সিলেটে প্রকল্পের টাকা আত্মসাৎ বিএনপি নেতার

সিলেটে প্রকল্পের টাকা আত্মসাৎ বিএনপি নেতার

সিলেট প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:৪০ ৩০ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ১৭:২১ ৩০ অক্টোবর ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

সিলেটের গোলাপগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের নামে প্রায় দুই লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন আমীন উদ্দিন আহমদ নামে এক বিএনপি নেতা। তিনি সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সহ-আইন বিষয়ক সম্পাদক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন পনাইরচক সমাজকল্যাণ পরিষদ’র উপদেষ্টা।

চলতি বছরের জুনে জেলা পরিষদের সংস্কৃতি খাতের উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ করা টাকা তোলেন তিনি। তবে এখনো সেই টাকার কোনো হদিস পাননি কেউ। সংগঠনের নামে সোনালী ব্যাংকে যৌথ হিসাব খুলে কৌশলে স্বাক্ষর জালিয়াতি করে টাকা আত্মসাৎ করেন আমীন উদ্দিন আহমদ।

বিএনপি নেতা আমীন উদ্দিন আহমদ টাকা আত্মসাৎ করার জন্য কৌশলে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও নিজের নামে যৌথ ব্যাংক হিসাব খোলেন। পরবর্তীতে চেকে স্বাক্ষর জালিয়াতি করে বরাদ্দ করা দুই লাখ টাকার মধ্যে এক লাখ ৮১ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেন।

চলতি বছরের জুনে পনাইরচক সমাজকল্যাণ পরিষদের নামে দুই লাখ টাকা বরাদ্দ করে জেলা পরিষদ। বরাদ্দের টাকা পেতে কাউকে না জানিয়ে এককভাবে সংস্কৃতি উন্নয়ন প্রকল্প তৈরি করেন আমীন উদ্দিন। প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কমিটিতে আরো পাঁচজনের নাম উল্লেখ করেন। করোনায় লকডাউনের সময় সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইকবাল হোসেনের ভোটার আইডি নিয়ে সোনালী ব্যাংকের কোর্টবিল্ডিং শাখায় সংগঠনের নামে একটি যৌথ ব্যাংক হিসাব খোলেন। এরপর অ্যাকাউন্টের চেক বই এমনকি হিসাব নম্বরও সংগঠনের কাউকে জানাননি।

পনাইরচক সমাজকল্যাণ পরিষদের কার্যালয় ও সদস্যদের তালিকা

সিলেট জেলা পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, ১৪ জুন ওই সংগঠনের পাঁচ সদস্যের প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির তালিকাসহ সব কাগজপত্র জেলা পরিষদে জমা দিয়ে বরাদ্দ করা দুই লাখ টাকার মধ্যে এক লাখ ৮১ হাজার টাকার চেক বুঝে নেন আমিন উদ্দিন। চেক নেয়ার বিষয়টি সংগঠনের আর কোনো সদস্যকে জানাননি তিনি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ওইদিনই সোনালী ব্যাংকের কোর্টবিল্ডিং শাখায় চেকটি জমা দেন সংগঠনের উপদেষ্টা আমীন উদ্দিন। পরদিন চেকের মাধ্যমে ৯০ হাজার ৫০০ টাকা ও ১৬ জুন বাকি ৯০ হাজার ৫০০ টাকা তুলে নেন। কিন্তু দুই কিস্তিতে এ টাকাগুলো তুললেও যৌথ হিসাবধারী অপর ব্যক্তি সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইকবাল হোসেন কিছুই জানেন না। এমনকি সংগঠনের পাঁচ উপদেষ্টাসহ কোনো সদস্যই এ টাকার হদিস পাননি।

বরাদ্দ করা টাকার বিষয়ে সংগঠনের সদস্যরা আমীন উদ্দিনের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি এ বিষয়ে চুপ থাকতে বলেন। কারণ বেশি জানাজানি হলে রেজিস্ট্রেশনবিহীন এ সংগঠনের নামে টাকা বরাদ্দ হবে না। উল্টো সবাই ঝামেলায় পড়বে বলেও হুঁশিয়ারি দেন।

পনাইরচক সমাজকল্যাণ পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইকবাল হোসেন বলেন, ফেসবুকে অন্য একটি সংগঠন সরকারি বরাদ্দ পাওয়ার বিষয়টি প্রকাশ করলে ওই তালিকায় আমাদের সংগঠনের নাম দেখতে পাই। পরে বিষয়টি আমাদের উপদেষ্টা আমীন উদ্দিনকে জানালে তিনি বলেন- এখনো এটা প্রক্রিয়াধীন। এ ব্যাপারে তেমন বলাবলির প্রয়োজন নেই। টাকা এলে আমি নিজেই বলবো।

ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আরো বলেন, ১৪ জুন বরাদ্দের চেক জমা দিয়ে আমার স্বাক্ষর জাল করে টাকা তোলেন আমীন উদ্দিন। সংগঠনের অ্যাকাউন্ট খোলার পর আমি কোনো চেকে স্বাক্ষর দেইনি।

এ ব্যাপারে প্রথমে টাকা তোলার কথা অস্বীকার করেন সংগঠনের উপদেষ্টা ও বিএনপি নেতা আমিন উদ্দিন। বরাদ্দের টাকা পেতে আরো কয়েকদিন সময় লাগবে বলে জানান তিনি। পরে ঘটনা স্বীকার করে বলেন- টাকা তোলা হয়েছে। আমার কাছে আছে। প্রকল্পের টাকা দিয়ে আসবাবপত্র ও ল্যাপটপ কেনা হয়েছে। ল্যাপটপটি বর্তমানে তিনি ব্যবহার করছেন বলেও জানান।

সংগঠনের আর কেউ টাকা তোলার বিষয়ে জানেন কি না- জবাবে আমিন উদ্দিন বলেন, আর কেউ জানার কথা না। আমি সবাইকে জানাবো।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর/এআর