ব্রিজে পড়ে থাকা অসুস্থ নারীর চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন ইউপি সদস্য

ব্রিজে পড়ে থাকা অসুস্থ নারীর চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন ইউপি সদস্য

শরীয়তপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৮:৩৮ ৪ অক্টোবর ২০২১  

ব্রিজে পড়ে থাকা নারীকে উদ্ধার করে চিকিৎসার উদ্যোগ নিয়েছেন উপজেলার ভূমখাড়া ইউনিয়ন পরিষদের (১নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার) ইউপি সদস্য মো. জসিম ঢালী

ব্রিজে পড়ে থাকা নারীকে উদ্ধার করে চিকিৎসার উদ্যোগ নিয়েছেন উপজেলার ভূমখাড়া ইউনিয়ন পরিষদের (১নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার) ইউপি সদস্য মো. জসিম ঢালী

শরীয়তপুরের নড়িয়ার একটি ব্রিজে পড়েছিলেন অসুস্থ মানসিক ভারসাম্যহীন ৪০ বছর বয়সি এক নারী। কেউ তাকে উদ্ধার বা সাহায্য করতে এগিয়ে আসছিলেন না। এ খবর পেয়ে ওই নারীকে উদ্ধার করে চিকিৎসার উদ্যোগ নিয়েছেন উপজেলার ভূমখাড়া ইউনিয়ন পরিষদের (১নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার) ইউপি সদস্য মো. জসিম ঢালী।

শনিবার (২ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার চকধ বাজার সড়কের ব্রিজে এ ঘটনা ঘটে। রোববার (৩ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকে বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

ইউপি সদস্য মো. জসিম ঢালী বলেন, একজন মানুষ হিসেবে আরেকজন বিপন্ন মানুষকে সাহায্য করাই ধর্ম। ব্রিজে পড়ে থাকার পরও কেউ তাকে সাহায্য করেননি। নড়িয়া থানার ওসি স্যারকে ফোনে তথ্যটি দেই। পরে আমি ওই নারীকে উদ্ধার করে চিকিৎসার দায়িত্ব নেই। আমরা ওই নারীর পরিচয়ও জানার চেষ্টা করছি।

স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা জানান, নড়িয়া  উপজেলার চাকধ বাজার ব্রিজে শনিবার রাতে এক নারী পড়ে ছিলেন। কেউ তাকে উদ্ধার করছিলেন না। স্থানীয় কয়েকজন বিষয়টি মুঠোফোনে ইউপি সদস্য মো. জসিম ঢালীকে জানান। জসীম ঢালী গিয়ে ওই নারীকে উদ্ধার করে নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে যান। সেখানে তার চিকিৎসা শুরু করেন।

সিহাব খান বলেন, ব্রিজের ওপর এক নারীকে উপর হয়ে পড়ে থাকতে দেখে আমি এগিয়ে যাই। তখন তিনি অচেতন ছিলেন। বিষয়টি সঙ্গে সঙ্গে মেম্বারকে জানাই। কিছুক্ষণ পর মেম্বার আমাকে ফোন করে সেখানে অপেক্ষা করতে বলেন। তার দুই মিনিটের মধ্যেই মেম্বার ওই নারীকে উদ্ধার করে অটোরিকশায় তুলে হাসপাতালে নিয়ে যান। ওই নারীকে উদ্ধারের সময় অনেক মানুষ জড়ো হয়েছিলেন। কিন্তু ওই নারীকে কেউ তখনো সহায়তা করছিলেন না। তখন মেম্বার ওই নারীকে গাড়িতে ওঠান। এটা অনেক মানবিক ঘটনা। সচরাচর জনপ্রতিনিধিরা এ কাজগুলো করেন না। তিনি এমন কাজ করে মানবতার পরিচয় দিয়েছেন।

অসুস্থ ওই ভারসাম্যহীন নারী তার ঠিকানা বলতে পারছেন না। তাকে নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নারী ওয়ার্ডে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। ওই নারীকে চিকিৎসা দিচ্ছেন জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা. আব্দুর রহিম। 

নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শফিকুল ইসলাম (রাজিব) বলেন, ওই নারীর পুরোপুরি জ্ঞান ফিরেনি। তার শরীর অনেক দুর্বল। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে, তার বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। ওই নারীকে সর্বোচ্চ চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তার অবস্থা আগের চেয়ে একটু ভালো। কিছুদিন চিকিৎসা নিলে হয়তো স্বাভাবিক পর্যায়ে ফিরে আসবে। ভারসাম্যহীন হওয়ার কারণে তার পরিচয় এখনো জানা যায়নি।


 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ