গরম বাতাসে পুড়ছে হাজার হেক্টর জমির ধান

গরম বাতাসে পুড়ছে হাজার হেক্টর জমির ধান

বেলাব (নরসিংদী) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:৪৭ ৯ এপ্রিল ২০২১  

গরম বাতাস বা হিট ইনজুরিতে আক্রান্ত বেলাব উপজেলার প্রায় ছয় হাজার হেক্টর জমির বোরো ধান

গরম বাতাস বা হিট ইনজুরিতে আক্রান্ত বেলাব উপজেলার প্রায় ছয় হাজার হেক্টর জমির বোরো ধান

নরসিংদীর বেলাব উপজেলায় গলা পচা বা ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত হয়েছে চলতি মৌসুমের বোরো ধান। এছাড়া হিট ইনজুরি বা গরম বাতাসে পাকা ধান পুড়ে চিটা হয়ে যাচ্ছে। এতে লোকসানের আশঙ্কায় পড়েছেন চাষিরা। তাদের বুকে এখন স্বপ্ন ভাঙার বেদনা।

কৃষি বিভাগের মতে, দিনে গরম ও রাতে ঠাণ্ডা আবহাওয়ার কারণে এ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। ধান রক্ষায় সঠিক মাত্রায় ছত্রাকনাশক ছিটানোসহ প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিচ্ছেন কৃষি কর্মকর্তারা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, অনেক জমির বোরো ধান সাদা হয়ে গেছে। ধান গাছের উপরের অংশ ঝলসে গিয়ে হেলে পড়েছে। আবার কিছু ক্ষেতের আধা পাকা ধানের গোড়া পচে ও শিষ শুকিয়ে ভেতরে চিটা হয়ে যাচ্ছে।

ধানের গোড়া পচে ও শিষ শুকিয়ে ভেতরে চিটা হয়ে যাচ্ছে

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে বেলাব উপজেলায় পাঁচ হাজার ৮২৫ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ হয়েছে। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২৬ হাজার মেট্রিক টন। তবে সাম্প্রতিক হিট ইনজুরি ও ব্লাস্ট রোগের কারণে অনেক ধান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে লক্ষ্যমাত্রা অর্জন নিয়ে চিন্তিত কৃষি বিভাগ। এখনো ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ হয়নি।

বিন্নাবাইদ ইউনিয়নের চর কাশিমনগরের বোরো চাষি রিটন মিয়া জানান, প্রথমদিকে দুয়েকটি ধানগাছ পুড়ে যায়। ধীরে ধীরে পুরো জমির ধান পুড়ে গেছে। ব্রি-২৮ জাতের ধানের গাছগুলো গলা পচা রোগে শুকিয়ে যাচ্ছে। ওষুধ ছিটিয়ে অবস্থার সামান্য উন্নতি হলেও রোগ পুরোপুরি দমন করা সম্ভব হচ্ছে না।

পাটুলী ইউনিয়নের ভাবলা গ্রামের আমিনুল ইসলাম আফ্রাদ বলেন, এত সুন্দর ফসল দেখে আনন্দে বুকটা ভরে উঠেছিল। ২-৩ দিন ধরে দেখছি- সব ধানের শিষ সাদা হয়ে যাচ্ছে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই পুরো ক্ষেতে রোগটি ছড়িয়ে পড়েছে। কৃষি কর্মকর্তাদের পরামর্শ নিয়েও তেমন উন্নতি দেখছি না।

বেলাব উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নাজিম উর-রউফ খান বলেন, ধানক্ষেত হঠাৎ সাদা হয়ে যাওয়া, পুড়ে যাওয়া এবং চিটা হওয়া কোনো রোগ না। কয়েকদিন আগে হঠাৎ বয়ে যাওয়া গরম বাতাসের কারণে এ অবস্থা হয়েছে। এখন দিনে অত্যাধিক গরম আর রাতে ঠাণ্ডা আবহাওয়ার কারণে বোরো ধান নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আবহাওয়া স্বাভাবিক হলে এ সমস্যা কেটে যাবে। ব্লাস্ট রোগ নির্মূলে কৃষকদের সঠিক মাত্রায় ছত্রাকনাশক ছিটানোর পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর