যুক্তরাষ্ট্রে ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে বিদ্যুৎহীন ৫ লাখেরও বেশি মানুষ

যুক্তরাষ্ট্রে ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে বিদ্যুৎহীন ৫ লাখেরও বেশি মানুষ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৯:৪১ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৯:৪৮ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের উপকূলে আঘাত হানা ঘূর্ণিঝড় স্যালির প্রভাবে আলাবামা ও ফ্লোরিডা উপকূলে ব্যাপক বন্যা দেখা দিয়েছে। এছাড়া এর তাণ্ডবে বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে সেখানকার পাঁচ লাখেরও বেশি মানুষ।

দেশটির ন্যাশনাল হারিকেন সেন্টার (এনএইচসি) উদ্ভূত এই পরিস্থিতিকে ‘ঐতিহাসিক ও সর্বনাশা’ বন্যা হিসেবে আখ্যায়িত করেছে।

মেক্সিকো উপসাগরের আলাবামা উপকূল দিয়ে স্থানীয় সময় বুধবার ভোরে ঝড়টি স্থলভাগে উঠে আসে। বিকালের দিকে এটি দুর্বল হয়ে একটি ক্রান্তীয় ঝড়ে পরিণত হয়। তবে স্যালির তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে লাখ লাখ মানুষ।

স্যালির আঘাতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ফ্লোরিডার পেনসাকোলা শহর। পেনসাকোলার দমকল বাহিনীর প্রধান গিনি ক্রেনর সিএনএন-কে বলেন, চার মাসে যে পরিমাণ বৃষ্টিপাত হয় এই ঝড়ে চার ঘণ্টাতেই সেই পরিমাণ বৃষ্টিপাত হয়েছে।

স্যালি আঘাত হানার সময় বাতাসের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ১০৫ মাইল বা ১৬৯ কিলোমিটার। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে উত্তর-মধ্যাঞ্চলের উপসাগরীয় উপকূলে বন্যা হতে পারে বলে আগেই সতর্ক করেছিলো এনএইচসি।

এছাড়া অন্তত দুই ফুট (৬০ সেমি) বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে। উপসাগরীয় উপকূলে আছড়ে পড়ার পর ঘূর্ণিঝড় স্যালি ঘণ্টায় তিন মাইল বেগে আলাবামা-ফ্লোরিডা সীমান্তের দিকে অগ্রসর হয়েছে।

এর প্রভাবে সৃষ্ট ঝড়ো বাতাস ও বৃষ্টিপাত মিসিসিপি থেকে ফ্লোরিডা পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে জানিয়েছে এনএইচসি। ঘূর্ণিঝড় থেকে নিরাপদ থাকতে আগেই উপকূলবর্তী নিম্নাঞ্চলের বাসিন্দাদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন স্থানীয় কর্মকর্তারা। ওই অঞ্চলের বন্দর, স্কুল, ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

সূত্র: বিবিসি

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী