অনিন্দিতা ভুয়া ঋণে তুলে নেন ১৬৮ কোটি টাকা, কেনেন ১৬৫ শতক জমি

অনিন্দিতা ভুয়া ঋণে তুলে নেন ১৬৮ কোটি টাকা, কেনেন ১৬৫ শতক জমি

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৩:০৫ ২২ জানুয়ারি ২০২১  

গ্রেফতার প্রশান্ত কুমার হালদারের সহযোগী অনিন্দিতা মৃধা

গ্রেফতার প্রশান্ত কুমার হালদারের সহযোগী অনিন্দিতা মৃধা

আলোচিত প্রশান্ত কুমার হালদারের সহযোগী অনিন্দিতা মৃধা উইন্টার ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের পরিচালক হিসেবে দুটি প্রতিষ্ঠান থেকে ভুয়া ঋণ দেখিয়ে ১৬৮ কোটি টাকা নিয়েছেন। শুধু তাই নয়, তিনি মাত্র ২০ বছর বয়সে মৎস্য চাষের মূলধন হিসেবে কোটি টাকা আয়কর রিটার্ন দাখিল করলেও তার বৈধ অর্থ উপার্জনের স্বপক্ষে কোনো প্রমাণ দেখাতে পারেননি। মূলত বাবা সুকুমার মৃধা ও পিকে হালদারের যোগসাজশে কোটি টাকার মালিক বনে যান অনিন্দিতা।

তিনি বাগেরহাটের কচুয়ায় নিজের নামে ১৬৫ শতক জমি ক্রয় করেন। অন্যদিকে সুকুমার মৃধা দেশের তিনটি স্থানে ৩ হাজার শতক জমি ক্রয় করছেন। বৃহস্পতিবার জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও অর্থপাচারের অভিযোগে দুদকের দায়ের করা মামলায় সুকুমার ও অনিন্দিতাকে গ্রেফতার করে দুদক। এরপর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মো. সালাহউদ্দিনের তাদের রিমান্ড আবেদন জানিয়ে প্রতিবেদন দাখিল করেন। সেই প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

প্রতিবেদনে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মো. সালাহউদ্দিন উল্লেখ করেন, প্রশান্ত কুমার হালদার ও তার সহযোগিতাদের মাধ্যমে ২০১৫ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত অবৈধভাবে প্রায় ১৬০ কোটি টাকা তার মা লিলাবতীর বিভিন্ন ব্যাংক অ্যাকাউন্টে হস্তান্তর করেন। পরবর্তীতে লিলাবতী হালদারের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে চেক ও নগদে পিকে হালদার, অবন্তিকা বড়াল ও সুকুমার মৃধাকে দেন। অবৈধ উপায়ে অর্জিত বিপুল পরিমাণ অর্থ থেকে লিলাবতী হালদারের ব্যাংক হিসাব থেকে ১ কোটি ৫০ লাখ টাকা হস্তান্তর করেছেন। এই অর্থ ছাড়া বিভিন্ন সময় ব্যাংক হিসাব ও নগদে আসামি পিকে হালদার ও তার সহযোগিতাদের মাধ্যমে অবৈধ উপায়ে সুকুমারের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বিপুল পরিমাণ টাকা হস্তান্তর করেন। এর মাধ্যমে আসামি সুকুমার পিরোজপুর বাগেরহাট ও নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে তিন হাজার শতক জমি ক্রয় করেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, মাত্র ২০ বছর বয়সে একজন শিক্ষার্থী হিসেবে অনিন্দিতা মৃধা আয়কর নথি খুলে ২০১৪-১৫ করবর্ষের আয়কর রিটার্নে ১ কোটি চার লাখ ৮৭ হাজার ৫০০ টাকা সম্পদ অর্জনের ঘোষণা দেন। এই করবর্ষে তিনি মৎস্য চাষের মূলধন হিসেবে ১ কোটি দুই লাখ ৮৭ হাজার ৫০০ টাকা করেছেন মর্মে তার আয়কর নথি পর্যালোচনা করে দেখা যায়। কিন্তু বিনিয়োগকৃত অর্থ অর্জনের স্বপক্ষে কোনো বৈধ আয়ের উৎস আয়কর রিটার্নের সঙ্গে দাখিল করতে পারেননি। এমনকি তদন্তকালে এটার স্বপক্ষে কোনো বৈধ প্রমাণ দেখাতে পারেননি। ২০১৪-১৫ করবর্ষের আয়করে তার নিজের কোনো জমি বা পুকুর ছিল না।

প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়, আসামি সুকুমার অবৈধ উপায়ে অর্জিত ১ কোটি ৫০ লাখ টাকা তার মেয়ে অনিন্দা মৃধার ব্যাংক হিসাবে হস্তান্তর করেন। অনিন্দাতা মৃধা বাগেরহাটের কচুয়ায় নিজের নামে ১৬৫ শতক জমি ক্রয় করেন। যার বাজার মূল্য ৫০ লাখ টাকা। কিন্তু তিনি তার আয়কর নথিতে প্রকৃত তথ্য দেখাননি। অনিন্দাতা মৃধা উইন্টার ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের পরিচালক হিসেবে দুই টার্মে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফিনানশিয়ালি সার্ভিস লিমিটেড থেকে ভুয়া ঋণ দেখিয়ে ৬৮ কোটি ৫১ লাখ টাকা নেন, যা পরিশোধ করেননি মর্ম জানা যায়। এছাড়া এফএএস ফিন্যান্স এন্ড লিজিং থেকে ভুয়া ঋণ দেখিয়ে ১০০ কোটি গ্রহণ করলেও তা পরিশোধ করেননি।

এদিকে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও অর্থপাচারের অভিযোগে দুদকের মামলায় প্রশান্ত কুমার হালদারের সহযোগী সুকুমার মৃধা ও অনিন্দিতা মৃধার তিনদিনের রিমান্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএইচ