রিফাত হত্যা: অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির রায় কাল

রিফাত হত্যা: অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির রায় কাল

বরগুনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১২:২১ ২৬ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ১২:৩৯ ২৬ অক্টোবর ২০২০

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

বরগুনার আলোচিত শাহনেওয়াজ রিফাত ওরফে রিফাত শরীফ হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির রায়ের দিন ধার্য করেছে আদালত। মঙ্গলবার রায় ঘোষণা করবেন বরগুনা জেলা শিশু আদালতের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান।

আসামিরা হলেন- মো. রাশিদুল হাসান রিশান ওরফে রিশান ফরাজী, মো. রাকিবুল হাসান রিফাত হাওলাদার, মো. আবু আবদুল্লাহ্ ওরফে রায়হান, মো. ওলিউল্লাহ্ ওরফে অলি, জয় চন্দ্র সরকার ওরফে চন্দন, মো. নাইম, মো. তানভীর হোসেন, মো. নাজমুল হাসান, মো. রাকিবুল হাসান নিয়ামত, মো. সাইয়েদ মারুফ বিল্লাহ ওরফে মহিবুল্লাহ, মারুফ মল্লিক, প্রিন্স মোল্লা, রাতুল শিকদার জয়,  মো. আরিয়ান হোসেন শ্রাবণ।

২০১৯ সালের ২৬ জুন সকালে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে নয়ন বন্ড ও তার গ্রুপের সদস্যরা কুপিয়ে গুরুতর আহত করে রিফাত শরীফকে। ওই দিন বিকেলে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান রিফাত। ওই হত্যাকাণ্ড সারা দেশকে নাড়িয়ে দিয়েছিল।

ঘটনার পরদিন রিফাতের বাবা মো. আবদুল হালিম দুলাল শরীফ ১২ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৫-৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। এরপর পুলিশ একে একে গ্রেফতার করে এজাহারভুক্ত আসামিদের। রিফাতের ওপর হামলার ছয়দিন পর পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয় এ মামলার প্রধান আসামি সাব্বির আহমেদ নয়ন ওরফে নয়ন বন্ড।

ওই বছরের ১ সেপ্টেম্বর বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ২৪ জনকে অভিযুক্ত করে প্রাপ্তবয়স্ক এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক দুই ভাগে বিভক্ত করে দুটি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করে পুলিশ। এদের মধ্যে ১০ জন প্রাপ্তবয়স্ক ও ১৪ জন অপ্রাপ্তবয়স্ক। এক নম্বর আসামি নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ায় তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

চলতি বছরের ৮ জানুয়ারি এ মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করে বরগুনার শিশু আদালত। ৭৪ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ ও বিচারিক কার্যক্রম শেষে ১৪ অক্টোবর বরগুনা শিশু আদালত এ মামলার রায়ের দিন ধার্য করে। ১৪ আসামির মধ্যে ৭ আসামির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে।

নিহত রিফাত শরীফের বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ বলেন, ৩০ সেপ্টেম্বর প্রাপ্তবয়স্ক আসামিদের ক্ষেত্রে আদালত যে রায় দিয়েছে তাতে আমরা সন্তুষ্ট। অপ্রাপ্তবয়স্ক আসামিদের ক্ষেত্রেও আদালত অপরাধ বিবেচনা করে সর্বোচ্চ শাস্তি দেবেন বলে আমার প্রত্যাশা।

তিনি আরো বলেন, এই রায়ের মাধ্যমে এমন দৃষ্টান্ত স্থাপন করা হোক যাতে আর কোনো অপ্রাপ্তবয়স্ক অপরাধী এমন অপরাধ করতে সাহস না পায়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও বরগুনার শিশু আদালতের পিপি মো. মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল বলেন, আলোচিত এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষ ৭৪ জন সাক্ষীকে আদালতে উপস্থাপন করতে সক্ষম হয়েছে। এছাড়া হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে ৭ আসামি জবানবন্দি দিয়েছে। আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এর আগে, চলতি বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় নিহতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ৬ প্রাপ্তবয়স্ক আসামিকে মৃত্যুদণ্ড ও ৪ আসামিকে খালাস দেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান।

মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামিরা হলেন- রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইউম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয়, মো. হাসান ও আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর