সেতুর রেলিং ভেঙে স্থানীয় নেতা বানাচ্ছেন বোনের বাড়ি যাওয়ার সড়ক!

সেতুর রেলিং ভেঙে স্থানীয় নেতা বানাচ্ছেন বোনের বাড়ি যাওয়ার সড়ক!

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১০:৩৭ ২ ডিসেম্বর ২০২০   আপডেট: ১১:০৩ ২ ডিসেম্বর ২০২০

ব্রিজের দক্ষিণ পাশে প্রায় ১০ ফুট হুইল গার্ড ও রেলিং ভেঙে ফেলেন স্থানীয় নেতা

ব্রিজের দক্ষিণ পাশে প্রায় ১০ ফুট হুইল গার্ড ও রেলিং ভেঙে ফেলেন স্থানীয় নেতা

বোনের বাড়ি যেতে এলজিইডির অর্থায়নে নির্মিত ব্রিজের হুইল গার্ড ও রেলিং ভেঙে সড়ক বানানোর অভিযোগ উঠেছে। এতে ব্রিজটি ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। আনাইতারা ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের রেজাউল করিম বাবু খান নামে এক স্থানীয় নেতার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের উপজেলার আনাইতারা ইউনিয়নের চরবিলসা দক্ষিণপাড়া গ্রামে।

ব্রিজের হুইল গার্ড ও রেলিং ভেঙে অন্যের জমির ওপর দিয়ে সড়ক বানালেও বাবু খানের ভয়ে জমির মালিকসহ কেউ প্রতিবাদ করতে পারছেন না। সোমবার বিকেলে সরেজমিনে ওই এলাকায় গিয়ে স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে।

উপজেলা প্রকৌশল অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০০২-২০০৩ অর্থ বছরে চরবিলসা গ্রামের খালের ওপর পূর্ব-পশ্চিমে ২০ মিটার দৈর্ঘ্যের একটি ফুট ব্রিজ নির্মাণ করে স্থানীয় এলজিইডি মির্জাপুর অফিস। ওই ব্রিজটি নির্মাণ হওয়ার পর গ্রামের মানুষ সহজে বারিন্দা বাজারসহ উপজেলা সদরে নির্বিঘ্নে চলাচল করে।

গত শনিবার রেজাউল করিম বাবু খান তার বোনের বাড়িতে যাওয়ার সড়ক সহজ করতে খালের ওপর নির্মিত ব্রিজের দক্ষিণ পাশে প্রায় ১০ ফুট হুইল গার্ড ও রেলিং ভেঙে ফেলেন। এ কাজে সহায়তা করেন তার ভগ্নিপতি রাজাপুর বাহারাম মল্লিক উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মঞ্জুর রহমান মজনু। পরে তারা চান মিয়া নামের এক ব্যক্তির জমির ওপর দিয়ে সড়ক নির্মাণ কাজ শুরু করেন এবং নির্মাণকাজের ব্যয়ভার বহন করছেন।

জমির মালিক ও এলাকাবাসী এর প্রতিবাদ করলে বাবু খান উল্টো তাদের নানাভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি ধামকি দিচ্ছে বলে গ্রামবাসী জানান। এই ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে চাপা ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে যেকোন মুহূর্তে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে পারে বলেও স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

জমির মালিক চান মিয়ার ছেলে আব্দুল হক ও ফজলুল হক বলেন, আমাদের না জানিয়েই আমাদের জমির ওপর দিয়ে সড়ক বানানো হচ্ছে। বাধা দিলে তারা মানছেন না।

আনাইতার ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার লুৎফর রহমান বলেন, ব্রিজ ভেঙে সড়ক করার খবর পেয়ে বাধা দিতে গেলে বাবু খান তা কর্নপাত না করেই কাজ করছেন।

আনাইতার ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বেল্লাল হোসেন বলেন, ব্রিজের রেলিং ভেঙে সড়ক বানানো কোনোভাবেই ঠিক হয়নি।

বাবু খানের ভগ্নিপতি রাজাপুর বাহারাম মল্লিক উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মঞ্জুর রহমান মজনু বলেন, গ্রামবাসীর সমন্বয়ে সড়কটি বানানো হচ্ছে। অর্থদানকারী কে জানতে চাইলে তিনি কোনো উত্তর দেননি।

অভিযুক্ত বাবু খান বলেন, গ্রামবাসীর স্বার্থে সড়ক তৈরির কাজ চলছে। এ কাজের সঙ্গে আমি জড়িত নই।

আনাইতারা ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ব্রিজের হুইল গার্ড ও রেলিং ভেঙে অপরাধ করেছে।

মির্জাপুর উপজেলা প্রকৌশলী মো. আরিফুর রহমান বলেন, সরেজমিনে পরিদর্শন করে ব্রিজের হুইল গার্ড ও রেলিং ভাঙার সত্যতা পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ