ট্রাম্প-বাইডেনের প্রথম নির্বাচনী বিতর্কেই বিশৃঙ্খল

ট্রাম্প-বাইডেনের প্রথম নির্বাচনী বিতর্কেই বিশৃঙ্খল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৯:১১ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০  

ডোনাল্ড ট্রাম্প ও জো বাইডেন

ডোনাল্ড ট্রাম্প ও জো বাইডেন

আগামী ৩ নভেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মঙ্গলবার রাতে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পূর্ববর্তী প্রথম বিতর্ক ছিলো। সেখানে এক বিশৃঙ্খল এবং কলহপূর্ণ বিতর্কে লিপ্ত হন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ডেমোক্র্যাটিক দলের প্রার্থী ও ট্রাম্পের প্রতিদ্বন্দ্বি জো বাইডেন। নব্বই মিনিট ধরে চলা ওই বিতর্কে তারা দুইজনেই মার্কিন ভোটদাতাদের এটাই বোঝানোর চেষ্টা করেছেন যে, আগামী চার বছরের জন্যে দেশের নেতৃত্ব দেয়ার জন্য তার প্রতিপক্ষ অযোগ্য।

ওহিও অঙ্গরাজ্যের ক্লিভল্যান্ডে ফক্স নিউজের ক্রিস ওয়ালেসের সঞ্চালনায় বিতর্কের মঞ্চে দাঁড়িয়ে বিতর্কের অনেকখানি অংশজুড়েই পরস্পরকে অপমান করেছেন ট্রাম্প ও বাইডেন। পরস্পরের প্রতি বাক্যবান নিক্ষেপ করেন তারা। এছাড়া একে অন্যকে ব্যক্তিগত পর্যায়েও আক্রমণ করেন।

বাইডেন ট্রাম্পকে উদ্দেশ্য করে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে খারাপ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। বেশ কয়েকবারই ট্রাম্পকে ক্লাউন বা ভাঁড় বলে অভিহিত করেন তিনি। এর পাল্টা জবাবে ট্রাম্প বলেন, আমি প্রসিডেন্ট হিসেবে গত ৪৭ মাসে যা করেছি আপনি গত ৪৭ বছরে যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটর ও ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে তা করতে পারেননি। আগামী জানুয়ারিতে বাইডেন প্রেসিডেন্ট হলে যুক্তরাষ্ট্রে অভূতপূর্ব মন্দা দেখা দেবে বলে যুক্তি দেখিয়েছেন ট্রাম্প। তার মতে, ডেমোক্র্যাটদের পরিকল্পনায় আছে যারা বছরে চার লাখ ডলারের বেশি উপার্জন করছেন তাদের ওপর ও কর্পোরেট আয়ের উপর ২১ শতাংশ থেকে ২৮ শতাংশ পর্যন্ত কর বৃদ্ধি করা হবে।

আসন্ন নভেম্বরের নির্বাচনের সংহতি, সততা, সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি নিয়োগ, যুক্তরাষ্ট্রে বিভিন্ন বর্ণের লোকের মধ্যকার ভঙ্গুর সম্পর্ক, পরিবেশ নীতি এ সব নিয়ে বিতর্কে লিপ্ত হন ট্রাম্প ও বাইডেন।

চলতি সপ্তাহে নিউ ইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০০০ সাল থেকে ২০১৬ পর্যন্ত ১৫ বছরের মধ্যে ১০ বছরই কোনো আয়কর দেননি ট্রাম্প। তবে এ প্রতিবেদনে দ্বিমত প্রকাশ করেছেন তিনি। ট্রাম্প বলেন, তিনি লাখ লাখ ডলার আয়কর দিয়েছেন। তবে বাইডেন বলেন, স্কুল শিক্ষকরা গড়ে যে পরিমাণে আয়কর দেন তার চেয়েও কম আয়কর দিয়েছেন ট্রাম্প।

আসন্ন নির্বাচনের এই দুই প্রার্থীই যুক্তরাষ্ট্রে এই মহামারি করোনা নিয়ন্ত্রণের উপায় নিয়েও বিতর্কে লিপ্ত হন। বাইডেন দাবি করেন, এ ব্যাপারে প্রেসিডেন্টের কোনো পরিকল্পনা নেই। ট্রাম্প দাবি করেন, তার প্রশাসন করোনা নিয়ন্ত্রণে প্রশংসনীয় কাজ করেছেন। এছাড়া আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ভ্যাকসিন পাওয়া যাবে বলেও জানান তিনি।

এদিকে, নির্বাচনে জনমত জরিপে ট্রাম্পের তুলনায় ৭ শতাংশ পয়েন্টে এগিয়ে আছেন বাইডেন। যদিও গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ অঙ্গরাজ্যে তাদের মধ্যে পার্থক্য খুব কম।

সূত্র- ভয়েস অব আমেরিকা

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএমএফ