণে নিজের ওজন বাড়িয়ে ফেলেন। যার প্রভাব পড়ে ঈদের দিন। সেদিন এই বাড়তি মেদের জন্য পছন্দের পোশাকটি পরা কঠিন হয়ে পড়ে। তাছাড়া এই বাড়তি মেদ আপনার সৌন্দর্যও নষ্ট করে দেয়। তাই ঈদের আগেই শরীরের বাড়তি মেদ কমানো জরুরি।

বর্তমানে অনেকেই ওজন কমানোর জন্য ভিন্ন কিছু ডায়েট অনুসরণ করেন। যা ওজন কমাতে সহায়তা করলেও সার্বিক স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়।

পুষ্টি-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে ওজন কমাতে সহায়ক এমন অদ্ভুত কয়েকটি উপায় সম্পর্কে জানানো হলো-  

আয়নার সামনে বসে খাওয়া

আয়নার সামনে বসে খাওয়ার ধারণাটা বেশ অদ্ভুত। এর মূল কারণ হলো- আয়নার সামনে বসে খেলে নিজের খাওয়ার পরিমাণ ও ধরন খেয়াল করা যায়। ফলে ক্যালরি গ্রহণের বিষয়ে সচেতন থাকা যায়। এতে ওজন বাড়ার ঝুঁকি কমে যায়।  

গাঢ় রঙের পাত্রে খাওয়া

বিশেষ করে গাঢ় নীল রঙের পাত্রে খেলে নাকি খাবার কম গ্রহণ করা হয়। কারণ সাদা রঙের চাইতে গাঢ় রঙের পাত্রে খাবারের পরিমাণ বেশি দেখায়। ফলে কম খাবার নিলেও দেখতে বেশি লাগে।

খাদ্যাভ্যাসে ‘বেবি ফুড’

এই ধরনের খাদ্যাভ্যাসে যাওয়ার অন্যতম কারণ হলো ‘বেবি ফুড’য়ে ক্যালরি কম থাকে। অনেকে প্রতিবেলার খাবার বা নাস্তা হিসেবে শিশুর জন্য নির্ধারিত খাবারকে বেছে নেন। তবে এই ধরনের ‘ডায়েট’ মেনে চলতে গেলে পরিমাণে অনেক বেশি খাবার খেতে হয়।

জুস

‘জুস ডায়েট’ করলে তাতে শক্ত খাবার থাকেনা এবং এটা শাক সবজি ও ফল থেকে গৃহিত হয় তাই ক্যালরি গ্রহণের পরিমাণ সীমিত থাকে। ক্যালরি কম গ্রহণ করার ফলে শরীরের ওজন হ্রাস পায় ঠিকই তবে দীর্ঘস্থায়ী নয়। কারণ ক্যালরি ছাড়া বেঁচে থাকা সম্ভব না।   

কাঁচা খাবার খাওয়া

তাজা উদ্ভিজ্জ খাবার খাওয়াকে ‘র ফুড ডায়েট’ বলা হয়। যেসব খাবার রান্না করা নয় বা ৪৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি তাপমাত্রার গরম করা হয় না সেসব খাবার এই ডায়েটের অন্তর্গত। কাঁচা খাবার যতটা সম্ভব ভেষজ হওয়া উচিত।

এসব অদ্ভুত ধারা মেনে চলতে গিয়ে অনেকেই ভুলে যান যে, এই প্রক্রিয়া দীর্ঘস্থায়ী ফলাফল দেয় না। এছাড়া এসব পদ্ধতি নিয়মিত মেনে চললে শরীর দুর্বল হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ার সম্ভাবনাও বাড়ে। তাই সতর্ক থাকুন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এএ