সাপ, টিকটিকির জন্য সেতু

সাপ, টিকটিকির জন্য সেতু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০৯:১৯ ২ ডিসেম্বর ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ভারতের উত্তরাখণ্ড রাজ্যের বিখ্যাত পর্যটন গন্তব্য নৈনিতাল শহরে যাওয়ার পথে পর্যটকবাহী গাড়ির সামনে মাঝে মাঝেই দেখা মেলে হাতি, চিতা, হরিণ কিংবা ষাঁড়ের মতো প্রাণীর। এসব প্রাণী সামনে পড়লে অনেক চালকই গাড়ি থামিয়ে তাদের রক্ষা করেন। তবে আকারে ছোট হওয়ায় টিকটিকি, সাপের মতো সরীসৃপগুলো চোখে পড়ে না তাদের। অনেক সময় গাড়িচাপায় প্রাণীগুলোর মৃত্যু হয়।

এমন সমস্যার সমাধানে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছে বন বিভাগ। তারা সরীসৃপদের চলাচল সহজ করতে সড়কের ওপর নির্মাণ করেছে বাঁশ, পাট ও ঘাসের সেতু। ওই ‘ইকো সেতু’ ৯০ ফুট লম্বা বলে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানিয়েছে বিবিসি।

এ বিষয়ে উত্তরাখণ্ডের বন কর্মকর্তা চন্দর শেখর যোশি বলেন, এই মহাসড়কে অনেক সরীসৃপ ও অন্য ছোট প্রাণী পর্যটকদের গাড়ির নিচে পড়ে মারা যায়। প্রাণীদের চলাচলে নজর রাখতে সেতুর দুই দিকেই ক্যামেরা বসানো হয়েছে।

প্রাণীদের আকৃষ্ট করতে সেতুটিতে এখন লতাজাতীয় গাছ ও ঘাস লাগাচ্ছেন বন কর্মকর্তারা।

এদিকে ইকো সেতুটি নিজেই পর্যটকদের আকর্ষণের বস্তুতে পরিণত হয়েছে। তাদের অনেকেই গাড়ি থামিয়ে ছবি ও সেলফি তোলেন। বন কর্মকর্তারা আশা করছেন, শিগগিরই সেতুটি প্রাণীদেরও আকর্ষণ করবে।

সংবাদমাধ্যম দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে এক বন কর্মকর্তা বলেন, এটি একটি গহীন বন। হাতি, চিতা বাঘ, হরিণ ও ষাঁড় এখানে ঘোরাফেরা করে। দূর থেকে গাড়িচালকরা তাদের দেখতে পেয়ে গাড়ির গতি কমায় বা থামায়। কিন্তু সাপ, টিকটিকি, মনিটর টিকটিকি বা কাঠবিড়ালি তারা দেখতে পান না। এ কারণে এলাকায় ছোট প্রাণী ও সরীসৃপদের বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টি ও তাদের রক্ষায় সেতুটি সহযোগিতা করবে বলে আশাবাদী রাজ্যটির বন কর্মকর্তারা।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএএইচ