ময়মনসিংহে গ্রুপিং-মাইনাসে বিপর্যস্ত বিএনপি

ময়মনসিংহে গ্রুপিং-মাইনাসে বিপর্যস্ত বিএনপি

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:৩০ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২   আপডেট: ১৭:৩০ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

লোগো বিএনপি-ফাইল ফটো

লোগো বিএনপি-ফাইল ফটো

ময়মনসিংহে নেতাদের গ্রুপিং ও মাইনাসে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে বিএনপি। এনিয়ে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে।

সূত্র জানায়, ময়মনসিংহ বিএনপি ৩টি ইউনিটে বিভক্ত। এর মধ্যে রয়েছে ময়মনসিংহ মহানগর, ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলা ও ময়মনসিংহ উত্তর জেলা।

প্রায় দুই বছর আগে এই ইউনিটগুলোতে বিএনপির পুর্নগঠন কার্যক্রম শুরু হলেও এখন পর্যন্ত গঠিত জেলা ও মহানগর কমিটি তাদের অধীনস্থ কমিটি গঠনে সফলতার স্বাক্ষর রাখতে পারেনি দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা। প্রায় এক বছরের অধিক সময়ে দক্ষিণ জেলা বিএনপি ৪টি উপজেলা কমিটি গঠন করেছে।

তবে দলের একটি শক্তিশালী অংশকে এসব কমিটি থেকে মাইনাস করা হয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। ফলে ত্রিশাল উপজেলা ও পৌর কমিটি নিয়ে ক্ষোভ অসন্তোষ থেমে থেমেই জ্বলে উঠছে বারবার।

ময়মনসিংহ-৭ (ত্রিশাল) আসনে ডা. মাহাবুবুর রহমান লিটন নিজের অবস্থান শক্ত করে ধরে রাখার জন্য তার অনুগতদের দিয়ে এই কমিটি গঠন করেছে। এতে কোণঠাসা করে রাখা হয়েছে বিএনপি দলীয় সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদনসহ বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী নেতার হাজার হাজার অনুসারীদের।

একই ধরনের ঘটনা ঘটেছে মুক্তাগাছা উপজেলাতেও। সেখানেও বিএনপি দলীয় সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জাকারিয়া হারুনকে মাইনাস করে গঠন করা হয়েছে নতুন কমিটি।

এছাড়াও সাম্প্রতিক সময়ে দক্ষিণ জেলা বিএনপির অধীনস্থ গফরগাঁও ও ফুলবাড়ীয়া উপজেলা বিএনপির নতুন কমিটি গঠন করা হলেও নেতৃত্ব বাঁছাই নিয়েও রয়েছে বির্তক।

৩৩টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত ময়মনসিংহ মহানগর বিএনপি। এরই মধ্যে ২০টি ওয়ার্ড কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়া তিনটি ওয়ার্ডের সম্মেলন সম্পন্ন হয়েছে যার কমিটি ঘোষণার প্রক্রিয়া চলছে। বাকি ১০টি ওয়ার্ডের সম্মেলন এবং কমিটি গঠনের কাজ চলমান রয়েছে। 

এ ব্যাপারে মহানগর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আবু ওয়াহাব আকন্দ ওয়াহিদ বলেন,  শিগগিরই বাকি ওয়ার্ডগুলোর কমিটি দেওয়া হবে।

এদিকে র্দীঘ এক যুগেরও বেশি সময় ধরে সাংগঠনিকভাবে চরম বাজে অবস্থায় চলছে ময়মনসিংহ জেলা উত্তর বিএনপি। গত ৫ বছর ধরে বিএনপির সাংগঠনিক এই জেলার প্রায় বেশির ভাগ উপজেলা বিএনপি চলছে দুই কমিটি দিয়ে।  

দুই মাস আগে গঠিত হয়েছে ৬৭ সদস্য বিশিষ্ট ময়মনসিংহ জেলা উত্তরের নতুন কমিটি। কমিটির আহ্বায়ক হয়েছেন গত প্রায় ২০ বছর ধরে বিএনপির কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকা অধ্যাপক এনায়েত উল্লাহ কালাম।

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার বড়হিত ইউনিয়ন বিএনপির এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, বিএনপির নেতারাই দলটিকে নষ্ট করে দিচ্ছে। গত ৫ বছর ধরে ঈশ্বরগঞ্জ বিএনপি চলছে দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে। এর একটি পক্ষের নেতৃত্বে রয়েছে ময়মনসিংহ-৮ ঈশ্বরগঞ্জ আসনের সাবেক এমপি শাহ নূরুল কবীর শাহীন এবং অপর একটি অংশের নেতৃত্বে রয়েছে প্রকৌশলী লুৎফুল্লাহেল মাজেদ বাবু।

উপজেলা থেকে শুরু করে প্রতিটি ইউনিয়নে রয়েছে তাদের আলাদা আলাদা কমিটি। এতে দল ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলেও জানান ঐ বিএনপি নেতা।

একই ধরনের অবস্থা বিএনপির সাংগঠনিক এই জেলার নান্দাইল, হালুয়াঘাট, ফুলপুর, তারাকান্দা, গৌরীপুর ও ধোবাউড়া উপজেলার। এই সবকটি উপজেলাতেই বিভক্ত হয়ে দলীয় কর্মসূচি পালন করছে বিএনপি।

দলীয় বিভক্তি, কমিটি গঠনে অনিয়ম এবং বিতর্কিতদের কমিটিতে অর্ন্তভুক্তিসহ দলের অবস্থানের বিষয়ে বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স বলেন, কমিটি করতে গেলে সবাইকে তো আর সব পদ দেওয়া যাবে না।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ/এমআরকে