সংবাদ প্রকাশের পর মাদক নির্মূলে রাবি প্রশাসনের কড়াকড়ি

সংবাদ প্রকাশের পর মাদক নির্মূলে রাবি প্রশাসনের কড়াকড়ি

রাবি প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:০৩ ২৩ জানুয়ারি ২০২১  

বৃহস্পতিবার সকালে প্রক্টর দফতরে মাদক নির্মূলে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে গার্ড-সুপার ভাইজারদের নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকালে প্রক্টর দফতরে মাদক নির্মূলে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে গার্ড-সুপার ভাইজারদের নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) মাদক নির্মূলে নড়েচড়ে বসেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বৃহস্পতিবার সকালে প্রক্টর দফতরে মাদক নির্মূলে ক্যাম্পাসে গার্ড-সুপার ভাইজারদের নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এসময় ক্যাম্পাসে মাদক নির্মূলে সবার সহযোগিতা কামনা করা হয়। 

এর আগে গত ১৮ জানুয়ারি ডেইলি বাংলাদেশে ‘রাবির বন্ধ ক্যাম্পাসে মাদকের ছড়াছড়ি’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর বিষয়টি রাবি প্রশাসনের দৃষ্টিগোচর হয়। এর প্রেক্ষিতে রাবি প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান ক্যাম্পাসে মাদক সেবন বন্ধ করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেন।

আলোচনায় প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা ৬৫ জনের অধিক গার্ড নিয়োজিত থাকেন। তারা থাকার পর ক্যাম্পাসে মাদক ঢুকে যাচ্ছে, নিয়মিত সেবন করা হচ্ছে বিভিন্ন জায়গায়। ক্যাম্পাসে অবাধে ঢুকে যাচ্ছে বহিরাগতরা। বহিরাগতদের ক্যাম্পাসে প্রবেশে যে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে তা বাস্তবায়ন করার পাশাপাশি গার্ডদের আরো সচেতন হতে হবে।

প্রক্টর হুশিয়ারি দিয়ে আরো বলেন, কোন গার্ড বা কর্মচারী যদি মাদকের সঙ্গে সম্পৃক্ততা থাকে, আর সেটা যদি তার নজরে আসে, তাহলে কাউকে কোনোরূপ ছাড় দেয়া হবে না। আইন অনুযায়ী ব্যবস্থাগ্রহণের পাশাপাশি চাকরিচ্যূত করা হবে।

তিনি আরো বলেন, মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করা হয়েছে। ক্যাম্পাসে মাদক দমনে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন, পুলিশ, গোয়েন্দা তৎপর রয়েছে। মাদক নির্মূলে আমাদের যে অভিযান সেটা আরো জোরদার করা হবে।

প্রসঙ্গত, বৈশিক করোনা মহামারি সংক্রমণরোধে বন্ধ রয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও আবাসিক হলগুলো। তারপরও বন্ধ ক্যাম্পাসে থেমে নেই মাদকসেবন। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন জায়গাকে মাদকের নিরাপদ আশ্রয়স্থল বানিয়ে ফেলেছে মাদকসেবীরা।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম