সুন্দরবন রেজিমেন্টে বিজয়ী বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষার্থী ক্যাডেট আব্দুর রহিম

সুন্দরবন রেজিমেন্টে বিজয়ী বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষার্থী ক্যাডেট আব্দুর রহিম

বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধি   ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:৫৯ ৯ সেপ্টেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৬:৩৪ ৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) শিক্ষার্থী ক্যাডেট শেখ আব্দুর রহিম।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) শিক্ষার্থী ক্যাডেট শেখ আব্দুর রহিম।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সুন্দরবন রেজিমেন্টের আয়োজিত আন্ত:রেজিমেন্ট সাহিত্য প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) শিক্ষার্থী ক্যাডেট শেখ আব্দুর রহিম। তিনি আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।   

এর আগে গত ২৮ জুলাই বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোরের (বিএনসিসি) মহাপরিচালকের পক্ষে মেজর মো. আতাউল হকের স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে ঐ সাহিত্য প্রতিযোগিতার কথা জানানো হয়। 

প্রতিযোগিতায় ক্যাডেটদের জন্য বঙ্গবন্ধুর জীবনীর উপর প্রবন্ধ পাঠ ও মহিলা ক্যাডেটদের জন্য বঙ্গমাতার জীবনী উপর প্রবন্ধ পাঠের আয়োজন করা হয়। যা বাংলা ও ইংরেজি ভার্সনে ভিডিও ধারণ করে রেজিমেন্ট বরাবর প্রেরণের আহবান করা হয়। পরে সুন্দরবন রেজিমেন্টের আওতাধীন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে বিএনসিসি সদস্যরা এতে যোগদান করেন। অংশগ্রহণকারীদের যোগ্যতার ভিত্তিতে তিন ক্যাটাগরিতে মোট নয়জনকে পুরস্কৃত করা হয়।

এ বিষয়ে সুন্দরবন রেজিমেন্ট অ্যাডজুটেন্ট মেজর ওমর ফারুক বলেন, বাংলাদেশের জাতীয় দিবসগুলোতে আমদের রেজিমেন্টের পক্ষ থেকে নানা প্রতিযোগিতার আয়োজন করে থাকি। সেই ধারাবাহিকতায় আমরা এবারও জাতীয় শোক দিবস পালনার্থে সাহিত্য প্রতিযোগিতার আয়োজন করি। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী প্রত্যেকের উপস্থাপন সুন্দর ছিল। তারপরও বিজয়ী হিসেবে আমরা সর্বোচ্চ সেরা নয়জনকে নির্বাচন করেছি। আমি তাদের সবার উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করি।

বশেমুরবিপ্রবি বিএনসিসির প্লাটুন আন্ডার অফিসার মোহাম্মদ আশিকুজ্জামান ভুঁইয়া বলেন, আমাদের ক্যাডেট শেখ আব্দুর রহিমের বিজয়ী হওয়ার বিষয়টি জানতে পেরেছি। আমদের প্লাটুন থেকে এর আগেও কয়েকজন শিক্ষার্থী আন্ত:রেজিমেন্ট প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে বিজয়ী হয়েছে। আমাদের প্রতিটি শিক্ষার্থীর অর্জন আমদের জন্য অত্যন্ত গর্বের বিষয়।

এ ব্যাপারে ক্যাডেট শেখ আব্দুর রহিম বলেন, আমার বিজয়ী হওয়ার জন্য সর্বপ্রথম মহান স্রষ্টার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। আমার বিজয়ের পেছনে আমার বিএনসিসি পরিবারের সব সদস্য ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের ধন্যবাদ জানাই। 

সুন্দরবন রেজিমেন্ট নামে পরিচিত রেজিমেন্টটির কার্যক্রম ১৯৭৯ সালে বিএনসিসি গঠনের প্রথম থেকেই শুরু হয়। সুন্দরবন রেজিমেন্টের নামকরণ করা হয় বিশ্বের বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবনের নামে। খুলনা, বাগেরহাট,  শিটখড়ি, যশোর, নড়াইল, মাগুরা, শরীয়তপুর, মাদারীপুর, ফরিদপুর, রাজবাড়ী, গোপালগঞ্জ, বরিশাল, পিরোজপুর, ভোলা, পটুয়াখালী, বরগুনা ও ঝালকাঠি জেলার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে সুন্দরবন রেজিমেন্টের ক্যাডেটদের প্রশিক্ষণ ও কার্যক্রম পরিচালিত হয়। 

সুন্দরবন রেজিমেন্টের শুরুর সময় থেকেই এই পদ্ধতির সূচনা। এই রেজিমেন্টটি পাঁচটি ব্যাটালিয়নের মধ্যে সংগঠিত। রেজিমেন্টটি প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে দেশের বিভিন্ন জাতীয় দিবস ও সামাজিক সেবায় অংশগ্রহণ করে আসছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম