সবার আগে শিক্ষার্থীদের বাড়ি পৌঁছে দিলো কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়

সবার আগে শিক্ষার্থীদের বাড়ি পৌঁছে দিলো কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়

এবিএস ফরহাদ, কুবি প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:১৪ ২৪ জুলাই ২০২১   আপডেট: ১৮:৪৭ ২৪ জুলাই ২০২১

চায়ের দেশ মৌলভীবাজারে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস

চায়ের দেশ মৌলভীবাজারে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস

দেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অনন্য এক নজির দেখালো লালমাই পাহাড় ঘেঁষা কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি)। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি উদ্যোগ ছড়িয়ে পড়েছে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়েও। আর উদ্যোগটি হলো করোনা পরিস্থিতিতে বিভিন্ন জেলা থেকে পরীক্ষা দিতে এসে আটকে পড়া শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে বাড়ি পৌঁছে দেওয়া।

এমন উদ্যোগের পর বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের বাড়ি পৌঁছে দিতে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এ তালিকায় যুক্ত হয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়, হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। 

তবে সবার আগে এমন উদ্যোগ নিয়ে শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ানোয় প্রশংসায় ভাসছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়। ‘স্বপ্ন বাড়ি যাবে, ইতিহাস হয়ে থাকবে’ এমন ক্যাপশনে ফেসবুকে মুখর থাকেন কুবি শিক্ষার্থীরা। অনেকে আবার নিজ শহরে বিশ্ববিদ্যালয়ের নীলবাস দেখে আবেগ আপ্লুত হয়েছেন। 

কুবি’র নীলবাসে ময়মনসিংহ যান তানভীর আহমেদ। তিনি বলেন, নিজ শহরে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস দেখতে পাব ভাবতে পারিনি কখনো। কিন্তু তার সে কল্পনা বাস্তব করেছে বিশ্ববিদ্যালয়। এমন শিক্ষার্থীবান্ধব উদ্যোগ ইতিহাস হয়ে থাকবে বলে মনে করেন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে খুলনা বিভাগে পৌঁছান সানজিদা ইসলাম মীম। তার মতে, কুবি’র নীলবাস খুলনা শহরে দেখে অদ্ভুত এক আনন্দ লেগেছে। নিজ শহরে ক্যাম্পাসের বাসে ফেরা ছিল আনন্দের ও গর্বের। কখনো যা ঘটেনি তাই করতে পেরেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়। 

শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি এ উদ্যোগের প্রশংসা করছেন শিক্ষকরাও। গণিত বিভাগের শিক্ষক জনি আলম বলেন, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় সবসময় আন্তরিকতার সঙ্গে শিক্ষার্থীদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলোকে গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করে থাকে। যেমনটি করেছে করোনা পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব পরিবহনে শিক্ষার্থীদের বাড়ি পৌঁছে দেওয়া। যেটি অন্যান্য অনেক বিশ্ববিদ্যালয় অনুসরণ করেছে। শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় সব বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব সক্ষমতার সর্বোচ্চটুকু দিয়ে শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ানো সব বিশ্ববিদ্যালয়ের উচিত বলে আমি মনে করি। এতে শিক্ষার্থীরা উপকৃত হয় এবং পাশাপাশি দেশ ও জাতির কাছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি বৃদ্ধি পায়।

লোকপ্রশাসন বিভাগের শিক্ষক ফয়জুল ইসলাম ফিরোজ বলেন, বিভিন্ন সময়ে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীবান্ধব উদ্যোগ নিয়ে প্রশংসিত হয়েছে। এই করোনাকালীন সময়ে শিক্ষার্থীদের বাড়ি ফেরার দুর্ভোগ লাগব করতে পরিবহন সেবা ছিল অন্যতম একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ, যা এরই মধ্যে দেশের অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ের নিকট দৃষ্টান্ত তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে।

সবার আগে এমন উদ্যোগে ঝুঁকি নিতে হয়েছে জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. এমরান কবির চৌধুরী বলেন, করোনাকালীন সময়ে কোনো ছাত্র-ছাত্রী আক্রান্ত হয়ে যেতে পারে সেটা চিন্তা করেই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। ছাত্র-ছাত্রীরা আমার নিজের ছেলেমেয়ের মতো। সবসময় আমার ছেলেমেয়েদের কথা চিন্তা করেই কাজ করি। আমি সবসময় শিক্ষকদের বলি ছাত্র-ছাত্রী আছে বলেই আমরা শিক্ষক। সে বিষয়টি চিন্তা করে আমাদের ছোট ইউনিভার্সিটিতে সীমিত সম্পদ তারপরও ঝুঁকিটা নেয়া। সবাইকে নিরাপদে বাড়ি পৌঁছে দিতে পেরেছি। সবকিছু ঠিক হলে আমরা সবাই আবার ক্যাম্পাসে ফিরবো।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম/এইচএন