পাত্র দেখানোর নামে কলেজছাত্রীকে তিনদিন আটকে রেখে ধর্ষণ, ঘটক গ্রেফতার

পাত্র দেখানোর নামে কলেজছাত্রীকে তিনদিন আটকে রেখে ধর্ষণ, ঘটক গ্রেফতার

বগুড়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:৫৪ ১৭ অক্টোবর ২০২১   আপডেট: ১৫:৫৫ ১৭ অক্টোবর ২০২১

গ্রেফতারকৃত ঘটক শাহিনুর রহমান

গ্রেফতারকৃত ঘটক শাহিনুর রহমান

বগুড়ার শিবগঞ্জে এক কলেজছাত্রীকে বিয়ের জন্য পাত্র দেখানোর কথা বলে কৌশলে অপহরণ করে তিনদিন আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে শাহিনুর রহমান নামে এক ঘটকের বিরুদ্ধে। পুলিশ অপহৃত কলেজছাত্রীকে উদ্ধার এবং ঘটককে গ্রেফতার করেছে।

শনিবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। গ্রেফতারকৃত ঘটক শাহিনুর রহমান ঐ উপজেলার রায়নগর ইউনিয়নের করতকোলা গ্রামের মোবারক প্রাংয়ের ছেলে।

জানা গেছে, ঘটকালি করেই জীবিকা নির্বাহ করে শাহিনুর। পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে ঐ কলেজছাত্রীকে বিয়ের জন্য পাত্র দেখানোর নাম করে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যায় সে। গত ১৩ অক্টোবর সকালে ওই ছাত্রী কলেজে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হন। সন্ধ্যা পার হলেও বাড়ি না ফেরায় তার পরিবার বিভিন্ন স্থানে খোঁজ করে। এক পর্যায় তারা ঘটক শাহিনুরের বাড়িতেও খোঁজ করে। ঐ সময় তাকেও বাড়িতে না পেয়ে তাদের সন্দেহ হয়।

খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে জানা যায়- ঐ ছাত্রীকে নিয়ে ঘটক শাহিনুর এক আত্মীয়ের বাড়িতে আত্মগোপনে আছে। শনিবার রাতে ওই ছাত্রীকে উদ্ধারে তার পরিবার সেখানে গেলে ঘটক পালানোর চেষ্টা করে। ঐ সময় স্থানীয়রা তাকে আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে।

ভুক্তভোগী কলেজছাত্রী জানান, ঘটক শাহিনুর তাকে বিয়ের জন্য ভালো পাত্র দেখানোর নামে নিজের আত্মীয়ের বাড়িতে তিনদিন আটকে রেখে ধর্ষণ করেছে।

শিবগঞ্জ থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম জানান, অপহৃত কলেজছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত ঘটক শাহিনুরের বিরুদ্ধে ঐ ছাত্রীর বাবা মামলা করেছেন। এর আগেও ঘটক শাহিনুর ভালো ছেলের সঙ্গে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে আরো তিনজন তরুণীকে ধর্ষণ করেছে। এরপর নিজেই তাদের বিয়ে করেছে। তবে ঐ তিনজনের কেউই তার সংসার করেনি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর