কঙ্কনা-রণবীরের গোপনে পাঁচ বছর প্রেমের পর বিয়ে, অবশেষে বিচ্ছেদ

কঙ্কনা-রণবীরের গোপনে পাঁচ বছর প্রেমের পর বিয়ে, অবশেষে বিচ্ছেদ

বিনোদন ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১০:৪৭ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০  

কঙ্কনা-রণবীরের বিয়ের দৃশ্য

কঙ্কনা-রণবীরের বিয়ের দৃশ্য

সম্পূর্ণ আলাদা পরিবেশেই অভিনেত্রী কঙ্কনা সেন শর্মা ও অভিনেতা রণবীর শোরের বেড়ে ওঠা। দুজনের বড় হয়েছেন দুই রকম পরিবেশে। কঙ্কনার মা অপর্ণা সেন প্রখ্যাত অভিনেত্রী ও চলচ্চিত্র পরিচালক। মা রুপালি জগতের মানুষ। তাই কঙ্কনাও লাইট-ক্যামেরার ঝলকানিতেই বেড়ে উঠেছেন। ছোট বয়সেই অভিনয় জগতে পদার্পণ করেন তিনি। পরবর্তীতে নায়িকা হিসেবে একের পর এক মাইলস্টোন ছুঁয়ে দেখেছেন এ অভিনেত্রী।

কঙ্কনার তুলনায় রণবীর শোরেকে অভিনেতা হিসেবে শূন্য থেকে ইন্ডাস্ট্রিতে জায়গা করে নিতে হয়েছে। একের পর এক সিনেমায় নিজের অভিনয় দক্ষতার প্রমাণও দিয়েছেন তিনি। তারপরও বলিউডে চরিত্রাভিনেতা হিসেবেই রয়ে গিয়েছেন তিনি।

রজত কাপুর পরিচালিত ‘মিক্সড ডাবলস’ সিনেমায় প্রথম একসঙ্গে কাজ করেন কঙ্কনা ও রণবীর। চিত্রনাট্য নিয়ে আলোচনা থেকে সিনেমাটির শুটিং ফ্লোরে যাওয়ার মধ্যে যেটুকু সময় ছিলো, তাতেই পরস্পর পরস্পরের কাছে চলে আসেন। তাদের সম্পর্ককে কেউ কেউ বলেন—‘লাভ অ্যাট ফার্স্ট সেট’।  ‘মিক্সড ডাবলস’ সিনেমার শুটিং সেটেই পরস্পরের প্রেমে পড়েন কঙ্কনা। তারপর লিভ ইন শুরু করেন তারা। কিন্তু এমন খবর ঘুণাক্ষরেও টের পায়নি সাংবাদিকরা। জনসম্মুক্ষে পেশাদার অভিনেতা-অভিনেত্রীর মতোই ছিলো তাদের আচরণ।

যত সময় গড়াতে থাকে ততই বিভিন্ন পার্টি এব‌ং অনুষ্ঠানে একসঙ্গে হাজির হতে থাকেন কঙ্কনা-রণবীর। কিন্তু তখন রণবীর শোরের সঙ্গে পূজা ভাটের সম্পর্ক নিয়ে ঢের গুঞ্জন উড়ছিল। তাই কঙ্কণা-রণবীরের মধ্যে যেকোনো সম্পর্ক থাকতে পারে তা বুঝে উঠতে সময় লেগেছিল। পরবর্তীতে এ জুটি নিজে থেকেই তাদের সম্পর্কের কথা স্বীকার করেন। শুধু তাই নয়, গোপনে বাগদানের খবরও জানান। এ-ও জানান—ব্যক্তিগত জীবনটাকে তারা লোকচক্ষুর আড়ালে রাখতে চান।

দীর্ঘ পাঁচ বছর চুটিয়ে প্রেম করে ২০১০ সালের ৩ সেপ্টেম্বর সাত পাকে বাঁধা পড়েন কঙ্কনা-রণবীর। শহর ছেড়ে গ্রামের বাড়িতে ছোট আয়োজনে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সারেন তারা। পরিবার ও কাছের বন্ধু-বান্ধব কেউ-ই সে খবর জানতেন না। শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার পর টুইটার মারফত ভক্তদের এ খবর জানান এই দম্পতি।

২০১১ সালের ১৫ মার্চ দক্ষিণ মুম্বাইয়ের একটি হাসপাতালে কঙ্কনা-রণবীরের ছেলে হারুনের জন্ম হয়। তারকা সন্তানদের নিয়ে মায়ানগরীতে যে মাতামাতি, তা থেকে বরাবরই দূরে ছিলো হারুন। ছেলের শৈশবে যাতে কোনো প্রভাব না পড়ে এজন্যই এই সিদ্ধান্ত নেন কঙ্কনা-রণবীর। তবে মাঝে মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছেলের ছবি পোস্ট করেন তারা।

বলিউডে সম্পর্কের ভাঙাগড়া নতুন কিছু নয়। তা যেন বারো মাস লেগেই আছে। সেখানে কঙ্কনা-রণবীর ব্যতিক্রম হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন। কিন্তু ভেতরে ভেতরে যে তাদের সম্পর্কেও ফাটল ধরেছে, তা ২০১৩ সালে প্রকাশ্যে আসে। দু’জনে আলাদা থাকতে শুরু করেন। এ খবর বলিপাড়ায় উড়তে থাকে। কিন্তু কঙ্কনা- রণবীর দু’জনেই মুখে কুলুপ এঁটেছিলেন। পরে এক সাক্ষাৎকারে কঙ্কনা নিজেকে ‘সিঙ্গেল মাদার’ বলে উল্লেখ করেন। এ ঘটনার পর শুরু হয় নানা জল্পনা।

২০১৫ সালে প্রথম আলাদা থাকার কথা স্বীকার করেন রণবীর। দাম্পত্য সমস্যার জন্য নিজেকেই দায়ী করেন তিনি। তবে আলাদা থাকার সিদ্ধান্ত যে দু’জনে মিলেই নিয়েছেন, সে কথাও জানান। এর পরেও সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করে যান কঙ্কনা-রণবীর। নিয়মিত কাউনসিলিং করান তারা। কিন্তু ভাঙা সম্পর্ক আর জোড়া লাগেনি। একই বছরের শুরুতে আদালতে বিবাহবিচ্ছেদের মামলা করেন কঙ্কনা-রণবীর। গত ১৩ আগস্ট আইনত বিচ্ছেদ হয় তাদের। বিচ্ছেদ হলেও যৌথভাবে ছেলের দেখাশোনা করছেন কঙ্কনা-রণবীর।

ডেইলি বাংলাদেশ/এএ