মেহেদীর রঙ না শুকাতেই স্বামীর নির্যাতনে নিথর হলেন শিল্পী

মেহেদীর রঙ না শুকাতেই স্বামীর নির্যাতনে নিথর হলেন শিল্পী

পলাশ (নরসিংদী) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:০৬ ৬ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ১৬:০৭ ৬ এপ্রিল ২০২১

শিল্পী রাণী দাস-ফাইল ফটো

শিল্পী রাণী দাস-ফাইল ফটো

মেহেদীর রঙ না শুকাতেই স্বামীর নির্মম নির্যাতনে নিথর হলেন শিল্পী রাণী দাস। যৌতুকের জন্য শারীরিক নির্যাতনের পর শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামী শ্যামল দাসের বিরুদ্ধে।

গত রোববার রাতে মৃতের স্বামীর বাড়ি নরসিংদী জেলার পলাশ উপজেলার জিনারদী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মৃত শিল্পী রাণী দাসের পৈতৃক বাড়ি ব্রাম্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর থানার ভোলাচং গ্রামে।

এ বছরের ২১ ফেব্রুয়ারি তাদের বিয়ে হয়। যৌতুকের জন্য প্রায়ই তার স্বামী তাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতো। গত রোববার সন্ধ্যার পর প্রায় দিনের মতো দু'জনের মধ্যে ঝগড়া হয়,পরে রাতের যেকোনো সময় শিল্পী রাণী দাসকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয় বলে বাদী তার এজাহারে উল্লেখ করেন। হত্যার পর তার গলায় শাড়ি কাপড় পেঁচিয়ে ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখে। সোমবার সকাল ৭টার পর মরদেহ বাড়ির সামনে রেখে দেয়া হয়।

সংবাদ পেয়ে শিল্পী রাণী দাসের বৃদ্ধ মা ভাই বোনসহ পরিবারের লোকজন ছুটে আসে। পলাশ থানা পুলিশ খবর পেয়ে বেলা ১১টায় ঘটনাস্থলে যায় এবং মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়।

মৃতের থুতনির নিচে ও শরীরে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। ঘটনাস্থল থেকে শিল্পী রাণী দাসের স্বামী শ্যামল দাস ও শ্বশুর বিমল দাসকে পুলিশ জিজ্ঞাসা বাদের জন্য থানায় নিয়ে আসে।

এ ঘটনায় মৃতের ভাই শুভ চন্দ্র দাস বাদী হয়ে পলাশ থানায় একটি হত্যা মামলা করেছেন। বিয়ের ঠিক ১ মাস ১৩ দিনের মাথায় মেয়ের এমন নির্মম মৃত্যুতে মা কাজল রাণী দাস ও তার পরিবারের কান্নার আহাজারিতে আকাশ বাতাস ভারি হয়ে উঠেছে। শিল্পী রাণী দাস ৩ বোন ও ১ ভাইয়ের মধ্যে ছিলেন সবার ছোট।
 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ