গর্ভের সন্তানের ডিএনএ পরীক্ষায় সাত বছর পর ধরা পড়ল মায়ের খুনি

গর্ভের সন্তানের ডিএনএ পরীক্ষায় সাত বছর পর ধরা পড়ল মায়ের খুনি

রংপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১০:৪৭ ২১ জানুয়ারি ২০২১  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

সাত বছর আগে মাদরাসাছাত্রী ফাতেমা আক্তারের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার জয়পুর গ্রামের এ ঘটনাটি ময়নাতদন্তের রিপোর্টের পর অন্যদিকে মোড় নেয়।

প্রথমে এটিকে আত্মহত্যা মনে করা হলেও ময়নাতদন্তে জানা যায় যে, ফাতেমা অন্তঃস্বত্তা ছিলেন। এরপর গর্ভের সেই সন্তানের ডিএনএ পরীক্ষার সূত্র ধরে সাত বছর পর জানা গেল ফাতেমাকে খুন করা হয়েছিল। আর সেই খুনি তারই চাচাতো ভাই। সম্প্রতি সেই খুনিকে আটক করেছে সিআইডি।

২০১৪ সালের ৭ মার্চ ফাতেমার লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে সিআইডি তদন্ত শুরু করে রহস্য উদ্ঘাটনে ধাপে ধাপে সন্দেহজনকভাবে মোট ১৩ জনের ডিএনএ টেস্ট করে।

সম্প্রতি সিআইডির ফরেনসিক ল্যাবে নিহত ফাতেমার পেটের বাচ্চার ডিএনএর সঙ্গে ওই ১৩ জনের মধ্যে তার চাচাতো ভাই হাসানুর জামান শিপনের ডিএনএ মিলে যায়। এরপরই শিপনকে আটক করে সিআইডি। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে আসে ফাতেমাকে ধর্ষণ এবং পরবর্তী সময়ে গর্ভবতী হওয়ায় গলা টিপে হত্যার ঘটনা।

সিআইডির ডিআইজি শেখ নাজমুল আলম এ প্রসঙ্গে বলেন, ডিএনএ টেস্টের মাধ্যমে আসামি চিহ্নিত করার ঘটনাটি সিআইডির তদন্ত কার্যক্রমে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস