তুরাগের ঝাউবনে অজ্ঞাত সেই লাশটির রহস্য উদঘাটন

তুরাগের ঝাউবনে অজ্ঞাত সেই লাশটির রহস্য উদঘাটন

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:৩১ ৫ ডিসেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৬:২০ ৫ ডিসেম্বর ২০২১

গ্রেফতার গৃহকর্তা সৈয়দ জসীমুল হক ও গৃহকর্ত্রী সৈয়দা সামিনা হাসান

গ্রেফতার গৃহকর্তা সৈয়দ জসীমুল হক ও গৃহকর্ত্রী সৈয়দা সামিনা হাসান

তিন দিন আগে রাজধানীর তুরাগের দিয়াবাড়ির ঝাউবন এলাকা থেকে অজ্ঞাতনামা এক নারীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

পিবিআই বলছে, ঐ নারীর নাম পারভীন ওরফে ফেন্সি আরা (৩০)। তিনি গুলশানের নিকেতনে একটি বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করতেন। গৃহকর্তার সঙ্গে পরকিয়া ও অনৈতিক সম্পর্ক আছে, এমন সন্দেহে তাকে হত্যা করেন গৃহকর্ত্রী। পরে তার লাশ গুম করতে তুরাগের ঝাউবন এলাকায় ফেলা হয়।

পারভীন হত্যার ঘটনায় নিকেতন থেকে গতকাল গৃহকর্তা সৈয়দ জসীমুল হক (৬৩) ও গৃহকর্ত্রী সৈয়দা সামিনা হাসানকে (৬০) গ্রেফতার করেছে পিবিআইয়ের ঢাকা মেট্রো উত্তর। তারা বলছে, আসামিরা পারভীনকে হত্যা ও তার লাশ তুরাগের ঝাউবন এলাকায় ফেলার কথা স্বীকার করেছেন।

রোববার দুপুরে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে পিবিআই ঢাকা মেট্রো উত্তর কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে পিবিআইয়ের বিশেষ পুলিশ সুপার মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় তারা পারভীনের নাম-পরিচয় জানতে পারেন। তার বাড়ি দিনাজপুরের চিরিরবন্দর আলোকডিহি সরকার পাড়া এলাকায়। তার বাবার নাম রমজান আলী। স্বামীর নাম মোমিনুল হক। ছয় বছর আগে জীবিকার সন্ধানে স্বামীর সঙ্গে ঢাকায় আসেন পারভীন। স্বামী রিকশা চালানো শুরু করেন। আর পারভীন গৃহকর্মীর কাজ নেন। পারভীনকে মাসে সাত হাজার টাকা করে পারিশ্রমিক দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু দেওয়া হতো মাত্র এক হাজার টাকা করে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলম জানান, গৃহকর্তা জসীমুলের সঙ্গে পারভীনের সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক আছে, এমন সন্দেহ করতেন গৃহকর্ত্রী সামিনা হাসান। এ সন্দেহের জেরে ১ ডিসেম্বর সকালে পারভীনকে লাঠি দিয়ে বেদম মারধর করেন সামিনা হাসান। পারভীন জ্ঞান হারালে তার বুকে জোরে চাপ দেওয়া হয়। এতে বুকের হাড় ভেঙে পারভীনের মৃত্যু হয়। হত্যার ঘটনা ধামাচাপা দিতে গাড়িচালক রমজান আলীর সহায়তায় তুরাগের দিয়াবাড়ির ঝাউবনে পারভীনের লাশ ফেলে দেওয়া হয়।

পিবিআই জানায়, পারভীনের স্বামী মোমিনুল ঢাকায় রিকশা চালান। পারভীন ঐ বাসায় কাজ নেয়ার পর তার সঙ্গে মোমিনুলকে দেখা করতে দেওয়া হতো না। এ নিয়ে তিনি গুলশান থানায় গত অক্টোবরে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছিলেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমএস