মধ্যরাতে বৈদ্যুতিক ক্যাবল পেঁচিয়ে গার্মেন্টস শ্রমিককে ধর্ষণ

মধ্যরাতে বৈদ্যুতিক ক্যাবল পেঁচিয়ে গার্মেন্টস শ্রমিককে ধর্ষণ

সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:৩০ ২৬ অক্টোবর ২০২০  

মধ্যরাতে বৈদ্যুতিক ক্যাবল পেঁচিয়ে গার্মেন্টস শ্রমিককে ধর্ষণ-প্রতীকী ছবি।

মধ্যরাতে বৈদ্যুতিক ক্যাবল পেঁচিয়ে গার্মেন্টস শ্রমিককে ধর্ষণ-প্রতীকী ছবি।

ক্নান্ত শরীরে রাতে ১১ টায় ঘুমাতে যান গার্মেন্টস শ্রমিক এক নারী। আচমকা রাত ৩ টায় অজ্ঞাত লোক ঘরে প্রবেশ করেই নারীর মুখে ও গলায় গামছা চেপে ধরে। পরে গামছার ওপর বৈদ্যুতিক ক্যাবল পেঁচিয়ে ধর্ষণ করে অজ্ঞাত এ লোক।

শনিবার রাতে ঢাকার সাভার পৌরসভা নামাবাজার নামাবাজার কাঠপট্টি কাজির বাড়িতে এ ঘটনাটি ঘটেছে। ওই নারী আশুলিয়ার খাগানের কাজল গার্মেন্টসের শ্রমিক। তার গ্রামের বাড়ি মানিকগঞ্জ।

ধর্ষণের শিকার নারীর পরিবার জানায়, বেশ কয়েক বছর ধরে মা-বাবার সঙ্গে সাভারে বসবাস করছিলেন গার্মেন্টস শ্রমিক নারী। কয়েক মাস আগে মা-বাবা মানিকগঞ্জে চলে যান। এতে পৌর-এলাকার নামাবাজার কাঠপট্টির কাজির বাড়ির একটি ঘর নিয়ে একাই ভাড়া থাকেন এ নারী। প্রতিদিনের ন্যায় শনিবার রাতে গামেন্টস ছুটির পর বাসায় ফেরেন তিনি। রাতের খাবার শেষে ক্লান্ত শরীরে রাত ১১ টায় ঘুমাতে যান ওই নারী।

রাত ৩ টায় অজ্ঞাত এক লোক তার ঘরে ঢুকে পড়ে। এ সময় তিনি চিৎকার দিলে তার মুখে ও গলায় গামছা চেপে ধরে। ওই সময় বিদ্যুতের মোটা ক্যাবল দিয়ে তার মুখে ও গলায় পেঁচিয়ে ধরে লোকটি। ধর্ষণের এক পর্যায়ে মুখ থেকে গামছা সরে গেলে চিৎকার দেন ওই ভুক্তভোগী নারী। এতে বাড়ির অন্যান্য ভাড়াটিয়া বের হওয়ার আগেই ধর্ষক পালিয়ে যায়। তবে গামছা ও ক্যাবল ফেলে রেখে গেছে ধর্ষক। 

ধর্ষণের শিকার নারী জানান, ধর্ষককে চিনতে পারেননি। ধর্ষকের মুখে দাড়ি ও হাতে আংটি রয়েছে বলে জানান তিনি। এদিকে খবর পেয়ে রোববার সকালে মানিকগঞ্জ থেকে ছুটে আসেন ভুক্তভোগী বাবা। সন্ধ্যার পর ভুক্তভোগীকে নিয়ে থানায় যান বাবা।

সাভার মডেল থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম জানান, রোববার রাতে এক নারীকে নিয়ে তার বাবা এসেছেন। বাবার দাবি, তার মেয়ে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। বিষয়টি তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ