‘স্কুইড গেম’ বিক্রির অভিযোগে ফায়ারিং স্কোয়াডে ছাত্রের মৃত্যুদণ্ড

‘স্কুইড গেম’ বিক্রির অভিযোগে ফায়ারিং স্কোয়াডে ছাত্রের মৃত্যুদণ্ড

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:৪৩ ২৫ নভেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৯:২৯ ২৫ নভেম্বর ২০২১

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ওটিটি প্ল্যাটফর্ম নেটফ্লিক্সের জনপ্রিয় সিরিজ ‘স্কুইড গেম’ পাচার ও বিক্রির অপরাধে উত্তর কোরিয়ায় এক ছাত্রকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, ওই ছাত্র ইউএসবি ড্রাইভে করে হিংসাত্মক ‘স্কুইড গেম’ -এর কপি পাচার ও বিক্রি করে আসছিল। যা উত্তর কোরিয়ার একটি উচ্চ বিদ্যালয়ের সাত শিক্ষার্থী দেখেছে। সেটা দেখার কারণে ওই শিক্ষার্থীদের আটক করা হয়েছে।

জানা গেছে, ওই ছাত্র চীন থেকে উত্তর কোরিয়ায় স্কুইড গেম-এর কপি নিয়ে যায়। স্কুইড গেমের কপি কেনার কারণে একজন ছাত্রকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং অন্য ছয়জনকে পাঁচ বছরের কঠোর পরিশ্রম করার শাস্তি দেওয়া হয়েছে। এছাড়া যাবজ্জীবন সাজা পাওয়া ছাত্রের পরিবারকে তিন হাজার মার্কিন ডলার জরিমানা করা হয়েছে।

শাস্তির পরিধি ওই ছাত্রদের স্কুলেও দেওয়া হয়েছে। সেখানকার শিক্ষক এবং বিদ্যালয় প্রশাসকদের বরখাস্ত করা হয়েছে। এছাড়া দূরবর্তী খনিতে কাজের জন্য নির্বাসনের মুখোমুখি হয়েছেন তারা।

স্থানীয় সূত্রের বরাত দিয়ে নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড এক প্রতিবেদনে বলছে, চীন থেকে স্কুইড গেম পাচার করে নিয়ে এসেছে যে ছাত্র, তার মৃত্যুদণ্ড ফায়ারিং স্কোয়াডে হবে বলে এলাকায় ছড়িয়ে গেছে। গত সপ্তাহে ওই ছাত্র স্কুইড গেম পেনড্রাইভে করে নিয়ে এসে তার একজন ক্লাসমেটকে দেখায়। এরপর আরো কয়েকজন এটি দেখে।

উত্তর হামগিয়ং প্রদেশের আইন প্রয়োগকারী সংস্থার একজন কর্মকর্তা গত সোমবার সংবাদমাধ্যম রেডিও ফ্রি এশিয়াকে বলেছেন, স্কুইড গেম দেখার পর সহপাঠীদের কাছে বিষয়টি জানায় ওই ছাত্র। এরপর অন্যরাও আগ্রহী হলে অর্থের বিনিময়ে তাদেরকে পেনড্রাইভে করে স্কুইড গেমের কপি দেওয়া হয়। পরে সাতজন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর জালে ধরা পড়ে।

উত্তর কোরিয়া বরাবরই অন্য দেশের পণ্য তাদের দেশের প্রবেশের ক্ষেত্রে অত্যন্ত কঠোর।

ধারণা করা হচ্ছে, গত বছর পাস করা “প্রতিক্রিয়ামূলক চিন্তা ও সংস্কৃতির নির্মূল” আইন প্রয়োগ করেই সাত ছাত্রকে শাস্তি দিয়েছেন। আইনটিতে পুঁজিবাদী দেশগুলো বিশেষ করে দক্ষিণ কোরিয়া এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টেলিভিশন কন্টেন্ট দেখা, সংগ্রহে রাখা বা বিতরণের জন্য সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখেছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী