একসঙ্গে জয়ঢাক বাজালেন যশরত

একসঙ্গে জয়ঢাক বাজালেন যশরত

বিনোদন ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২০:০৩ ১৩ অক্টোবর ২০২১  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

প্রায় সবই এক আছে। শুধু বদলে গিয়েছে জীবনসঙ্গী। ২০১৯ সালে এভাবেই সুরুচি সংঘের পূজায় ঢাক বাজাতে দেখা গিয়েছিল নুসরাত জাহানকে। তখন তার পাশে ছিলেন নিখিল জৈন। তার ‘সহবাস সঙ্গী’। 

সাল ২০২১। এবারেও ষষ্ঠীতে মণ্ডপে জয়ঢাক বাজাতে দেখা গেল সাংসদ-তারকাকে। তবে এ বছর তার পাশে যশ দাশগুপ্ত। পঞ্চমীর দিন যশকে প্রকাশ্যে ‘স্বামী’ বলে স্বীকার করেছেন অভিনেত্রী।

পূজার বিচারক হিসেবে যশ-নুসরাত মণ্ডপে মণ্ডপে ঘুরলেন। প্রতিমা দেখলেন। বিচারের ফাঁকে মেতে উঠলেন খুনসুটিতে। এভাবেই প্রথম প্রকাশ্যে দেখা গেল তাদের। মুখের হাসি বলছিল, সমস্ত বিতর্ক দূরে সরিয়ে জীবনকে উপভোগ করছেন দু’জনেই।

নুসরাতের সাজেও বদল এসেছে। ২০১৯ সালে তাকে সব সময়েই দেখা যেত লাল পাড়, সাদা শাড়িতে। সিঁথিতে চওড়া সিঁদুর। দু’হাতে , পলা। গলায় মঙ্গলসূত্র। নিখিল পরতেন শেরওয়ানি বা পাজামা-পাঞ্জাবি। 

সোমবার নুসরাত চওড়া জড়ি পাড়ের নীল শাড়িতে আলাদা হলেন। সঙ্গে মানানসই হাতখোঁপা, ফুল দেওয়া তাতে। অল্প সাজ। তাতেই তিনি সুন্দর। কিন্তু শাঁখা, পলা, সিঁদুরে আগের মতো নন তিনি! যশ ঝকঝকে ধবধবে সাদা শার্ট, ডেনিম জিনসে আনন্দে ভরপুর।

জয়ঢাকের কাঠি হাতে পেতেই যশকে শাসন অভিনেত্রীর। স্বামী-স্ত্রীর দাম্পত্য প্রেম ক্যামেরাবন্দি। হাসি-ঠাট্টার মধ্যেই যশকে নিয়ে নুসরাত বোল তুললেন জয়ঢাকে। সেই পর্ব মিটতেই দু’জনে সমস্ত শহরবাসী এবং অনুরাগীদের ষষ্ঠীর শুভেচ্ছা জানান। 

যশের অনুরোধ, সতর্কতা মেনে সবাই যেন পূজার আনন্দে মেতে ওঠেন। শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে নুসরাত সাংসদের কর্তব্য পালন করলেন। তিনিও মনে করিয়ে দিলেন, সবাই যেন মুখোশে মুখ ঢেকে রাস্তায় বেরোন। মাস্ক, স্যানিটাইজার সঙ্গে থাকা মানেই করোনাসুর জব্দ। এও বললেন, আমরা মুখোশ খুলেছি ছবি তোলা এবং কথা বলার জন্য। আমরাও মাস্ক পরেই থাকছি সারাক্ষণ। 

সঙ্গে সঙ্গে যশের হাল্কা দুষ্টুমি। ঈশান-জননীকে প্রশ্ন, তোমার স্যানিটাইজার কোথায়? আত্মবিশ্বাসী নুসরাতের সপাট জবাব, দেখো, নিশ্চয়ই তোমার পকেটেই আছে!

ডেইলি বাংলাদেশ/টিএএস