শ্বাসরুদ্ধকর সেই অভিযানের অগ্রনায়ক যারা

ঢলে আটকা ২৬ জন উদ্ধার

শ্বাসরুদ্ধকর সেই অভিযানের অগ্রনায়ক যারা

ঝিনাইগাতী (শেরপুর) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২০:২৫ ২২ জুন ২০২২   আপডেট: ২০:২৮ ২২ জুন ২০২২

সেদিন আমি, নামাজজে পর বন্যার পানি ও চারপাশের অবস্থা দেখার উদ্দেশ্যে বের হই। ঐ সময় ৬টি পরিবারকে পাহাড়ি ঢলে আটকে পড়া অবস্থায় দেখে উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও ফায়ার সার্ভিসকে জানাই। পরে সম্মিলিতভাবে আটকে পড়া পরিবারগুলোকে উদ্ধার করি। আসলে বন্যাদুর্গতদের কাছে না গেলে, তারা কত কষ্টে আছে বোঝা যায় না।

এভাবেই গত শুক্রবার বিকেলে শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার রামেরকুড়া এলাকায় ভারি বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ি ঢলের পানিতে আটকে পড়া ছয়টি পরিবারের ২৬ জন সদস্যকে উদ্ধারের ঘটনা বর্ণনা করেন। সোহান নামে স্থানীয় এক স্বেচ্ছাসেবী।

সোহান বলেন, ঐ দিন আমি গিয়ে দেখি মহারশি নদীর ভাঙনের মুখে অন্তঃসত্ত্বা, শিশুসহ ২৬ জন মানুষ আটকা পড়েছে। স্রোতে তাদের বাড়ি যেকোনো সময় ভেসে যাওয়ার মতো অবস্থা। স্কাউট সদস্য আশিক তার টিম নিয়ে রাস্তায় কাজ করছে, ফায়ার সার্ভিস তাদের মতো করে কাজ চালাচ্ছে। পরে আমরা কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবী পানিতে নামি। পানির স্রোত অতিক্রম করে অনেক চেষ্টার পর ঐ বাড়িতে পৌঁছাই। আমাদের ইউপি মেম্বার জাহিদুল হক মনির ভাই সেদিন খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন।

আরো পড়ুন>> শেরপুরে পাহাড়ি ঢল: ২৬ জনকে উদ্ধারে ৪ ঘণ্টার শ্বাসরূদ্ধকর অভিযান

তিনি আরো বলেন, ৬টি বাড়িতে সবমিলিয়ে ২৬ জন ছিলেন। পরে আমরা এক ঘণ্টার চেষ্টায় চেয়ারম্যান শাহাদৎ ভাইয়ের ব্যবস্থা করা নৌকা ঐ বাড়িতে নিয়ে যাই। এরপর নৌকা ও আমাদের কাছে থাকা লাইফ জ্যাকেট পরিয়ে সবাইকে উদ্ধার করি।

শুধু সোহান নয়। আশিক, ফিরোজ, হাফিজুর, আবির, রুবেলসহ ৭-৮ জন স্বেচ্ছাসেবীঐ দিন পাহাড়ি ঢলের পানিতে আটকে পড়া ৬টি পরিবারের ২৬ জন মানুষকে উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিসের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করেছেন।

ঝিনাইগাতী ফায়ার সার্ভিসের সদস্য মান্নান বলেন, সেদিন ঢলের পানিতে সৃষ্ট বন্যায় আটকে পড়া পরিবারগুলোকে উদ্ধারে জনপ্রতিনিধি ও স্বেচ্ছাসেবকরা অনেক সাহায্য করেছে। ইউপি চেয়ারম্যান শাহাদৎ হোসেন, মেম্বার জাহিদুল হক মনির, সোহান, আশিক, আবির, রুবেলসহ স্বেচ্ছাসেবীরা দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

সৃষ্টি হিউম্যান রাইটস সোসাইটির সহকারী পরিচালক মো. নাঈম ইসলাম বলেন, বন্যায় আটকে পড়াদের উদ্ধারে অংশ নেয়া স্বেচ্ছাসেবীদের স্যালুট জানাই। তারা নিঃসন্দেহে মানবিকতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। কিছু কাজ আছে যা নিজের বিবেকের তাড়নায় করতে হয়। সেগুলো জীবনে প্রশান্তি এনে দেয়, আরো ভালো কাজের অনুপ্রেরণা জোগায়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর