মৃত্যুর আগে যৌন নিগ্রহ করা হয় সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজার দিশাকে

মৃত্যুর আগে যৌন নিগ্রহ করা হয় সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজার দিশাকে

বিনোদন ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২০:১৯ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০  

দিশা সালিয়ান এবং সুশান্ত সিং রাজপুত

দিশা সালিয়ান এবং সুশান্ত সিং রাজপুত

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পাঁচদিন আগেই তার প্রাক্তন ম্যানেজার দিশা সালিয়ানের আত্মহত্যা করেন। এই ঘটনা দুটিতে কোথাও একটা যোগ রয়েছে বলেই প্রথম থেকে মনে করেন সুশান্তের ফ্যানেদের একাংশ। যারা দিশাকে দীর্ঘদিন ধরে চিনতেন, তারাও কেউই দিশার এমনভাবে নিজের জীবন শেষ করে দেয়ার ঘটনাকে মেনে নিতে সমস্যা হয়। একই কথা শোনা গিয়েছে সুশান্তের মৃত্যুর পরও। সুশান্তকে ঠান্ডা মাথায় খুন করা হয়েছিল বলেই দাবি করেছেন তার ফ্যান ও পরিবারের সদস্যদের অনেকে।

কিন্তু কেন দিশা আত্মহত্যা করলেন, মেয়ের মৃত্যু নিয়ে সেভাবে সরব হননি দিশার মা-বাবা। সম্প্রতি সুশান্তের মৃত্যু তদন্তে উঠে আসে দিশার আত্মহত্যা প্রসঙ্গ। 

দিশার ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টে বলা হয়েছিল বহুতল থেকে পড়ে গিয়েই মারা গিয়েছেন দিশা। কিছুদিন আগেই দিশার পোস্টমর্টেম রিপোর্ট প্রকাশ্যে আসে। সেখানে বলা হয়েছিল তার মাথায় গভীর ক্ষত ছিল, এছাড়াও একাধিক আভ্যন্তরীন ক্ষত ছিল শরীরে।

এবার এক প্রত্যক্ষদর্শীর দাবি, দিশাকে যৌন নিগ্রহ করা হয়েছিল। পেশায় অভিনেতা এই ব্যক্তি জানিয়েছেন, ৮ জুন মুম্বাইয়ের মালাডে নিজের ফ্ল্যাটেই পার্টি চলাকালীন যৌন নিগ্রহের শিকার হন দিশা। এই দুটি মৃত্যু নিয়ে বিস্তর জলঘোলা হচ্ছে। এর মধ্যে প্রত্যক্ষদর্শীর বয়ান নিয়ে নতুন করে জল্পনা তৈরি হয়েছে। 

ওই প্রত্যক্ষদর্শীর দাবি, তিনি ৮ জুন রাত ৯টা থেকে সাড়ে ৯টার মধ্যে দিশার ফ্ল্যাটে পৌঁছন। এক ঘণ্টা পর্যন্ত পার্টি ভালোভাবেই চলে। এরপর একটি ঘরে চলে যান দিশা। তার সঙ্গে আরো কয়েকজন ছিলেন। সেই ঘরের শব্দ যাতে বাইরে না যায়, তার জন্য জোরে গান চালিয়ে দেয়া হয়।

এই প্রত্যক্ষদর্শীর আরো দাবি, দিশার মৃত্যুতে ভেঙে পড়েছিলেন সুশান্ত। তিনি বন্ধুদের ফোন করে বলেছিলেন, দিশাকে খুন করা হয়েছে বলে সন্দেহ হচ্ছে। এই ঘটনার তদন্ত চাইছিলেন সুশান্ত। কিন্তু তিনি সেই সুযোগ পাননি। দিশার মৃত্যু হওয়ার কয়েকদিনের মধ্যেই তারও মৃত্যু হয়।

দিশা মুম্বাইয়ের ১৪ তলার একটি বহুতলে থাকতেন। ৯ জুন রাত ২টোর সময় মারা যান দিশা। সেই সময় তিনি তার বাগদত্ত রোহন রায়ের ফ্ল্যাটে ছিলেন। কিন্তু তার ময়নাতদন্ত হয় দুদিন পর, ১১ জুন। দিশার ময়নাতদন্ত হয় বোরিভালি হাসপাতালে। দিশার যখন মৃত্যু হয় তখন তিনি ছিলেন রোহনের বাড়িতে। 

কিন্তু পরবর্তীতে বলা হয় বাড়ির ১৪ তলা থেকে ঝাঁপ দিয়েই আত্মহত্যা করেছেন তিনি। এছাড়াও দিশার মা-বাবা মেয়ের মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলেই বলে এসেছেন প্রথম থেকে। যদিও পরবর্তীতে তাঁরা একটি মামলা করেন। এছাড়াও পরবর্তীতে বলা হয় ময়নাতদন্তের রিপোর্টে বলা হয়েছিল অভিনেতা সূরজ পাঞ্চোলির সন্তানের মা হতে চলেছিলেন দিশা। সূরজের হাত থেকে দিশাকে বাঁচানোর চেষ্টা করেছিলেন সুশান্ত।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিএএস