টয়লেট ব্যবহার করতে গিয়ে সাপের ছোবলে হাসপাতালে নারী

টয়লেট ব্যবহার করতে গিয়ে সাপের ছোবলে হাসপাতালে নারী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:২৯ ২৩ অক্টোবর ২০২০  

টয়লেট ব্যবহার করতে গিয়ে সাপের ছোবলে হাসপাতালে নারী-সংগৃহীত ছবি।

টয়লেট ব্যবহার করতে গিয়ে সাপের ছোবলে হাসপাতালে নারী-সংগৃহীত ছবি।

থাইল্যান্ডের ব্যাংককে টয়লেট ব্যবহারের সময় এক নারীর নিতম্বে ছোবল মেরেছে সাত ফুট লম্বা একটি সাপ। ছোবলের পর রক্ত ঝরার বিষয়টি বুঝতে পেরেই আর্তনাদ করলে তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়।

সম্প্রতি দেশটির রাজধানীর সুমত প্রকারণ এলাকায় ঘটনাটি ঘটে। ২৩ অক্টোবর এ সংক্রান্ত একটি খবর প্রকাশ করেছে নিউজ ১৮ বাংলা।

সংবাদ মাধ্যমটির একটি প্রতিবেদনে জানা গেছে, ৫৪ বছরের বুনসঙ্গ এলাকাইব নামের এক নারী নিজের বাড়ির টয়লেটে প্রবেশ করেন। হঠাৎ তিনি তার শরীরের নিম্নাংশে যন্ত্রনা অনুভব করেন। সাপ ছোবলে ওই নারীর শরীর থেকে অনবরত রক্ত বের হচ্ছিল। তখন তার পুরো কাপড় রক্তে ভেসে যায়৷ এমনকি ওই নারীর পায়ের আঙুলেও ছোবল মারে সাপটি।

কোনো রকমে টয়লেট থেকে বের হয়ে চিৎকার দেন ওই নারী। তখন নারীর স্বামীসাপ পলায়ন রোধ করতে প্রথমে টয়লেটের দরজা বন্ধ করেন। তাৎক্ষণিক সাপ ধরার লোক ডাকার পাশাপাশি স্ত্রীকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। তারপর নারীকে হাসপাতালে নেয়া হয়। তখন সাপের ছোবলে আক্রান্ত আঙ্গুলটি কেটে ফেলা হয়।

ওই নারী জানান, টয়লেটের ভেতরে থাকা সাপটিকে তিনি দেখতে পারেননি। বুনসঙ্গ এলাকাইব নামের ওই নারীর পরামর্শ যে, টয়লেট ব্যবহারের আগে সবকিছু খুটিয়ে দেখা উচিত।

এদিকে সাপটি বিষধর না হওয়ায় প্রাণে রক্ষা পেয়েছেন ছোবলের শিকার নারী। সাপটিকে স্থানীয় বন্য প্রাণ দফতর সাপটিকে ধরে নিয়ে যায়৷

এর আগেও ব্যাংককের ১৩ মাইল উত্তরে এক যুবকের যৌনাঙ্গে ছোবল মারে একটি চার ফুট লম্বা সাপ। পরে ওই যুবকের যৌনাঙ্গে তিনটি সেলাই দেয়া হয়েছিল। এছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ সেবন করানোর পর ওই যুবক সুস্থ হন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ