বিশ্ব ধরিত্রী দিবস আজ 

বিশ্ব ধরিত্রী দিবস আজ 

ফিচার ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১০:৩৬ ২২ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ১১:১৯ ২২ এপ্রিল ২০২১

বিশ্ব ধরিত্রী দিবস। ছবি: সংগৃহীত

বিশ্ব ধরিত্রী দিবস। ছবি: সংগৃহীত

২২ এপ্রিল, আজ বিশ্ব ধরিত্রী দিবস। পরিবেশ ও প্রকৃতি রক্ষার মাধ্যমে ধরিত্রীকে টিকিয়ে রাখাই দিবসটির একমাত্র লক্ষ্য। প্রতি বছর এই দিনে বিশ্বের ১৯৩টি দেশে দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য হলো-'রিস্টোর আওয়ার আর্থ'। 

পৃথিবীকে নিরাপদ এবং বাসযোগ্য রাখতে জলবায়ু সংকট ও পরিবেশ দূষণ রোধে তাৎক্ষণিক পদক্ষেপের প্রয়োজনীয়তার দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সারা বিশ্বের পরিবেশ সচেতন মানুষ আজ বিভিন্ন কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করবে।

বিংশ শতাব্দীর ষাটের দশকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রর রাজনৈতিক অঙ্গনে বড় ধরনের পরিবর্তন আসা শুরু করে ছিলো। সে সময় ভিয়েতনাম যুদ্ধের মতো ঘটনা নাড়া দিয়ে ছিলো আমেরিকার জনগণকে। দেশটির বিভিন্ন জায়গায় গড়ে উঠেছিলো যুদ্ধবিরোধী আন্দোলন। সঙ্গে অন্যান্য সামাজিক বিষয়েও সচেতনতা তৈরি হয় মানুষের মধ্যে। ফলশ্রুতিতে রাজনীতিতে জনমতের গুরুত্ব ক্রমেই বাড়ছিলো। তবে পরিবেশ বিষয়ে তখনো খুব একটা আলোচনা ছিলো না।

১৯৬২ সালে একজন মানুষের লেখা বদলে দেয় পুরো প্রেক্ষাপট। তিনি হলেন র‍্যাচেল কার্সন। তার 'সাইলেন্ট স্প্রিং' নামের বইয়ে তিনি পরিবেশের উপর কীটনাশকের ক্ষতিকর প্রভাব বিস্তারিতভাবে তুলে ধরেন। তুমুল আলোড়ন তোলে বইটি। জন্ম নেয় আধুনিক পরিবেশ আন্দোলনের। এর কয়েক বছর পর আসে একটি নির্দিষ্ট দিনকে পরিবেশের জন্য রাখার পরিকল্পনা।

ষাটের দশকে ক্যাম্পাসভিত্তিক বিভিন্ন আন্দোলন দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন উইসকনসিনের সিনেটর গেলর্ড নেলসন। ১৯৬৯ সালে তিনিই প্রথমবারের মতো ধরিত্রী দিবস উদযাপনের প্রস্তাব দেন। তার প্রাথমিক উদ্দেশ্য ছিলো জাতীয় রাজনৈতিক নেতৃত্বকে দেখানো যে পরিবেশ আন্দোলনের প্রতি জনগণের ব্যাপক ও গভীর সমর্থন রয়েছে। তবে জনাব নেলসন কোনো সংস্থার মাধ্যমে দিবসটি আয়োজন করাতে চান নি। বরং তার ইচ্ছা ছিলো তৃণমূল পর্যায়ে সাধারণ মানুষের অংশগ্রহণকে উৎসাহিত করা। কল্পনাতীতভাবে এ ইচ্ছা বাস্তবায়িত হয়েছিলো।

কয়েকজন শিক্ষার্থীর সহায়তায় ১৯৭০ সালের ২২ এপ্রিল আয়োজন করা হয় প্রথম ধরিত্রী দিবস। প্রায় ২২ মিলিয়ন (২ কোটি ২০ লাখ) মানুষ দিনটি উদযাপন করেছিলো। তবে এখানেই থেমে যায় নি এ ঘটনা। ধরিত্রী দিবস বড় ধরনের প্রভাব ফেলেছিলো জাতীয় নীতিনির্ধারণী পর্যায়েও।

পরিবেশ রক্ষার গুরুত্ব অনুধাবন করে ১৯৭০ সালে প্রতিষ্ঠা করা হয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের 'এনভায়রনমেন্টাল প্রটেকশন এজেন্সি' বা ইপিএ। ১৯৭০ সালে বায়ু দূষণ প্রতিরোধের আইন 'ক্লিন এয়ার এক্ট' সংশোধিত হয়। বাতাসে ক্ষতিকর নিঃসরণ ঠেকানোর জন্য নতুন মানদণ্ড অন্তর্ভুক্ত করা হয় এ সংশোধনীতে। ১৯৭২ সালে মার্কিন কংগ্রেসে পাশ করা হয় 'ক্লিন ওয়াটার এক্ট' যা দেশটির পানি দূষণ রোধে প্রাথমিক ফেডারেল আইন হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

১৯৭৪ সালে 'সেফ ড্রিংকিং ওয়াটার এক্ট' পাশ করা হয়। জনগণের জন্য নিরাপদ খাবার পানি নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে এটি মূল ফেডারেল আইন।১৯৭৬ সাল থেকে 'রিসোর্স কনভারসেশন এন্ড রিকোভারি এক্ট' কার্যকর হয়। এ আইনটি ক্ষতিকর বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় মূল ফেডারেল আইনের ভূমিকা করে। একই বছর 'টক্সিক সাবস্টেন্সেস কন্ট্রোল এক্ট' নামের আইনে প্রেসিডেন্ট জেরাল্ড ফোর্ড স্বাক্ষর করেন। খাদ্য, ঔষধ, কসমেটিকস ও কীটনাশকে রাসায়নিক দ্রব্যের মাত্রা নিয়ন্ত্রণের জন্য আইনটি চালু করা হয়।

প্রথম দিকে শুধু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সীমিত থাকলেও পরবর্তীতে ধরিত্রী দিবসের ধারণা ছড়িয়ে পড়ে অন্যান্য দেশেও। ১৯৯০ সাল থেকে সারা বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে উদযাপিত হয়ে আসছে বিশেষ এ দিনটি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএ