৩৮ চাকার ট্রাক, ৩৪ ঘণ্টার রাস্তা পাড়ি দিল ১ বছরে

৩৮ চাকার ট্রাক, ৩৪ ঘণ্টার রাস্তা পাড়ি দিল ১ বছরে

মজার খবর ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১২:৩২ ২৬ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ১৩:০৮ ২৬ আগস্ট ২০২০

এয়ারস্পেস হরাইজন্তাল অটোক্লেভ

এয়ারস্পেস হরাইজন্তাল অটোক্লেভ

পৃথিবীতে অদ্ভুত অনেক কিছুই ঘটে, যা মানুষকে অবাক করে দেয়। তেমনি এক অবাক ঘটনা পুরো বিশ্বকে স্তম্ভিত করেছে। যা ঘটেছে ভারতে।

আগের বছর একটি ট্রাকে করে মহারাষ্ট্র রওনা দিয়েছিল এক বিশেষ ধরনের মেশিন। দীর্ঘ প্রায় এক বছর পরে অবশেষে ট্রাকটি এসে পৌঁছল কেরলাতে। বিশেষ স্পেস প্রোজেক্টের জন্যই ওই যন্ত্রটি নিয়ে আসা হয়েছে। তিরুবনন্তপুরমের বিক্রম সারাভাই স্পেস সেন্টারের একটি প্রোজেক্টের কাজের জন্যই নিয়ে আসা হয়েছে ওই বিরাট আকারের যন্ত্রটি।

সূত্র মারফত জানা গেছে, আগের বছরের ৮ জুলাই রওনা দিয়েছিল ওই মেশিনটি মহারাষ্ট্র থেকে। তারপর এক বছর ধরে চারটি রাজ্য ঘুরে, অবশেষে কেরলে এসে পৌছয়। সকলেই আসা করছেন কেরলের ভিআরসিসিটে কাজ করতে সক্ষম হবে ওই যন্ত্রটি।

মহারাষ্ট্র থেকে ট্রাকে করে যে যন্ত্রটি রওনা দিয়েছিল তার নাম এয়ারস্পেস হরাইজন্তাল অটোক্লেভ যা যেকোনো পদার্থকে ওজোন শূন্য করতে সক্ষম।

আরো পড়ুন: শিকারকে বোকা বানাতে মরার অভিনয় করে এই সাপ

আর গত এক বছর ধরে বিভিন্ন রাজ্য ঘুরে বিজের প্রদর্শন ক্ষমতা দেখানোর পরে অবশেষে কেরলে পৌছায় ওই যন্ত্রটি। রাস্তা কম থাকলেও গাছ কেটে রাস্তা বড় করে নেয়া হয়েছে। কারণ মেশিনটি অনেক বড় এবং ওজনও অনেক বেশি। যন্ত্রটির সঙ্গে ট্রাকে থাকতেন ৩২ জন কর্মী। যন্ত্রটির ওজন প্রায় ৭০ টন। এটি তৈরি করা হয়েছিল নাসিকে। আর দ্রুত এটি ভারতের মহাকাশ গবেষণার কাজে অংশ নেবে।

ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র দীর্ঘদিন ধরে একাধিক বিষয় নিয়ে গবেষণা চালিয়ে আসছে। আর এই নয়া যন্ত্র যোগ দেয়ার ফলে মনে করা হচ্ছে গবেষণার ক্ষেত্রে যথেষ্ট সুবিধা হবে।

পাশপাশি, মনে করা হছে নতুন কোনো দিক হয়তো আগামী দিনে ভারতীয় মহাকাশ গবেষকদের সামনে খুলে যেতে পারে। সেই কারণে এই যন্ত্রটির ভারতীয় মহাকাশ গবেষণাতে যোগ দেয়ার জন্য অপেক্ষা করছেন অনেকেই। ৩৮ চাকার ট্রাকে করে এল অতিকায় মেশিন, ৩৪ ঘন্টার রাস্তা আসতে সময় লাগল ১ বছর।

বিক্রম সারাভাই স্পেস সেন্টারের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন যে, ট্রাক বোঝাই মেশিনটি আলাদাভাবে আনা যায়নি। এই কারণেই এটি ট্রাকে করে একসঙ্গে আনার প্রয়োজন হয়েছিল। ট্রাকটি এখন বিক্রম সারাভাই স্পেস সেন্টারে পৌঁছেছে, আমরা খুব আনন্দিত।

ডেইলি বাংলাদেশ/এএ