১৯ দিন পর বাবার অস্ত্রসহ ছেলের আত্মসমর্পণ

১৯ দিন পর বাবার অস্ত্রসহ ছেলের আত্মসমর্পণ

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০৮:৪৩ ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১  

মাদকাসক্ত শামীম: ফাইল ফটো

মাদকাসক্ত শামীম: ফাইল ফটো

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে সুপ্রিমকোর্টের একজন আইনজীবীর লাইসেন্স করা পিস্তল চুরি করে তার মাদকাসক্ত ছেলে শামীম নিজ বাড়ির দোতলায় একটি কক্ষের ভেতরে অবরুদ্ধ থাকার ১৯ দিন পর গত সোমবার রাতে অস্ত্রসহ পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করে। গত ২৬ আগস্ট থেকে মাদকাসক্ত শামীম বৈধ অস্ত্রটি চুরি করে নিজ বাড়িতে নিজেকে অবরুদ্ধ রাখে। উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়নের কালনী হিরনাল এলাকায় ঘটে এ ঘটনা।

জানা যায়, গত ২১ আগস্ট সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম তার লাইসেন্সকৃত ৬ রাউন্ড গুলিভর্তি পিস্তলটি ঘরে খুঁজে না পেয়ে ২২ আগস্ট রূপগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। 

আইনজীবীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৯ আগস্ট সাভারের আশুলিয়ায় অবস্থিত মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্র বেস্ট অ্যাডিশন ইনস্টিটিউটের একটি টিম রূপগঞ্জ থানা পুলিশের সহায়তা নিয়ে শামীমকে নিয়ে যেতে আসে। এ সময় পুলিশের সহায়তায় তারা ঘরের দরজা ভাঙতে গেলে অবরুদ্ধ থাকা মাদকাসক্ত শামীম তাদের লক্ষ্য করে ২ রাউন্ড গুলি ছুড়ে। একটি গুলি বেস্ট অ্যাডিশন ইনস্টিটিউটের কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান খান পরাগের হাতে লাগে। পরের দিন ৩০ আগস্ট সকালে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আতিকুল ইসলাম ও রূপগঞ্জ থানা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস অবরুদ্ধ কক্ষ থেকে শামীমকে পিস্তলসহ বের করতে অভিযান চালায়। 

এ সময় পুলিশ কক্ষের ভেতরে শটগানের দুই রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে। এ সময় মাদকাসক্ত শামীম পুলিশকে লক্ষ্য করে কয়েকবার গুলি করার চেষ্টা চালায়। ঘটনার পর অবরুদ্ধ কক্ষ থেকে বের করতে থানা পুলিশ, জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়। তাকে উদ্ধার করতে না পেরে পুলিশ বাহিনী সদস্য বাড়িটিকে ঘিরে রেখেছিল। এদিকে গত সোমবার রাতে মাদকাসক্ত শামীম তার বাবার বৈধ পিস্তলসহ নিজেকে পুলিশের কাছে সমর্পণ করে। 

এছাড়া পুলিশ আইনজীবী অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলামের কাছে থাকা ৩৫ রাউন্ড গুলি জব্দ করে। রূপগঞ্জ থানার ওসি এএফএম সায়েদ জানান, মঙ্গলবার সকালে পুলিশ মাদকাসক্ত শামীমকে সাভারের আশুলিয়ায় অবস্থিত মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্র বেস্ট অ্যাডিশন ইনস্টিটিউটে হস্তান্তর করেছে। আইনজীবীর লাইসেন্সকৃত বৈধ পিস্তল ও গুলি থানায় জমা আছে। অস্ত্র ব্যবহারের লাইসেন্স বাতিলের জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন প্রক্রিয়াধীন।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ