সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি পদে অ্যামি কোনিকে মনোনীত করলেন ট্রাম্প

সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি পদে অ্যামি কোনিকে মনোনীত করলেন ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১১:১৮ ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১১:২১ ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসেবে রক্ষণশীল প্রার্থী অ্যামি কোনি ব্যারেটকে মনোনয়ন দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

শনিবার হোয়াইট হাউসের রোজ গার্ডেনে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, সুপ্রিম কোর্টে তার মতো অন্যতম এক মেধাবী বিচারককে মনোনয়ন দিতে পেরে আমি গর্বিত বোধ করছি। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তার মনোনয়নকে তরান্বিত করার আবেদন জানিয়ে বলেন, আইনপ্রণেতা এবং সংবাদ মাধ্যম তাকে যেন ব্যক্তিগত ও দলীয় কটাক্ষ করা থেকে বিরত থাকে।

সিনেটরদের সমর্থন পেলে সম্প্রতি ৮৭ বছর বয়সে প্রাণ হারানো উদারপন্থী বিচারপতি রুথ বাড গিন্সবার্গের স্থলাভিষিক্ত হবেন অ্যামি কোনি। তবে নভেম্বরে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত ট্রাম্প নিতে পারেন কিনা তা নিয়ে প্রচণ্ড বিতর্ক রয়েছে। এছাড়াও তাকে এই মনোনয়ন সিনেটে পাস করাতে হবে। ধারণা করা হচ্ছে সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকলেও সেখানে তীব্র লড়াই হবে।

জানা গেছে, মার্কিনিরা তাদের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট এবং পরবর্তী কংগ্রেস নির্বাচন না করা পর্যন্ত সিনেটকে এই শূন্যপদ নিয়ে কাজ না করার আহ্বান জানিয়েছেন ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী জো বাইডেন ।

তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান আদালতে কে কাজ করবে সে সম্পর্কে একবারই ভোটারদের আওয়াজ দেয়ার একটি সুযোগ দিয়েছে। সেই মুহূর্তটি এখন এবং তাদের কণ্ঠস্বর শোনা উচিত।

বিচারক অ্যামি কোনি নিশ্চিত হয়ে গেলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আদালতের ৯ বিচাপতির মধ্যে রক্ষণশীলদের সংখ্যা হবে ৬। বাকি ৩ জন উদারপন্থী বা ডেমোক্র্যাটিক। এই সংখ্যা আগামীতে রাষ্ট্র পরিচালনায় যে কোনো প্রেসিডেন্টের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

৪৮ বছর বয়সী অ্যামি কোনি হবেন বর্তমান রিপাবলিকান রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নিযুক্ত তৃতীয় বিচারপতি, এর আগে ২০১৭ সালে নেইল গরসাচ এবং ২০১৮ সালে ব্রেট কাভানফকে মনোনয়ন দেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টে নয় জন বিচারপতিকে আজীবনের জন্য নিয়োগ দেয়া হয়। তাদের শাসন বন্দুক থেকে শুরু করে গর্ভপাত এবং প্রচারের অর্থের ক্ষেত্রে সমস্ত কিছুকে জননীতির আকার দিতে পারে।

গত ১৮ সেপ্টেম্বর ক্যান্সারে আক্রান্তে হয়ে গিন্সবার্গের মৃত্যুর পর নির্বাচনের বছরে সুপ্রিম কোর্টের মনোনয়নে এগিয়ে যাওয়ার জন্য ভন্ডামির আশ্রয় নেয়ার অভিযোগ তোলা হয়েছে।

এবার নির্বাচনের যখন ৪০ দিনেরও কম সময় বাকি তখন ডেমোক্র্যাটরা বলেছেন রিপাবলিকানদের উচিত তাদের পূর্ববর্তী অবস্থান নিয়ে দাঁড়ানো এবং ভোটারদের সিদ্ধান্ত নিতে দেয়া উচিত।

বাইডেনের মতে, বিচারপতি নিয়োগে ট্রাম্পের এই প্রচেষ্টা তার ক্ষমতার অপব্যবহার।

এর আগে ২০১৬ সালে নির্বাচনের ২৩৭ দিন আগে আদালতে ডেমোক্র্যাটিক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার মনোনীত প্রার্থী মেরিক গারল্যান্ডের পক্ষে শুনানী করতে অস্বীকার করেন ম্যাককনেল।

সেসময় সেই মনোনয়ন সফলভাবে ঠেকিয়ে দেয়া হয়েছিল কারণ সিনেটেরর সংখ্যাগরিষ্ঠতা রিপাবলিকানদের হাতে ছিল। তারা যুক্তি দিয়েছিল এই সিদ্ধান্ত নির্বাচনের বছরে নেয়া উচিত নয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএএইচ