আইনজীবীর পাশে দাঁড়িয়ে লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন রাকিব

আইনজীবীর পাশে দাঁড়িয়ে লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন রাকিব

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৮:৩১ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ক্রিকেটার নাসির হোসেন ও সৌদিয়া এয়ারলাইন্সের কেবিন ক্রু তামিমা সুলতানা তাম্মির বিয়ে বৈধ উপায়ে হয়নি। তামিমা ও রাকিব হাসানের বিবাহবিচ্ছেদ সংক্রান্ত নথি জালিয়াতির মাধ্যমে তৈরি করা হয়েছে।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের প্রতিবেদনে (পিবিআই) এসব বিষয় উঠে এসেছে। বলা হয়েছে, নাসির তামিমার সঙ্গে ‘অবৈধ বৈবাহিক সম্পর্ক’ স্থাপন করেছেন।

রাকিবের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান গণমাধ্যমকে বলেন, তামিমা যদিও দাবি করেন যে রাকিবকে ডিভোর্স দিয়েছেন, কিন্তু প্রকৃতপক্ষে তিনি কোনো ডিভোর্সের কাগজ সঠিক আইনি প্রক্রিয়া মেনে রাকিবকে দিতে পারেননি। তিনি এখনও রাকিব হাসানের বিবাহিতা স্ত্রী। এ বিষয়টি নিয়ে কোর্টে মামলা করার পর কোর্ট বিষয়টি পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ প্রদান করেন। পিবিআই ডিভোর্সের বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করে।

আইনজীবী যখন সাংবাদিকদের সামনে কথা বলছিলেন তখন পাশেই দাঁড়িয়ে ছিলেন রাকিব। তিনি বলেন, যে অভিযোগটি আমি নিয়ে এসেছিলাম সেটি আবারও সত্য হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হলো। পিবিআই এই সত্যটাকে সামনে নিয়ে এসেছে। এজন্য আমি তাদেরকে ধন্যবাদ জানাই।

তামিমার স্বামী রাকিব হাসান বলেন, নাসির এবং আমার স্ত্রী তামিমা অবৈধভাবে বিয়ে করেছে। তাই এখন আমি অবশ্যই তামিমাকে আমার ঘরে ফেরত নেবো। এরপর সিদ্ধান্ত নেবো তার সঙ্গে সংসার করবো, নাকি তালাক দিবো। তাছাড়া তামিমা যদি সংসার করতে চায়, সে বিষয়টিও আমি বিবেচনায় নিবো। এ বিষয়ে আমি আমার আইনজীবীর সঙ্গে পরামর্শ করবো।

অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান জানান, ২০১৬ সাল থেকে আজকের দিন পর্যন্ত তদন্তে নিয়ে আসে পিবিআই। সেই সময় থেকে তারা (তামিমা ও রাকিব) স্বামী-স্ত্রীর পরিচয়ে কোন হোটেলে ছিলেন, কোথায় কোথায় গেছেন সেই সকল বিষয় তদন্তে উঠে আসে। সেই সাথে পিবিআই প্রতিটি হোটেলের সিসিটিভি ফুটেজও সংগ্রহ করে অসংখ্য তথ্য প্রমাণ আজ কোর্টে দাখিল করেছেন। ওনি যে রাকিবের স্ত্রী তাই নন, নাসিরের সঙ্গে তামিমার বিয়েটা সম্পূর্ন অবৈধ।

নাসির ও তামিমা যে কাগজ দেখিয়েছেন এবং ডাক বিভাগের যে স্মারক দেখিয়েছেন সেগুলো জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে করেছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। এ বিষয়টি পিবিআইয়ের তদন্তে উঠে এসেছে এবং ডাক বিভাগও জানিয়েছে এই স্মারক নাম্বারে কোন ধরনের লেটার সঠিক আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে রাকিব হাসানকে প্রদান করা হয়নি।

চলতি বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারিতে ভালোবাসা দিবসে বিয়ে করেন ক্রিকেটার নাসির হোসেন ও তামিমা তাম্মী। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি হলুদ সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হয়। ২০ ফেব্রুয়ারি তাদের বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়।

এমন পরিস্থিতিতে অভিযোগ উঠে স্বামী রাকিবকে তালাক না দিয়েই ক্রিকেটার নাসিরের সঙ্গে বিয়ে পিড়িতে বসেছেন তামিমা। যেটিকে কেন্দ্র করে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি আদালতে মামলা দায়ের করেন ব্যবসায়ী রাকিব হাসান। পরে মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দেন আদালত।

রাকিব আরও বলেন, আমার দায়ের করা মামলায় যেহেতু আদালতে চার্জশিট জমা হয়েছে, সেহেতু বিচারিক কার্যক্রমের মধ্যে দিয়েই আমি এমনটা চাইবো। তাই তামিমা, নাসির এবং তামিমার মাকে বিচারের মুখোমুখি করা হোক -এমনটাই আমার চাওয়া।

উল্লেখ্য, সংশ্লিষ্ট মামলার বাদী ব্যবসায়ী রাকিব হাসান ও তামিমা তাম্মীর সংসারে ৮ বছরের একটি কন্যাসন্তান রয়েছে। আর সেই স্বামী-সন্তানকে ফেলে এসে নাসিরের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধেন তামিমা।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে